channel 24

সর্বশেষ

  • আবরার হত্যা: কাল সকাল ১১টায় শহীদ মিনারে...

  • জড়ো হবেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা; ঘোষণা হবে পরবর্তী কর্মসূচি

  • উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যুবককে জবাই করে হত্যা; ঘাতক আটক

  • তেজষ্ক্রিয় বর্জ্য ও ব্যবহৃত পারমাণবিক জ্বালানি...

  • ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জাতীয় নীতির অনুমোদন মন্ত্রিসভায়

  • প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে গণভবনে আবরারের পরিবার

  • আবরার হত্যা: বুয়েট পরীক্ষা চলাকালে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ শিক্ষার্থীদের...

  • আসামি অমিত সাহা বুয়েট ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার...

  • চলমান সংকট সমাধানে কয়েকটি কমিটি করা হয়েছে: ভিসি

  • গুলিস্তানে পুলিশের ওপর বোমা হামলা: আজমির ও তামীম ৫ দিনের রিমান্ডে

  • নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে কর্মচারীদের চাকরিচ্যুতের...

  • ৩ মামলায় জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা হাইকোর্টে স্থগিত

  • ভারত থেকে পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত দাম একটু বেশি থাকবে...

  • মজুদ থাকার পরও দাম কেন বাড়ছে, তদন্তে ব্যবস্থা: বাণিজ্যমন্ত্রী

  • সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে বিভৎস কায়দায় হত্যা...

  • আটক ৭ জনের মধ্যে ৩ জনের সম্পৃক্ততা রয়েছে: পুলিশ

  • জাপানে টাইফুন হাগিবিসের আঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫৬; নিখোঁজ ১৫

২০ বছরের মধ্যেই মহাবিপর্যয় নেমে আসতে পারে: বিজ্ঞানীদের প্রতিবেদন

২০ বছরের মধ্যেই মহাবিপর্যয় নেমে আসতে পারে: বিজ্ঞানীদের প্রতিবেদন

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে যে ক্ষতি ২০ বছর পরে হওয়ার কথা ছিল তা এখনই হচ্ছে। কারণ, কার্বণ নিঃসরণ বেড়ে যাওয়ায় তাপমাত্রা বাড়ছে ধারণার চেয়েও বেশি। যদি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থ্য না নেয়া হয়, ৫০ বছর পর যে মহাবিপর্যয় হওয়ার আশঙ্কা আছে, তা আগামী ২০ বছরের মধ্যেই হতে পারে। জাতিসংঘের জলবায়ু সম্মেলনকে সামনে রেখে বিজ্ঞানীরা যে প্রতিবেদন দিয়েছেন, তাতে এই ভয়াবহ চিত্র উঠে এসেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে যখন বিতর্ক হয় জলবায়ু পরিবর্তন আসল নাকি ভুয়া তখন তাদের শিশুরা ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত। গত শুক্রবার সারা বিশ্বের মত নিউইয়র্কের রাজপথেও লাখো শিশু বিক্ষোভ করেছে জরুরী পদেক্ষপেরে দাবিতে। অথচ ট্রাম্পের যুক্তরাষ্ট্র প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে বেড়িয়ে গেছে।

জাতিসংঘের জলবায়ু সম্মেলন সামনে রেখে বিজ্ঞানীরা একটি প্রতিবেদন দিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রাক শিল্প যুগ তথা ১৮৫০ সাল থেকে ১৯০০ সালের তুলনায় পৃথিবীর তাপমাত্রা বেড়েছে ১.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ২০১১ সাল থেকে ২০১৫ সালের তুলনায় ০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ২০১৫ সাল থেকে ২০১৯ সাল, এই পাঁচ বছর ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি উষ্ণ বছর। যার জন্য দায়ী অধিক মাত্রায় কার্বণ নিঃসরণ।

কার্বণ নিঃসরণের পরিমাণ প্রতি বছর ২ শতাংশ বাড়ছে। ২০১৮ সালে কার্বণ নিঃসরণ হয়েছে ৩৭ বিলিয়ন টন। ফলে তাপমাত্রা বাড়ছে, সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ। গলছে বরফ, বাড়ছে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা। ভিটেছাড়া হচ্ছে মানুষ, বাড়ছে রোগ বালাই।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, পৃথিবী ও মানব সভ্যতাকে বাঁচাতে হলে কার্বণ নি:সরণ দ্রুততম সময়ের মধ্যে কমাতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর