channel 24

সর্বশেষ

  • টাঙ্গাইলে দশ বছরেও শেষ হয়নি বুড়িগঙ্গা নদী পুনরুদ্ধার প্রকল্প

  • আদালতের বিরুদ্ধে অঘোষিত যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে বিএনপি: কাদের

  • ষড়যন্ত্র করে খালেদা জিয়াকে জামিন দেয়া হচ্ছে না: ফখরুল

  • সাহিত্যে স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত রইজউদ্দিনকে নিয়ে সমালোচনার ঝড়

  • বুড়িগঙ্গা-তুরাগ রক্ষায় চলমান অভিযানের ফল দৃশ্যমান; তীরে স্থায়ী সীমানা পিলার

  • বরগুনায় এতিম শিশুদের ভুয়া তালিকা দেখিয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় সহজ জয় হাতছাড়া সালমা-জাহানারাদের

  • রাবি'তে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ১৩ শিক্ষার্থীর যৌন হয়রানির অভিযোগ

  • দাউদকান্দিতে বাস খাদে পড়ে নিহত ৩, আহত ২০

  • চট্টগ্রামে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ, আহত ৬

  • চট্টগ্রামে ট্রাফিক বক্সে বিস্ফোরণ, ২ পুলিশসহ আহত ৫

  • করোনা ভাইরাসে ইরানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২১০

  • দিল্লির বেশকিছু এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি

  • শনিবার নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি বাংলাদেশ নারী দল

  • ওয়ানডে সিরিজের জন্য প্রস্তুত সিলেট, বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের অনুশীলন

ফের অনিশ্চয়তার মুখে যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া

ফের অনিশ্চয়তার মুখে যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া

ফের অনিশ্চয়তার মুখে পড়লো যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া। সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাতে এমপিরা বরিস জনসনের আগাম নির্বাচন প্রস্তাব নাকচ করায়, আজ মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) থেকেই ৫ সপ্তাহের জন্য মূলতবি হয়ে গেছে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট। এ নিয়ে পার্লামেন্টে ৬ দফা প্রত্যাখাত হলো বরিসের প্রস্তাব। তবে, চুক্তিহীন ব্রেক্সিট ঠেকাতে বিল পাস হয় পার্লামেন্টের দুই কক্ষে। বিল অনুযায়ী, ১৯ অক্টোবরের মধ্যে ব্রেক্সিট কার্যকরে পার্লামেন্টে নতুন প্রস্তাব পাসে ব্যর্থ হলে, বিচ্ছেদ কার্যকরে ইইউর কাছে ৩ মাস সময় চেয়ে আবেদন জানাতে হবে সরকারকে।

ব্রেক্সিট ইস্যুতে ফের অনিশ্চয়তার মুখে যুক্তরাজ্য। সোমবার রাতে (৯ সেপ্টেম্বর) পার্লামেন্টে বরিসের আগাম নির্বাচনের প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেন ২৯৩ এমপি। কিন্তু প্রয়োজনীয় দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় বাতিল হয়ে যায় প্রস্তাবটি।

এ অবস্থায় মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) থেকে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত মূলতবি হয়ে গেলো ব্রিটিশ পার্লামেন্ট। প্রধানমন্ত্রী বরিস জানান, এই ৫ সপ্তাহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছানোর কাজে ব্যবহার করবে সরকার।

বরিস জনসন বলেন, 'বিরোধীরা জনগনের মতামত উপেক্ষা করে ব্রেক্সিট প্রক্রিয়াকে বিলম্বিত করতে চায়। সরকার আর ব্রেক্সিট কার্যকরে বিলম্ব করতে চায় না। এ পার্লামেন্ট আমার হাত বেধে দেয়ার যত চেষ্টাই করুক না কেন, জাতির স্বার্থে আমি একটি চুক্তিতে পৌছানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো। '

লেবার পার্টি নেতা জেরেমি করবিন বলেন, 'লেবার পার্টি নির্বাচনে আগ্রহী ছিলো, কিন্তু আমরা এটাও জানি যে, চুক্তিহীন ব্রেক্সিট কার্যকর করে আমরা আমাদের সম্প্রদায়ের জন্য চাকরি, সেবা কিংবা অধিকারগুলোকে ঝুকির মুখে ফেলতে চাই না।'

অবশ্য, বরিসের সিদ্ধান্তে ক্ষুদ্ধ ব্রিটিশ জনগন।

তারা বলেন, 'বরিসকে অনেক সময় জোকারের মতো লাগে। সবার মতো সেও অনেক ভুল করে। তবুও তাকেই সমর্থন দিবো।'

'দেশ চালানোর যোগ্যতা বরিসের নেই। সে নবাগত। কয়েকদিনের মধ্যেই সে যেসব বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা আমাদের অবাক করেছে। ভবিষ্যত নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কে আছি।'

যুক্তরাজ্যের আইন অনুযায়ী, চুক্তি হোক বা না হোক ৩১ অক্টোবরের মধ্যে ব্রিটেনের ইইউ ছাড়ার কথা। কিন্তু সোমবার, রাজকীয় সম্মতি পাওয়া নতুন আইন অনুযায়ী, ১৯ অক্টোবরের মধ্যে এমপিরা চুক্তিসহ কিংবা চুক্তিহীন ব্রেক্সিটের অনুমোদন না দিলে, প্রধানমন্ত্রীকে ২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারী পর্যন্ত ব্রেক্সিট পেছানের আবেদন জানাতে হবে।

এর আগে, ৪ সেপ্টেম্বর, হাউজ অব কমন্সে ১৫ অক্টোবর সাধারণ নির্বাচনের প্রস্তাব তোলেন জনসন, কিন্তু প্রয়োজনীয় সমর্থন না পাওয়ায় তা নাকচ হয়ে যায়।

নিউজটির ভিডিও-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর