channel 24

সর্বশেষ

  • ছাত্রলীগের এমন ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য লজ্জার: ভিপি নুর

  • জঙ্গিবাদ-মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: কাদের

  • ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট হলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায়...

  • পুনরুদ্ধারে কাজ করার অঙ্গীকার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের

  • আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের জন্য সতর্কবার্তা: শেখ সেলিম

  • ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এমন সিদ্ধান্ত: ঢাবি উপাচার্য

  • পুলিশের সেবা নিতে গিয়ে কেউ যেন হয়রানি না হয়: ডিএমপি কমিশনার

  • রংপুর-৩ উপনির্বাচনে প্রার্থিতা নিয়ে আওয়ামী লীগের সাথে...

  • আলোচনা হয়েছে, কালকের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত: রাঙ্গা

  • ৩ মাসের মধ্যে পুঁজিবাজারে নিবন্ধিত হতে হবে সব বিমা কোম্পানিকে...

  • অর্থমন্ত্রীর সাথে বৈঠক শেষে আইডিআরএ চেয়ারম্যান

  • ঋণ পুনঃতফসিলীকরণ নিয়ে টিআইবির বিবৃতিতে কোম্পানির ভাবমূর্তি...

  • ক্ষুণ্ন হওয়ায় প্রতিবাদ জানিয়েছে বেক্সিমকো গ্রুপ

ট্রাম্পের গ্রীনল্যান্ড কেনার ইচ্ছা হাস্যকর: ডেনিশ প্রধানমন্ত্রী

ট্রাম্পের গ্রীনল্যান্ড কেনার ইচ্ছা হাস্যকর: ডেনিশ প্রধানমন্ত্রী

গেলো সপ্তাহে বিশ্বের বৃহত্তম দ্বীপ গ্রীনল্যান্ড কেনার ইচ্ছা প্রকাশ করে, নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রতি বছর অন্তত ৭০ কোটি মার্কিন ডলারের আর্থিক ক্ষতির কারণে, দ্বীপটির মালিক ডেনমার্কের জন্য অর্থনৈতিক বোঝায় পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রাকৃতিক সম্পদ, সামরিক ও বাণিজ্যিকসহ নানা কারণেই এ দ্বীপটি কেনার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ট্রাম্প। তাঁর মন্তব্যকে হাস্যকর দাবি করেছেন ডেনিশ প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডরিকসন। আর দ্বীপটি বিক্রির জন্য নয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন গ্রিনল্যান্ডর প্রধানমন্ত্রী কিম কিয়েলসন।

নান্দনিক সৌন্দর্যের বিশ্বের বৃহত্তম দ্বীপ গ্রিনল্যান্ড। ২১ লাখ ৬৬ হাজার বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই দ্বীপটির অবস্থান, উত্তর ও আটলান্টিক মহাসাগরের মাঝে। ৫৮ হাজার মানুষের বসবাস এই দ্বীপের ৮০ শতাংশই বরফে ঢাকা।

ভৌগলিকভাবে উত্তর আমেরিকার কাছে হলেও, দ্বীপটির মালিকানা ডেনমার্কের। আর ইউরোপের সাথেই দ্বীপটির শত বছরের রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক মেলবন্ধন। ১৯৭৯ সাল থেকে দ্বীপটি স্বায়ত্বশাসিত।

তবে ট্রাম্পই প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট নন, যিনি গ্রিনল্যান্ড কিনতে চাইলেন। এর আগে ১৯৪৬ সালে দ্বীপটি কিনতে ডেনমার্ককে, ১০ কোটি মার্কিন ডলার প্রস্তাব দিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট হ্যারি এস ট্রুম্যান।

মাছ আহরণ ও পর্যটন গ্রিনল্যান্ডের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি হলেও, এখানে প্রাকৃতিক সম্পদের বিশাল মজুদ আছে বলে ধারণা করা হয়। বিশেষ করে আকরিক লোহা ও বিরল কয়েকটি খনিজ সম্পদের কারণে দিন দিন বাণিজ্যিক গুরুত্ব বাড়ছে দ্বীপটির।   

মার্কিন সেনাবাহিনীর জন্যও  সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে গ্রিনল্যান্ড। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকেই এক চুক্তির মাধ্যমে এখানে সামরিক উপস্থিতি রয়েছে যু্ক্তরাষ্ট্রের।

দ্বীপটির প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করেছে চীনও। ২০১৮ সালে গ্রীনল্যান্ডে নতুন বিমানবন্দর ও খনিজ সম্পদ উত্তোলন সুবিধা তৈরিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলো দেশিটি।

তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, গ্রিনল্যান্ড নিয়ে বিশ্বের পরাশক্তিগুলোর এই আগ্রহ, নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে অঞ্চলটিতে। খনিজসম্পদ আহরণ করতে গিয়ে পরিবেশ ধ্বংসেরও আশঙ্কা রয়েছে।

তবে গ্রিনল্যান্ড কেনার প্রস্তাবকে হাস্যকর বলে উড়িয়ে দিয়েছেন ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডরিকসন। এরপরই আগামী মাসে ডেনমার্ক সফর বাতিল করেছেন ট্রাম্প। আর গ্রিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী কিম কিয়েলসনও জানিয়ে দিয়েছেন, দ্বীপটি বিক্রির জন্য নয়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর