channel 24

সর্বশেষ

  • বিএনপি-জামায়াতের মদদেই ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা...

  • হামলার দায় খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না: প্রধানমন্ত্রী

  • আগস্ট মাস এলেই যেন অশনিসংকেত বয়ে নিয়ে আসে....

  • বিএনপি-জামায়াতের মদদ ছাড়া গ্রেনেড হামলা হতে পারে না...

  • বিচারপতি জয়নুল আবেদীনের তদন্ত রিপোর্ট ছিল ফরমায়েশি...

  • ২১ আগস্টের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • ২১২টি ছাগল ছিনতাইচেষ্টা মামলা: মোহাম্মদপুর থানা ছাত্রলীগের...

  • সভাপতি তান্নার আগাম জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল

  • বিএনপি ২১ আগস্টের মাধ্যমে রাজনীতিতে যে দেয়াল তৈরি করেছে তা...

  • এড়ানো সম্ভব নয়, হামলাকারীদের বিচার নিশ্চিত করা হবে: কাদের...

  • যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ১৯ জনের সাজা বৃদ্ধির আপিল করেনি রাষ্ট্রপক্ষ

  • জাহালম ইস্যুতে ১১ তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা...

  • ৩৩টি মামলারই পুনঃতদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুদক

  • পঞ্চগড় কারাগারে আইনজীবী পলাশ আত্মহত্যা করেছিলেন...

  • বিচার বিভাগীয় প্রতিবেদন হাইকোর্টে জমা...

  • সারা দেশের কারাগারে আসামিদের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা নেয়া হয়...

  • স্বরাষ্ট্র সচিব ও আইজি প্রিজন্সের কাছে জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

  • প্রত্যাবাসন নিয়ে ২য় দিনের মতো তালিকাভুক্ত রোহিঙ্গাদের মতামত নেয়া শুরু

  • ক্রিকেট: রাসেল ডমিঙ্গো ও চার্ল ল্যাঙ্গেভেল্টের কন্ডিশনিং ক্যাম্প পর্যবেক্ষণ...

  • সাফল্যের জন্য তরুণ ক্রিকেটারদের উন্নতি করতে হবে: ডমিঙ্গো

অমেঠীতে পরাজয় রাহুলের, অস্তাচলে কংগ্রেস

অমেঠীতে পরাজয় রাহুলের, অস্তাচলে কংগ্রেস

দলের দায়িত্ব নেওয়ার পরে লোকসভায় প্রথম বার নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে টক্করে ধরাশায়ী হলেন রাহুল গান্ধী। খাস অমেঠীর গাঁধী-গড়েও স্মৃতি ইরানি হারিয়ে দিলেন তাকে। কেরলের ওয়েনাড লোকসভা আসন থেকে রাহুল নিজে রেকর্ড চার লক্ষেরও বেশি ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারালেও সংসদে এ বারেও বিরোধী দলের মর্যাদা আদায় করে নিতে পারবে না তার দল। জিততে পারেননি কংগ্রেসের ৯ জন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীও।

এই ভরাডুবির পরে দলের মধ্যে থেকেই রাহুলের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। সে কারণে দুপুরে ফলাফলের ছবিটি কিছুটা স্পষ্ট হওয়ার পরে সোনিয়া গান্ধী ও প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরার সঙ্গে বৈঠক করেন কংগ্রেস সভাপতি। দলের এক নেতা জানান, সেখানেই সনিয়ার কাছে ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। যদিও সনিয়া তাঁকে বিষয়টি দলের ওয়ার্কিং কমিটির কাছে পেশ করার পরামর্শ দেন। হারের দায় ‘একশো শতাংশ’ নিজের কাঁধে নিয়ে সন্ধ্যায় সাংবাদিক বৈঠক করতে আসেন রাহুল। সেখানে অবশ্য তার ইস্তফা প্রসঙ্গে কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘‘ওয়ার্কিং কমিটি (শনিবার বসবে) সিদ্ধান্ত নেবে। এটি আমার আর ওয়ার্কিং কমিটির বিষয়।’’ পরে কংগ্রেস জানায়, রাহুল ইস্তফা দেননি।

দশ জনপথ থেকে একযোগেই সাংবাদিক বৈঠকে এসেছিলেন রাহুল-প্রিয়ঙ্কা। তবে প্রিয়ঙ্কা মঞ্চে না-উঠে পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন। রাহুল বলেন, ‘‘প্রচারের সময়েই বলেছি, জনতা মালিক। জনতা স্পষ্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে কারণে নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপি-এনডিএকে অভিনন্দন জানাই। ভোটের লড়াই ছিল দু’টি ভিন্ন আদর্শের। প্রচারেই বলেছি, আমার উপরে যে আক্রমণই হোক, আমি ভালবাসায় জবাব দেব। ভালবাসা কখনও হারে না।’’ প্রিয়ঙ্কাও বলেন, ‘‘জনগণের রায় মেনে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও বিজেপি কর্মীদের অভিনন্দন জানাচ্ছি।’’

মোদী এবং এনডিএ-কে টুইটারেও অভিনন্দন জানান রাহুল। যার উত্তরে মোদী রাহুলকে লেখেন, ‘‘আপনার শুভেচ্ছার জন্য ধন্যবাদ।’’ তবে রাহুল যতই পরাজয়ের দায় স্বীকার করুন, দলের মধ্যেই তার নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। কারণ, মোদী-ঝড়ের মধ্যে মুখ রেখেছে শুধু পঞ্জাব ও কেরল। মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, ছত্তীসগঢ়ে ক্ষমতায় এলেও সেখানে লোকসভা ভোটে ‘হাত’ উধাও। তা ছাড়া, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, কর্নাটকের মতো রাজ্য বিজেপি এর পর ছিনিয়ে নেবে কি না, তা নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, প্রশ্ন উঠেছে দেশে কংগ্রেসের ভবিষ্যৎ নিয়ে। দলের অনেকেই এখন দাবি করছেন, ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ স্লোগান বুমেরাং হয়েছে। ‘ন্যায়’ প্রকল্পের কথাও মানুষের কাছে সে ভাবে পৌঁছে দেওয়া যায়নি। জোট না করার খেসারত দিতে হয়েছে উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ ও দিল্লিতে। দলের ওই অংশের এ-ও দাবি, সংখ্যালঘু ‘তোষণ’ ও নরম হিন্দুত্বের মিশ্রণও হালে পানি পায়নি। আর সব কিছুর উপরে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে বিকল্প, শক্তিশালী নেতা হয়ে উঠতে পারেননি কংগ্রেস সভাপতি। আগেভাগে প্রিয়ঙ্কা-তাস খেলা উচিত হয়েছে কি না, প্রশ্ন উঠছে তা নিয়েও। 

এ দিন রাহুলকে প্রশ্ন করা হয়, যে সব মৌলিক বিষয় নিয়ে তিনি ভোটে গিয়েছেন, পাল্টা চালে সেগুলিকে কী ভাবে নস্যাৎ করে দিল বিজেপি? কংগ্রেসের কি তবে রণকৌশল বদলানোর সময় এসেছে? কংগ্রেস কোথায় ভুল করল? সরাসরি জবাব এড়িয়ে রাহুল বলেন, ‘‘আজ জনতার রায় এসেছে। ফলে আজ আমি কী বলছি, তার কোনও অর্থ নেই। তবে এখনও মনে করি, দেশের অনেক মানুষ কংগ্রেসের আদর্শে ভরসা রাখেন। আমি সকলকে ভরসা দিতে চাই, আপনারা ঘাবড়াবেন না, ভয় পাবেন না। আত্মবিশ্বাস হারাবেন না।’’ 

কংগ্রেস সূত্রের মতে, আগামী শনিবার মধ্যেই কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক ডেকে হারের কারণ বিশ্লেষণ হবে। গাঁধী পরিবারের ঘনিষ্ঠ নেতা রাজীব শুক্ল বলেন, ‘‘এই ফল আমাদের কাছে আশ্চর্যের বিষয়। ২০১৪ সালের প্রতিশ্রুতি পালন না করেও কী করে বিজেপির ভোট বাড়ল!’’ প্রিয়ঙ্কার প্রচারেও কি কোনো ছাপ পড়ল না? রাজীবের জবাব, ‘‘এ বারের ভোটে প্রিয়ঙ্কাকে কোনো দায়িত্ব তেমন দেওয়াও হয়নি। উত্তরপ্রদেশ বিধানসভার জন্য তিনি লড়বেন!’’ কিন্তু দিল্লি দূর অস্ত্ তো শুধু কথার কথা নয়!

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর