channel 24

সর্বশেষ

  • করোনার সম্মুখ যোদ্ধা গণমাধ্যমকর্মী ও পুলিশের ঈদ

  • বিষাদের ঈদ: নিম্নআয়ের অনেকের ঘরেই জ্বলেনি চুলা

  • একটু স্বস্তির খোঁজে শেষ বিকেলে রাজধানীর হাতিরঝিলে মানুষের ভিড়

  • করোনায় চিকিৎসক আর স্বাস্থ্যসেবীদের ঈদ কাটছে পরিবার ছাড়াই

  • হাঁটুপানিতে ঈদের নামাজ আদায় ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের

  • বৈশাখী টেলিভিশনের সিনিয়র সাংবাদিক অশোক চৌধুরী সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত

  • করোনা ভয় উপেক্ষা করেই সাবেক সংসদ সদস্য মকবুলের জানাজায় হাজারো মানুষ

  • খবর পেলেই করোনায় মৃতদের দাফন বা সৎকারে ছুটে যান কাউন্সিলর খোরশেদ

  • পবিত্র ঈদুল ফিতরে দুঃসময় কাটিয়ে সুদিন ফেরার প্রার্থনা

  • দেশে করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৯৭৫

  • কাজী নজরুল ইসলামের ১২১তম জন্মবার্ষিকী আজ

  • ঈদ আনন্দে বেদনার ছাপ; জামাতে মানা হয়নি শারীরিক দূরত্ব

  • ঈদেও কর্মব্যস্ত করোনার সম্মুখ যোদ্ধারা; স্বজনহারাদের হৃদয়ে বিষাদের সুর

  • ঈদের নামাজে সেজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু

  • বিশ্বজুড়ে অব্যাহত করোনায় মৃত্যুর মিছিল

ঘূর্ণিঝড় ফণী: লণ্ডভণ্ড ভুবনেশ্বর বিমানবন্দর

ঘূর্ণিঝড় ফণী: লণ্ডভণ্ড ভুবনেশ্বর বিমানবন্দর

ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে ভারতের ওডিশায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ জনে। রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে এখনও ছড়িয়ে আছে ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতের চিহ্ন। লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে ভুবনেশ্বর বিমানবন্দর। ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ ও উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে প্রশাসন। তবে, দুর্বল হয়ে পড়ায় তেমন ক্ষতি হয়নি পশ্চিমবঙ্গে।

ভারতে শুক্রবার আঘাত হানে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ফণী। তাণ্ডব চালায় ওডিশার উপকূলীয় এলাকাসহ আশপাশে।

হতাহতের সংখ্যা ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখছে কর্তৃপক্ষ। ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, বেশিরভাগ প্রাণহানি হয়েছে গাছের ডাল ভেঙ্গে পড়ে।

ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছে সমুদ্র উপকূলের মন্দিরের শহর 'পুরি'। বাতাসে ঘণ্টায় ২শ' কিলোমিটার গতিবেগে শহরটি আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় ফণী। এতে উড়ে যায়, অনেক বাড়িঘরের ছাদ, উপড়ে যায় গাছপালা। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে বিদ্যুৎ সংযোগ।

ওডিশার রাজধানী ভুবনেশ্বরে বিপুল পরিমাণ গাছপালা ভেঙ্গে বন্ধ হয়ে যায় রাস্তাঘাট। লণ্ডভণ্ড হয় ভুবনেশ্বর বিমানবন্দর। ভেঙে পড়ে ট্রেনের শিডিউল। ট্রেন স্টেশনগুলো পরিণত হয় অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে।        

তবে তান্ডবের যে রূপ ওডিশা দেখেছে তার ধারেকাছেও ছিল না পশ্চিমবঙ্গ। শুক্রবার রাতে রাজ্যটিতে ঢুকে শক্তি হারায় ফণী। মেদিনীপুর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণার কিছু অংশে কয়েকটি ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া ছাড়া তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি।

বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি রুখতে তৎপর ছিল ভারতের সামরিক বাহিনী, কোস্টগার্ড-সহ দুর্যোগ ব্যব্স্থাপনা সংস্থাগুলো। সরিয়ে নেয়া হয়েছিল উপকূলের ৪৫ হাজার মানুষকে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর