channel 24

সর্বশেষ

  • লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির দায়িত্ব ইসির: ওবায়দুল কাদের...

  • ভালো প্রার্থী পেলে মহাজোটের অন্য দলকে আসন ছাড়বে আ.লীগ

  • মুক্তিযুদ্ধের শক্তি ঐক্যবদ্ধ, বিজয় সুনিশ্চিত: নাসিম

  • বর্তমান সরকারের ক্ষমতায় থাকা অসাংবিধানিক: ড. কামাল

  • সরকার ইচ্ছামতো বিচার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করছে: ফখরুল

  • নির্বাচন বানচালের চেষ্টা করলে জাতি তাদের ক্ষমা করবে না: বি. চৌধুরী

  • প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন চায় না ইসি, নিরপেক্ষতার প্রশ্নে ছাড় নয়: কমিশনার শাহাদাত

  • কাল শুরু পিইসি ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা; থাকছে না এমসিকিউ

জানুয়ারিতে যাত্রা শুরু কংগ্রেসের

জানুয়ারিতে যাত্রা শুরু কংগ্রেসের

জানুয়ারিতে যাত্রা শুরু হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত কংগ্রেসের। বলা হচ্ছে, প্রতিনিধি পরিষদের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়ায়, আগামী দিনে অভিবাসন, স্বাস্থ্যসেবাসহ নানা ইস্যুতেই ট্রাম্পের অনেক সিদ্ধান্তেরই রাশ টেনে ধরতে পারবেন, ডেমোক্র্যাটরা। অন্যদিকে, মার্কিন কংগ্রেসে ফিলিস্তিনি কন্যার জয় ঘিরে নতুন মেরুকরণ শুরু হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র-ফিলিস্তিন সম্পর্কে।

স্বাধীনতার দাবিতে, শত বছরের এ সংগ্রাম ফিলিস্তিনিদের।

জেরুজালেমকে ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েলের রাজধানীর স্বীকৃতি, কিংবা জাতিসংঘের ফিলিস্তিুনি শরণার্থী সংস্থায় মার্কিন তহবিল বন্ধ। ট্রাম্প প্রশাসনের এমন বিমাতাসুলভ আচরণে যখন যারপরনাই ক্ষুদ্ধ ফিলিস্তিনিরা, ঠিক সেসময়ই যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ইতিহাস গড়লেন  ফিলিস্তিনি কন্যা রাশিদা তালিব।    

প্রথম হতে কিংবা ইতিহাস গড়তে এই লড়াইয়ে নামিনি। আমরা অনুভব করেছি যে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ, স্বাস্থ্যসেবা বিলের মতো গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে বিভাজন তৈরি হচ্ছে।

পূর্ব জেরুজালেমের বেইত হেনিনার বাসিন্দা ছিলেন, রাশিদার বাবা। প্রথমে ফিলিস্তিনি ছেড়ে ব্রাজিল, পরে সপরিবারে চলে আসেন যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানের ডেট্রয়েটে। ৪২ বছর বয়সী রাশিদার জয়ে আনন্দে ভাসছে, তার নিজ গ্রাম ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর।

রাশিদা সবসময়ই নিজেকে ফিলিস্তিনি আরব পরিচয় দিয়ে গর্ব বোধ করেন। কংগ্রেসে সে ফিলিস্তিনি ঐতিহ্যবাহী পোশাক পড়বে, এমনকি কোরআন নিয়ে শপথ পড়ার কথাও বলেছে।

মার্কিন কংগ্রেসে মুসলিম ফিলিস্তিনি নারীর এ জয় অনেক তাৎপর্যপূর্ণ। এটা কেবল ডেমোক্রেটদেরই নয়, পুরো যুক্তরাষ্ট্রের ভবিষ্যতের জন্যই একটি বার্তা বহণ করছে।

শুধু ফিলিস্তিনিরাই নয়, খুশির বার্তা বইছে সোমালিয়াতেও। কারন গৃহযুদ্ধের কারণে সোমালিয়া থেকে পালিয়ে আসা মুসলিম নারী ইলহান ওমরও পা রাখলেন, মার্কিন কংগ্রেসে।

কংগ্রেসে প্রথমবারের মতো দুই আদিবাসী নারী ও মুসলিম অভিবাসী নারীর জয়কে ট্রাম্পের জন্য অশনী সংকেত বলছেন বিশ্লেষকরা।

ট্রাম্প নিজেই এখন কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়লেন। আয়কর বিবরণী, রুশ-মার্কিন সর্ম্পক, এমনকি তদন্তকাজের ক্ষেত্রে মুয়েলার এখন অনেকটা স্বাচ্ছন্দেই কাজ চালাতে পারবেন, কারন প্রতিনিধি পরিষদের সমর্থন পাবেন তিনি।

প্রতিনিধি পরিষদের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়াকে কাজে লাগিয়ে, ২০২০ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়লাভের আশায় বুক বেঁধেছেন ডেমোক্রেটরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর