channel 24

ব্রেকিং নিউজ

  • পদ্মা সেতুর মূল অংশে ৭৩ শতাংশ কাজের অগ্রগতি...

  • নদী শাসন ৫০ ও সার্বিক অগ্রগতি ৬৩ শতাংশ: সেতুমন্ত্রী

  • ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে সাংবাদিকদের...

  • উদ্বেগের বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছে সরকার: তথ্যমন্ত্রী

  • হাতিরঝিল থানার নাশকতা মামলায় মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির...

  • শীর্ষ ৫ নেতার জামিনের বিরুদ্ধে আপিল শুনানি বৃহস্পতি

  • তিন সন্তানের জননীকে গণধর্ষনের বিচার দাবিতে...

  • নোয়াখালীর কবিরহাটে হাজারো মানুষের মানববন্ধন

  • সৌদি থেকে দেশে ফিরছেন আরও ৮০ নির্যাতিতা নারী

  • হাতিরঝিল থানার নাশকতা মামলায় মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির...

খাশোগি হত্যায় প্রিন্স মোহাম্মদকে বাঁচাতে উঠেপড়ে লেগেছে সৌদি সরকার

খাশোগি হত্যায় প্রিন্স মোহাম্মদকে বাঁচাতে উঠেপড়ে লেগেছে সৌদি সরকার

যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে না জানিয়েই, হত্যা করা হয় সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে। যা অন্যতম বড় ভুল। এমনটা দাবি করেছে রিয়াদ। অবশ্য, সৌদির ব্যাখা প্রত্যাখান করে, দেশটির বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপের পাশাপাশি, অস্ত্র চুক্তি থেকে ওয়াশিংটনকে বেরিয়ে যাওয়ার দাবি তুলেছেন, মার্কিন কংগ্রেসম্যানরা। তুরস্ক বলছে, দ্রুতই হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরা হবে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বলছে, ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে  জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে খাশোগির মুখে কাপড় পুড়ে দেন, যুবরাজ মোহাম্মদের দেহরক্ষি মাহের আবদুল আজিজ মুতরেব। এতেই দমবন্ধ হয়ে মারা যান তিনি।

অবশ্য এ হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করলেও যুবরাজ মোহাম্মদকে বাচাতে উঠে পড়ে লেগেছে সৌদি সরকার। সৌদি কর্তৃপক্ষের দাবি খাশোগিকে হত্যার বিষয়ে গোয়েন্দা সংস্থার উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও কিছু জানতেন না। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দাবি, যুবরাজের অজ্ঞাতসারেই ঘটেছে হত্যাকাণ্ড।

যারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তারা অবশ্যই নিজেদের ক্ষমতার সীমা লঙ্ঘন করেছে। অবশ্যই এটা বড় ধরনের ভুল। বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। অপ্রত্যাশিতভাবে এটি ঘটেছে। এটা যে কোন সরকারের জন্যই অগ্রহণযোগ্য। যারা এর পেছনে জড়িত তাদের অবশ্যই শাস্তি দেয়া হবে।

সৌদি ব্যাখা প্রত্যাখান করে দেশটির বিরুদ্ধে অবরোধ এবং অস্ত্র চুক্তি থেকে ওয়াশিংটনকে বেরিয়ে যাওয়ার দাবি জানিয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসম্যানরা।

যুবরাজ মোহাম্মদের নির্দেশ ছাড়া এমন হত্যাকাণ্ড হতে পারে না। ওয়াশিংটনের উচিত সৌদির সঙ্গে অস্ত্র চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়া। দেশটিকে নিরাপত্তা সরঞ্জাম দেয়াও স্থগিত করা উচিত। সেইসঙ্গে যারা এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত ট্রাম্প প্রশাসনের।

তবে খাশোগির মরদেহ কোথায় রয়েছে, এ বিষয়ে কিছুই স্পষ্ট করেনি সৌদি সরকার। অবশ্য, তুরস্ক বলছে, দ্রুতই হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরা হবে।

এ হত্যাকাণ্ড আমার দেশের ওপরই হামলার শামিল। কেন ১৫ সৌদি নাগরিক তুরস্কে আসলো? কেন ১৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হলো।  সব কিছুই খোলাখুলি তুলে ধরা হবে।  

সোমবার খাশোগির ছেলে শাহ জামালকে ফোন করে শোক জানিয়েছেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর