channel 24

সর্বশেষ

  • সরকারের পতন ঘটাতে দুর্নীতিবাজদের ঐক্য হয়েছে...

  • ইন্টারনেটে অপপ্রচার রোধ ও শিশুদের সুরক্ষায় ডিজিটাল আইন...

  • যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

  • জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া শেষ পর্যন্ত টিকবে না: ওবায়দুল কাদের

  • মালদ্বীপের নির্বাচনে জয়ের দাবি বিরোধী প্রার্থী ইব্রাহিম সলিহর

  • এশিয়া কাপ: আফগানিস্তানকে ৩ রানে হারিয়ে...

  • ফাইনালের সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রাখলো বাংলাদেশ...

  • স্কোর: বাংলাদেশ ২৪৯/৭, আফগানিস্তান ২৪৬/৭...

  • মোস্তাফিজের ওভার ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট: মাহমুদুল্লাহ

অটল বিহারি বাজপেয়ীর শেষকৃত্য আজ

অটল বিহারি বাজপেয়ীর শেষকৃত্য আজ

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ীর শেষকৃত্য আজ। দিল্লিতে রাষ্ট্রীয় স্মৃতি স্থলে স্থানীয় সময় বিকেল চারটায় এটি অনুষ্ঠিত হবে। জানিয়েছেন, বিজেপি প্রধান অমিত শাহ। এদিকে, বাজপেয়ীর মৃত্যুতে ৭ দিনের শোক ঘোষণা করেছে, ভারত। দেশটির অনেক রাজ্যেই আজ সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ নেতার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকার।

রাজনীতি আর কবিতা পরিপূরক হয়ে উঠেছিলো তার জীবনে। সংসদ কিংবা কাগজ সবখানেই শব্দখেলায় অনন্য। শাণিত যুক্তি ও অসামান্য কথনে একজন পুরোদস্তুর রাজনীতিবিদ।
বিজেপি নেতা হয়েও অন্যদলগুলোর সমর্থন নিয়ে, ভারতের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী।
অটল বিহারি বাজপেয়ীর জন্ম ১৯২৪ সালের ২৫ ডিসেম্বর। ভারতের গোয়ালিয়রে। বাবা কৃষ্ণবিহারীও ছিলেন কবি। সেই নেশাই প্রবাহিত হয় প্রজন্মের ধমনীতে।
রাজনীতিটা ছিলো মজ্জাগত। ছাত্র থাকতেই যুক্ত হন আর্যসমাজে। ১৯৩৯এ যোগ দেন, আরএসএস-এ। ৪২ এ ভারত ছাড়ো আন্দোলনের জন্য ২৩ দিন কারাবাসও করেন।
৫১ তে যোগ দেন ভারতীয় জনসংঘে। ৫৭ সালে সে দলের হয়েই লোকসভায় জেতেন।
৬৮ সালে ভারতীয় জনসংঘের সর্বভারতীয় সভাপতি হন, অটল বিহারি। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের পক্ষে তার অবস্থান ছিলো সুদৃঢ়। এ জন্য সম্মাননাও পান বাংলাদেশ থেকে।
৯৬ এর নির্বাচনে প্রথমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী হন বাজপেয়ী। ৯৮ সালে দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন।
১৯৯৯। নয়াদিল্লি-ইসলামাবাদের মধ্যে সুসর্ম্পক স্থাপনে, ঐতিহাসিক বাসযাত্রার সূচনা করেন বাজপেয়ী। ঐ বছরই কারগিল যুদ্ধে জড়ায় ভারত-পাকিস্তান।
নব্বইয়ের দশকে তার শাসনামলেই পোখরাণে পরমাণু বিস্ফোরণ ঘটায় ভারত।
২০০৫ সালে রাজনীতি থেকে অবসর নেন। একটি স্ট্রোকের পর ২০০৯ সালে খানিক স্মৃতি লোপ পায়। হারান বাকশক্তি। 
সহিষ্ণুতা আর ধর্ম নিরপেক্ষতাই ছিলো এ ভারতরত্নের রাজনীতির মূল আদর্শ।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর