channel 24

সর্বশেষ

  • শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন করতে পারলে দেশে...

  • ব্যাপকভাবে বিনিয়োগ আসবে: ধামরাই পথসভায় শেখ হাসিনা

  • এবার নির্বাচনে নতুন কৌশল নেয়া হবে: সিইসি...

  • সহিংসতায় তৃতীয় শক্তির ইন্ধন খতিয়ে দেখার নির্দেশ...

  • কারও বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা না করার অনুরোধ

  • ভোটের দিন শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকবে ঐক্যফ্রন্ট: মান্না

  • এখনই সেনা মোতায়েন চায় বিএনপি: আলাল

  • প্রার্থিতা বাতিল: শুনানির জন্য তৃতীয় বেঞ্চের ওপর...

  • খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের অনাস্থা; শুনানি সোমবার পর্যন্ত মুলতুবি...

  • মামলা ঝুলিয়ে রাখার জন্যই এ অনাস্থা: অ্যাটর্নি জেনারেল

  • মোবাইল কলড্রপে চার্জ কাটার ওপর হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা...

  • এখন থেকে কলরেট বাড়ানো যাবে না: হাইকোর্ট

  • গাজীপুর-৫ আসনে বিএনপি প্রার্থী মিলন আটক, দাবি পরিবারের

  • নোয়াখালীতে বিএনপি প্রার্থীর ফজলুল আজিমের ৭টি গাড়ি ভাঙচুর; আহত ৫০

যেভাবে কনডম তৈরি হয়

যেভাবে কনডম তৈরি হয়

দেশে প্রতিবছর এইচআইভি বা এইডস আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে বাড়ছে এ রোগে মৃত্যুর সংখ্যাও।

এইডসের ঝুঁকি মোকাবেলা করতে সিরিঞ্জের মাধ্যমে মাদক গ্রহণ বন্ধ ও বিদেশ ফেরত নাগরিকদের ওপর গুরুত্ব দেয়ার কথা বলছেন সংশ্লিষ্টরা।
 
ইউনিসেফের তথ্য বলছে, ২০১৮ থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে এইডস-সম্পর্কিত রোগে আক্রান্ত প্রায় ৩ লাখ ৬০ হাজার কিশোর-কিশোরীর মৃত্যু হতে পারে। যা গড় হিসাবে প্রতি দিন ৭৬ জন।

জনসংখ্যা বৃদ্ধির বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যে আরও ২ লাখ ৭০ হাজার কিশোর কিশোরীরা এইচআইভিতে আক্রান্ত হতে পারে।

অপরদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য মতে, বিশ্বে প্রায় ৩৪ মিলিয়ন মানুষ এইডসে আক্রান্ত এবং মারা যাওয়ার স্যখ্যা ৩৫ মিলিয়ন। ভয়াবহ এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের অবস্থান কোন পর্যায়ে এবার সেদিকে নজর দিব।

সরকারি হিসাবে, ২০১৭ সাল পর্যন্ত দেশে এইচআইভি শনাক্ত হয়েছে ৫ হাজার ৫৮৬ জন, মৃত্যু হয়েছে ৯২৪ জনের। আক্রান্ত রোগীর অনুমিত সংখ্যা ১৩ হাজার। প্রায় ৭ হাজার ৫০০ রোগী এখনও শনাক্ত হয়নি। ২০১৬ সালে শনাক্ত হয়েছিল ৪ হাজার ৭২১ জন। মৃত্যু হয় ৫৭৮ জনের।

কনডমকে এইডসের মতো ভয়ঙ্কর রোগ প্রতিরোধের অন্যতম মাধ্যম মনে করা হয়। সরেজমিনে দেখা যায়, টাঙ্গাইলের মধুপুরের পীরগাছা এলাকায় রাবার বাগান থেকে সংগ্রহ করা হয় কনডমের কাঁচামাল।

যেটি করে দেশের একমাত্র সরকারি কোম্পানী এসেনন্সিয়াল ড্রাগস। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রযুক্তির মাধ্যমে এই কস প্রক্রিয়াজাত চলে কারখানায়।  মারাত্মক অ্যমুনিয়াযুক্ত হওয়ায় প্রক্রিয়াজাতের সময় অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়।

নির্দিষ্ট সময় সুরক্ষিত রাখার পর খুলনায় নতুন কারখানায় পাঠানো হয়। যেখানে এসেনসিয়াল ল্যাটেক্স কারখানায় কনডমের মূল উৎপাদন হয়।

কারখানার একাধিক কর্মকর্তার সাথে কথা বলে জানা গেছে, গুনগতমান বজায় রেখেই এখানে নিরাপদ ব্র্যান্ডের কনডম উৎপাদন করা হয়। কনডম উৎপাদনের প্রতিটা ধাপে সতর্কতার সাথে কাজ করতে হয়।

ধাপে ধাপে উৎপাদনের প্রতিটি পথ শেষ হওয়ার পরই দৃশ্যমান হয় দেশের একমাত্র সরকারি কনডম নিরাপদ। পরিবার পরিকল্পনা সূত্র বলছে, দেশে কনডমের মাসিক চাহিদা ১ কোটি ২০ লাখ।

যে চাহিদার প্রায় পুরোটাই পূরণ করছে সরকারি কোম্পানী এসেনসিয়াল ড্রাগস। এইডস প্রতিরোধের অন্যতম ভূমিকা পালন করে কনডম।

চাহিদা পূরণের কথা বললেও একটি সূত্র বলছে, কনডমের বাজারে এসএমসি’র বড় অবদান রয়েছে। এর বাইরে দেশের বাজারে চোরাইপথেও কনডম প্রবেশ করছে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্য খবর