channel 24

সর্বশেষ

  • নয়াপল্টনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া...

  • ইটপাটকেল-টিয়ারশেল নিক্ষেপ; পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর ও আগুন

'মাংস রান্না ও খাওয়া সতর্কতায় স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে দূরে থাকা সম্ভব'

 'মাংস রান্না ও খাওয়া সতর্কতায় স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে দূরে থাকা সম্ভব'

হোক না কোরবানীর মাংস? তাতে কি? খেতে হবে পরিমিত পরিমাণে। লাল মাংসের অতিরিক্ত চর্বি হৃদরোগ, ডায়াবেটিসসহ নানা রোগের দরজা খুলে দিতে পারে। চিকিৎসকদের পরামর্শ কোরবানি ঈদে মাংস রান্না, খাওয়া ও সংরক্ষণে সতর্কতা অবলম্বন করলে স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে দূরে থাকা সম্ভব।

কোরবানি ঈদের চিরচেনা দৃশ্য। চলছে মাংস কাটাকাটি, বিলিবন্টন। এরপর এই মাংস চড়বে হাঁড়িতে। রান্না হবে গরু-খাসির মুখোরোচক নানা পদ। সাধারণত সারা বছরের চেয়ে কোরবানি ঈদের এই সময়টায় প্রায় প্রতিটি মুসলিম ঘরে মাংস খাওয়া বেড়ে যায়।

অনেকেই মানেন না খাওয়ার পরিমিতিবোধও। তাই তৈরি হয় নানা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি।
চিকিৎসক আর পুষ্টিবিদরা বলছেন, লাল মাংস হৃদরোগ, কোলোর‍্যাক্টাল ক্যান্সার, ডায়াবেটিসসহ নানা রোগের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত। এই মাংস খাওয়ার ক্ষেত্রে পরিমিতি খুব জরুরি। তা না হলে ঈদ আনন্দ মাটি করে দিতে পারে স্বাস্থ্য সমস্যা।
এক্ষেত্রে মাংস কাটা ও রান্নার সময় একটু সতর্ক হলেই অতিরিক্ত চর্বি বাদ দেয়া যায়। বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন রান্নায় বিশেষ পদ্ধতি মেনে চলার। একইসাথে সংরক্ষণ পদ্ধতিতেও নেয়া দরকার বাড়তি সতর্কতা।
বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ কোরবানি ঈদে প্রতি বেলায় মাংস না খাওয়ায়। দিনে একবেলা মাংস খেলে প্রোটিনের চাহিদাও যেমন পূরণ হবে তেমনি দূরে থাকা যাবে নানা রোগের ঝুঁকি থেকে।

 

সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্য খবর