channel 24

সর্বশেষ

  • বনানী কবরস্থানে শ্রীলঙ্কায় নিহত শিশু জায়ানের দাফন সম্পন্ন

  • লন্ডনে অর্থপাচার মামলায় তারেক রহমানের বন্ধু ব্যবসায়ী...

  • গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের ৭ বছরের কারাদণ্ড; ১২ কোটি টাকা জরিমানা

  • শ্রীলঙ্কা ট্র্যাজেডি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৫৯; আটক ৫৮...

  • নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হবে: প্রেসিডেন্ট...

  • ক্রাইস্টচার্চের ঘটনার প্রতিশোধ নিতেই শ্রীলঙ্কায় হামলা...

  • এমন কোনো গোয়েন্দা তথ্য ছিল না: নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

  • মানবতাবিরোধী অপরাধ: নেত্রকোণার সোহরাব ফকিরসহ ২ জনের মৃত্যুদণ্ড..

  • একাত্তরের গণহত্যার স্বীকৃতি দিতে বিশ্বসম্প্রদায়ের প্রতি...

  • আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আহবান

  • পাবনায় ৩ পুলিশ হত্যা মামলায় ৮ জনের যাবজ্জীবন; খালাস ৩

  • রাজধানীর নিউমার্কেট মোড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত...

  • সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের আজও অবস্থান; যান চলাচল বন্ধ

  • চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া যত্রতত্র অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধ চেয়ে রিট

প্রায় বিনামূল্যে মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে আসছে আজিমপুর মাতৃসদন

প্রায় বিনামূল্যে মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে আসছে আজিমপুর মাতৃসদন

দেশে কম খরচে মানসম্মত সরকারি স্বাস্থ্যসেবা এখনও একটা বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু আজিমপুর মাতৃসদন ও শিশু হাসপাতাল এখানে ব্যতিক্রম। প্রায় বিনামূল্যে প্রতিদিন অসংখ্য মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে আসছে হাসপাতালটি। অর্জন করেছে জনগণের আস্থা। তবে আইসিইউ সেবাসহ জনবল বাড়ানোর  দাবি জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালে পা দিতেই শোনা যাবে নানা বয়সী শিশুর কোলাহল। দেখা যাবে মায়েদের পদচারণা। আজিমপুর মাতৃসদন ও শিশুস্বাস্থ্য হাসপাতালে সারা দিনের চিত্র এমনই।

ঢাকার পুরাতন অংশে বিশাল জনগোষ্ঠীর কাছে আস্থার হাসপাতাল এই আজিমপুর মাতৃসদন। বিশেষত মধ্য ও নিম্ন আয়ের মানুষদের কাছে। ব্রিটিশ শাসনামলে ২০টি শয্যা নিয়ে পথচলা শুরু করা এই হাসপাতাল এখন ১৭৩ শয্যার। ২০০০ সালে জাপান সরকারের সহায়তায় পুরো ঢেলে সাজানো হয় হাসপাতালটি। বহির্বিভাগে মাত্র পাঁচ টাকায় মেলে চিকিৎসকের পরামর্শ।

এছাড়া বিনামূল্যে সন্তান প্রসব সুবিধা থেকে শুরু করে, ওষুধ ও পরীক্ষা-নীরিক্ষাও করাতে পারেন রোগীরা। তাই শুধু আজিমপুর নয়, রাজধানীর অদূরে কেরাণীগঞ্জ, নবাবগঞ্জ থেকেও চিকিৎসা নিতে আসেন অনেকে।

মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবার পাশাপাশি চিকিৎসক, নার্স, মিডওয়াফদের প্রশিক্ষণও দিয়ে থাকে হাসপাতালটি।

হাসপাতালটির পরিচালক জানালেন, জনবল বাড়ানোসহ কিছু সুবিধা যোগ করা গেলে, আরও মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করা সম্ভব।

১৯৯৭ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফ শিশু বান্ধব হাসপাতালের স্বীকৃতি পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্বাস্থ্য খবর