channel 24

সর্বশেষ

  • জয়পুরহাটে জরাজীর্ণ বেইলি ব্রিজ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন; যেকোনো সময় বড় দুর্ঘটনার শংকা

  • বারবার ট্রেন দুর্ঘটনা নিয়ে উদ্বেগে যাত্রীরা; রেলপথ নিরাপদ করতে কর্তৃপক্ষের কার্যকর উদ্যোগের দাবি

  • বাজারে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম নিয়ে একে অপরকে দুষছেন আমদানিকারক ও পাইকাররা

  • চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় গ্যাস লাইনে বিস্ফোরণে নিহত ৭

দুই বাংলায় জনপ্রিয় ছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক

দুই বাংলায় জনপ্রিয় ছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক

শুধু এপার বাংলাতেই নয় ওপার বাংলায়ও অভিনয়ের দ্যুতি ছড়িয়েছেন রাজ্জাক। দেশীয় সিনেমায় যখন অশ্লীলতা ভর করে তখন ঢালিউড থেকে টালিউডে পা রাখেন নায়ক রাজ। টানা পাঁচ বছর অভিনয় করেন ত্রিশের বেশি ছবিতে।

ওপার বাংলায় জন্ম নিলেও এপার বাংলার রুপালী রঙেই তিনি হয়ে উঠেছিলেন নায়করাজ। কলকাতার এক অনুষ্ঠানে অভিনয় জীবন শুরু করেন 'বিদ্রোহী' নাটকে। এরপর যখন কলেজ জীবন তখন 'রতন লাল বাঙ্গালি' সিনেমা দিয়ে পা রাখেন টালিগঞ্জে।

সময়টা যদিও ছিলো উত্তম ও সৌমিত্রময় তবুও সেই তারকাখচিত সময়ে 'পঙ্কতিলক' ও 'শিলালিপি' নামে কলকাতার আরও দুইটি সিনেমায় নাম লেখান তিনি।

এরপর ৬৪ সালে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গায় সপরিবারে বাংলাদেশে পাড়ি জমালেও দীর্ঘ চার দশক পর ফের পশ্চিমবঙ্গের পর্দায় দেখা মেলে নায়ক রাজের। মুক্তি পায় তার পরিচালিত দ্বিতীয় ছবি 'বাবা কেন চাকর'। দুই বাংলায় তুমুল জনপ্রিয়তা পায় ছবিটি। ফলে প্রথম জীবনের মতো এবার আর হোঁচট খেতে হয়নি তাকে।

বানিজ্যিক সফলতা পাওয়া ছবিটির মতো 'অন্নদাতা', 'জন্মদাতা' সিনেমাগুলোতেও প্রভাবশালী গৃহকর্তার চরিত্রেই দেখা গেছে রাজ্জাককে। এর মধ্যে 'হিরো' ও 'এরই নাম প্রেম' ছবিগুলো ছিলো একটু ব্যতিক্রম।

টালিগঞ্জের রূপালি দুনিয়ায় নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা না পেলেও অভিনয়শিল্পী হিসেবে পেয়েছিলেন জনপ্রিয়তা। চরিত্রপ্রধান সিনেমায় অভিনয় স্বকীয়তার মধ্য দিয়েই নিজেকে তিনি মেলে ধরেছিলেন চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্যে।

তাইতো শুধু এপার বাংলা নয় ওপার বাংলাতেও নায়করাজের রাজতিলক থেকে যাবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিনোদন খবর