channel 24

সর্বশেষ

  • করোনাভাইরাসের কারণে চীনে বন্ধ কাঁকড়া রপ্তানি; বিপাকে চাষী ও ব্যবসায়ীরা

  • আগামী মাস থেকে যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি হবে বাংলাদেশে তৈরি স্মার্টফোন

  • হরিণের চামড়ার ওপর সৌম্য সরকারের বিয়ের আশীর্বাদ!

  • চট্টগ্রাম সিটিতে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন

  • ভারতের কাছে হারলো বাংলাদেশ নারী দল

  • মধ্যপ্রাচ্যেও ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস, ইরানে প্রাণ গেছে ১২ জনের

  • ট্রাক ড্রাইভারকে মারধর ও চাঁদাবাজির অভিযোগে ঢাবির ২ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

  • দিল্লিতে নাগরিকত্ব আইন বিরোধী সহিংস বিক্ষোভ, পুলিশ সদস্য নিহত

  • চট্টগ্রামে বিদ্যুৎকেন্দ্র করার পরিকল্পনা আছে: রাশিয়ান রাষ্ট্রদূত

  • চট্টগ্রাম সিটিতে সবধরনের প্রচারণা সামগ্রী অপসারণের নির্দেশ

  • চট্টগ্রাম সিটিতে বিএনপির কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন চূড়ান্ত

  • শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে দূরে ঠেলে স্বপ্নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন কুড়িগ্রামের ফারজানা

  • সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় যাচ্ছে না ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

  • পাকিস্তানের সঙ্গে সর্ম্পক উন্নয়নে ভারতের প্রতি আহ্বান ট্রাম্পের

  • অসন্তোষ মা ও মামার, সামিরার দাবি সত্যের জয় হয়েছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ৭ মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন দেড় শতাধিক। এমন তথ্য দিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন বিষয়ক মামলা। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য বলছে, গত সাত মাসে ধর্ষণের অভিযোগে হাসপাতালে এসেছেন শিশু, কিশোরী ও প্রতিবন্ধীসহ ১৬৭ জন। কিন্তু মেডিকেল পরীক্ষায় মাত্র পাঁচ ভাগের শরীতে ধর্ষণের আলামত মিলেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন মো: শাহ আলম বলেন, সময় মতো হাসপাতালে না আসায় অনেক ক্ষেত্রে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। এতে করে ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে প্রকৃত অপরাধীরা। এছাড়া প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি না হওয়ায় এ ধরনের অপরাধ বাড়ছে বলেও মনে করেন তিনি।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মামলা করেও প্রতিকার পাচ্ছেন না তারা। উল্টো নানা সময়ে তাদেরকে হুমকি ধমকি দিচ্ছে অভিযুক্তরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর বলছেন, অনেক সময় প্রয়োজনীয় সাক্ষীর অভাবে এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় না। ফলে জেলায় বাড়ছে নারীর প্রতি সহিংসতা।

জেলায় নারী বা শিশু নির্যাতন বাড়ার কথা স্বীকার করে পুলিশ সুপার মো: আনিসুর রহমান বলেন, এসব ঘটনায় প্রশাসন সজাগ রয়েছে। অভিযোগ পাওয়া মাত্রই গুরুত্বসহকারে অভিযুক্তকে চিন্হিত করার ক্ষেত্রে প্রশাসন সর্বদা সচেষ্ট বলে জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপার।  

তবে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের অনেক মামলাই হয় ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিরোধের জেরে। ফলে প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি অনেকের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর