channel 24

সর্বশেষ

  • অবশেষে বিয়ের পিঁড়িতে সাবিলা নুর

  • বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহি রাজমনী সিনেমা হল

  • মেট্রোরেলের দুটি রুট নির্মাণে প্রায় ৯৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ

  • বিশ্বব্যাংক ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের বার্ষিক সভা শুরু

  • আবরার হত্যার আসামি নাজমুস সাদাত দিনাজপুরে গ্রেপ্তার

  • জীবনযুদ্ধে এক সফল নারী লালমনিরহাটের আসমা হোসেন

  • আরও ৩০টি মানহীন পণ্য পেয়েছে বিএসটিআই

  • গুটিকয়েক ছাত্র নেতার ভুলের দায় সরকার নেবে না: কাদের

  • পুনরায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের কোচ হলেন ফিল সিমন্স

  • মুখোমুখি অবস্থানে তুর্কি ও আসাদ বাহিনী

  • আইসিসির সদস্যপদ ফিরে পেয়েছে জিম্বাবুয়ে ও নেপাল

  • বিশ্বকাপ বাছাইয়ে আজ ভারতের মুখোমুখি বাংলাদেশ

  • ঘূর্ণিঝড় হাগিবিসের আঘাতে জাপানে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫৮

  • বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির সঙ্গে সাবেক চেয়ারম্যানের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পায়নি দুদক

  • বাংলাদেশে এখন ভিন্নমত জানালে খুন হতে হয়: মওদুদ

অবশেষে সীমান্ত পিলার থেকে মুঁছে যাচ্ছে পাকিস্তানের নাম

অবশেষে সীমান্ত পিলার থেকে মুঁছে যাচ্ছে পাকিস্তানের নাম

অবশেষে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের সীমানা পিলার থেকে মুঁছে ফেলা হচ্ছে "পাক" বা পাকিস্থান লেখা। সেখানে লেখা হচ্ছে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের নাম। দেশ স্বাধীনের ৪৮ বছর পর আপত্তিকর "পাক" শব্দটি অপসারণের উদ্যোগ নেয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ। এতে খুশি মুক্তিযোদ্ধাসহ সীমান্তবাসীরা। এমন উদ্যোগ বিজিবি সদস্যদের মনোবল বাড়াতেও ভূমিকা রাখবেন বলে মনে করছেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা।

স্বাধীনতার ৪৮ বছর ধরে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের সীমানা পিলার গুলোর গায়ে ছিল একটি ক্ষত। যাতে লেখা ছিল আপত্তিকর পাকিস্থান বা "পাক" শব্দ। অথচ আর মাত্র ২ বছর পর বাংলাদেশ পালন করবে স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী।

আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, সীমানা পিলারের এক দিকে বাংলাদেশ ও অন্য দিকে ভারত লেখা থাকার কথা। অথচ সেখানে ছিল ১৯৪৭ সালে পাকিস্থান-ভারত ভাগ হওয়ার পর ইন্ডিয়া-পাক শব্দটি।

সীমানা বিরোধ সংক্রান্ত ও সীমানা পিলার চিহ্নিতকরণের কাজ করেন সরকারের দু'টি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু প্রতিষ্ঠান দু'টির সমন্বয়হীনতায় পাক শব্দটি মুছে ফেলা সম্ভব হয়নি। আপত্তিকর "পাক" শব্দটি অপসারণের উদ্যোগ নেয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ।

যশোর ৪৯ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল সেলিম রেজা বলেন, সীমান্তের প্রতিটি পিলারেই বাংলাদেশ নামটি লেখা হবে। এই কার্যক্রম সঠিকভাবে পালনের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানান বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল সেলিম রেজা।

এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন, দেশের সূর্য সন্তানরা। তারা বলছেন, স্বাধীনতার পর পরই এই উদ্যোগ নেয়া উচিত ছিল।

যশোর জেলা মুক্তিডোদ্ধা সংসদের সাবেক জেলা কমান্ডার রাজেক আহমেদ বলেন, দেশ স্বাধীনের অনেক পরে হলেও এমন উদ্যোগ প্রশংসার দাবী রাখে।

এদিকে, যশোর মুক্তিডোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আফজাল হোসেন দ্যোদুল বলেন, এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের সিদ্ধান্ত আরও আগে নেয়া প্রয়োজন ছিল।

যশোর-খুলনা অঞ্চলের দক্ষিণ-পশ্চিম রিজিয়নে পিলারের সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার। এ মাসেই শেষ হবে পিলার থেকে পাকিস্থান শব্দটি অপসারণের কাজ।

নিউজটির বিস্তারিত প্রতিবেদন ভিডিওতে-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর