channel 24

সর্বশেষ

  • আবরার হত্যা: কাল সকাল ১১টায় শহীদ মিনারে...

  • জড়ো হবেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা; ঘোষণা হবে পরবর্তী কর্মসূচি

  • উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যুবককে জবাই করে হত্যা; ঘাতক আটক

  • তেজষ্ক্রিয় বর্জ্য ও ব্যবহৃত পারমাণবিক জ্বালানি...

  • ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জাতীয় নীতির অনুমোদন মন্ত্রিসভায়

  • প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে গণভবনে আবরারের পরিবার

  • আবরার হত্যা: বুয়েট পরীক্ষা চলাকালে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ শিক্ষার্থীদের...

  • আসামি অমিত সাহা বুয়েট ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার...

  • চলমান সংকট সমাধানে কয়েকটি কমিটি করা হয়েছে: ভিসি

  • গুলিস্তানে পুলিশের ওপর বোমা হামলা: আজমির ও তামীম ৫ দিনের রিমান্ডে

  • নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে কর্মচারীদের চাকরিচ্যুতের...

  • ৩ মামলায় জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা হাইকোর্টে স্থগিত

  • ভারত থেকে পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত দাম একটু বেশি থাকবে...

  • মজুদ থাকার পরও দাম কেন বাড়ছে, তদন্তে ব্যবস্থা: বাণিজ্যমন্ত্রী

  • সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে বিভৎস কায়দায় হত্যা...

  • আটক ৭ জনের মধ্যে ৩ জনের সম্পৃক্ততা রয়েছে: পুলিশ

  • জাপানে টাইফুন হাগিবিসের আঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫৬; নিখোঁজ ১৫

গবাদি পশুর অ্যানথ্রাক্স রোগ ছড়িয়ে পড়ছে মানবদেহে

গবাদি পশুর অ্যানথ্রাক্স রোগ ছড়িয়ে পড়ছে মানবদেহে

অ্যানথ্রাক্স গবাদি পশুর মারাত্মক সংক্রামক এক রোগ। যা ছড়ায় মানবদেহেও। মেহেরপুরের গাংনীতে গত ৭ বছরে এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজারের বেশি মানুষ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাটিতে ৫০ থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত টিকে থাকে অ্যানথ্রাক্সের জীবাণু। তাই এটি পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব নয়।

গাংনীর সীমান্তবর্তী গ্রাম কাজিপুরে সর্বপ্রথম ১৯ জন অ্যানথ্রাক্সে আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মেলে। এরপর হাড়াভাঙ্গা, নওদাপাড়া, বেতবাড়িয়া, মঠমুড়া গ্রামেও অ্যানথ্রাক্সে ছড়িয়ে পড়ে।

স্বাস্থ্য বিভাগের পরিসংখ্যান বলছে, ২০১২ সালে ৫৩ জন, ২০১৩ সালে ১৯৯ জন, ২০১৪ সালে ২০৩ জন, ২০১৫ সালে ১৫৪ জন, ২০১৬ সালে ২৪০ জন, ২০১৭ সালে ২৮১ জন, ২০১৮ সালে ৪০৮ জন, এবং চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত ৫১৪ জন অ্যানথ্রাক্সে রোগীর মিলেছে এই উপজেলায়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অ্যানথ্রাক্সে আক্রান্ত পশুর মাংস, রক্ত ও মৃত পশু যেখানে- সেখানে ফেলে রাখার মাধ্যমে এর জীবানু মাটিতে ছড়িয়ে পড়েছে। আর এ জীবানু মাটিতে থাকে ৫০ থেকে ৬০ বছর। ফলে সেই মাটিতে গজানো ঘাস খেয়েও গবাদিপশু অ্যানথ্রাক্সে আক্রান্ত হচ্ছে।

লোকসানের আশংকায় অনেক সময় অসুস্থ পশু জবাই করছেন অনেকেই । আর সেই পশুর রক্ত ও মাংস নাড়াচাড়া করে অনেকে আক্রান্ত হচ্ছেন অ্যানথ্রাক্সে। হাতে, পায়ে অথবা মুখে ছোট ছোট ফোড়া তৈরি হয়ে ক্ষতের সৃষ্টি হচ্ছে।

চিকিৎসকরা বলছেন, অসুস্থ পশুর রক্ত মাংসের স্পর্শে অ্যানথ্রাক্সে আক্রান্ত হলেও এ রোগে মৃত্যুর আশঙ্কা নেই। তেব তৈরি হয় শারীরিক নানা জটিলতা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর