channel 24

সর্বশেষ

  • একুশে ফেব্রুয়ারি পালনে বন্দরনগরীতে চলছে প্রস্তুতি

  • ৪ বছরে এসডিজি অর্জনে দুরবস্থায় বৈষম্য সূচক

  • সম্পত্তির দ্বন্দ্বের জেরে মাকে হত্যাচেষ্টা, আ.লীগ নেতা কারাগারে

  • চসিক নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন ফরম বিক্রি করছে বিএনপি

  • সূচকের পতন যেন থামছেই না পুজিঁবাজারে

  • করোনার প্রভাবে থমকে গেছে চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ

  • এবার সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটিকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা

  • সমন্বিত নয়, আগের নিয়মেই ভর্তি পরীক্ষা নিবে বুয়েট

  • আ.লীগে প্রতিহিংসার রাজনীতি নেই: রেজাউল করিম

  • ৪ চীনা নাগরিকসহ ৭৫ জনের নমুনায় করোনা ভাইরাস মেলেনি: আইইডিসিআর

  • ওয়ানডে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে মিরপুরে মাশরাফী

  • মিরপুরে অনুশীলনে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ে

  • নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ: প্রস্তুতি ম্যাচে পাকিস্তানকে হারালো বাংলাদেশ

  • গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবি'র শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ১৫ দিনে গড়িয়েছে

  • মিয়ানমারে একটি বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ২

ঝিনাইদহের রাস্তা: গর্ত আর খানাখন্দে দুর্ভোগে যাত্রী ও চালকরা

ঝিনাইদহের রাস্তা: গর্ত আর খানাখন্দে দুর্ভোগে যাত্রী ও চালকরা

সংস্কারের অভাবে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ১৮ কিলোমিটার আঞ্চলিক মহাসড়ক। সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত আর খানাখন্দ। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রী ও চালকদের। সড়ক বিভাগ বলছে, রাস্তা সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

ঝিনাইদহের সীমান্তবর্তী উপজেলা মহেশপুর। জেলা সদর থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে কাজীরবেড় ইউনিয়ন। সেখানে গেলে রাস্তায় দেখা মেলে হাঁসের জলকেলি। আর মহাসড়কে বিকল হওয়া গাড়ি।

গত কয়েক বছরে দত্তনগর বাজার থেকে জিন্নহনগর পর্যন্ত ১৮ কিলোমিটার সড়কের এই দশা। এতে ভোগান্তিতে এই সড়কে চলাচলকারী যাত্রী ও চালকরা।

ঝিনাইদহ জেলার  মহেশখালী উপজেলার স্বরূপপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জানান, কয়েক বছর ধরেই এই এলাকার মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। কিন্তু সমস্যার কোন সমাধান হচ্ছে না।

এদিকে, ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলেন, মহেশপুরের কয়েকটি রাস্তা উন্নয়নের জন্য চারটি প্যাকেজ টেন্ডার হয়। ৩ ও ৪ নম্বর প্যাকেজ দুটির কাজ শেষ হয়েছে। কিন্তু টেন্ডারের সময় ওই ১৮ কিলোমিটার রাস্তা কম ভাঙা থাকলেও এখন বেড়েছে। তাই নতুন করে টেন্ডার দেয়া হবে।

আঞ্চলিক ওই মহাসড়ক দিয়ে মহেশপুর উপজেলার বাঁশবাড়িয়া, নেপা, শ্যামকুড়, কাজীরবেড় ও স্বরূপপুর ইউনিয়নের প্রায় ৫০ হাজার মানুষ যাতায়ত করেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর