channel 24

সর্বশেষ

  • স্কুল বন্ধ থাকাকালীন ৫০ শতাংশ বেতন নেয়াসহ ৪ দফা দাবি অভিভাবকদের

  • ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রামে পশুর হাট স্থাপন না করার সুপারিশ

  • ৭২ ঘন্টার মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের অপসারণের দাবি

  • করোনা সংক্রমণ বাড়ছেই, বড় কারণ অসতর্কতা

  • কুমিল্লা মেডিকেলে করোনা চিকিৎসা নিয়ে নানা প্রশ্ন

  • সাহারা খাতুনের দাফন সম্পন্ন

  • চলতি বছরেই শুরু দিনাজপুরের বিরল স্থলবন্দরের কার্যক্রম

  • এখনও স্থবিরতা কাটেনি রাজধানীর শপিং মলগুলোতে কেনাকাটায়

  • গত অর্থবছরে রপ্তানি আয়ে ভয়াবহ বিপর্যয়; একমাত্র বেড়েছে পাট পণ্যের চাহিদা

  • করোনা পরীক্ষায় র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি টেস্ট পদ্ধতি চালু করতে চায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • রিজেন্ট হাসপাতালে বিল নিয়ে বাহাস ছিল নিত্যদিনের ঘটনা

  • সাহেদের প্রতারণায় নিঃস্ব চট্টগ্রামের অনেক ব্যবসায়ী

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ ঢাকায়, জানাজা শেষে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে

  • তিস্তার পানি ফের বিপৎসীমার উপরে

  • 'সাহারা খাতুন ছিলেন রাজপথে আন্দোলনের বলিষ্ঠ কণ্ঠ'

নিখোঁজের ৪দিন পর ওয়ারড্রোব থেকে মরদেহ উদ্ধার

নিখোঁজের ৪দিন পর ওয়ারড্রোব থেকে মরদেহ উদ্ধার

নিখোঁজের চারদিন পর এক গৃহবধূর মরদেহের টুকরো করা অংশ নিজ ঘরের ওয়ারড্রোব থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার (১২ আগস্ট) গাজীপুরের শ্রীপুর থেকে পুলিশ পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় মরদেহের অংশগুলো উদ্ধার করে।

মৃত গৃহবধূর নাম সুমি আক্তার। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী মামুন পলাতক রয়েছে।

সুমি আক্তার নেত্রকোণার পূর্বধলা উপজেলার দেবকান্দা গ্রামের নিজাম উদ্দিনের মেয়ে। তার স্বামী মামুন গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার বড়বাড়ি গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে। দেড় বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। সুমি গার্মেন্টস শ্রমিক ও তার স্বামী মামুন পেশায় ইলেক্ট্রিশিয়ান।

বৃহষ্পতিবার কারখানা ছুটি হলে ওই রাতেই সুমির বাবার বাড়ি যাওয়ার কথা ছিল। সে বাড়ি না যাওয়ায় শুক্রবার তার স্বামী মামুনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। সে জানায় সুমি বাড়ির উদ্দেশে রওয়ানা দিয়েছে।  

শনিবারও সুমি বাড়িতে না যাওয়ায় সুমির বোন বৃষ্টি আক্তার তাদের বাসায় খোঁজ নিতে যান। সেখানে এসে বৃষ্টি কাউকে পায়নি। এসময় মামুনের মোবাইলটিও বন্ধ ছিল।

সোমবার সন্ধ্যায় সুমির বোন আবার খোঁজ নিতে এসে ঘর থেকে পঁচা মাংসের গন্ধ পান। পরে আশপাশের লোকদের বিষয়টি জানান। স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হলে তারা তালা ভেঙে ঘরে ঢুকেন। পরে ওয়াড্রোবের ড্রয়ার খুলে তারা পাঁচটি পলিথিনে মোড়ানো মাথাবিহীন মরদেহের অংশ দেখতে পায়।

বৃষ্টি আক্তারের দাবি তার বোন সুমি আক্তারকে হত্যার পর মামুন মরদেহ টুকরো টুকরো করে ওয়ারড্রোবে রেখে পালিয়েছে।

নিহতের বাবা মামুনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে মঙ্গলবার শ্রীপুর থানায় একটি মামলা করেছেন। এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার বা আটক করা হয়নি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর