channel 24

সর্বশেষ

  • বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্রাকৃতির মানুষটি মারা গেছেন

  • শাহজাহানপুরে ৬ বছরের শিশু ধর্ষণ, আটক ১

  • সোমবার সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় মান্নানের জানাজা

  • বিশ্ব ইজতেমার শেষ পর্বে আরো ২ মুসল্লির মৃত্যু

  • হিন্দু মহাজোট পুরো সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব করে না: কাদের

  • নির্বাচন পেছানোর দাবিতে টানা তৃতীয় দিনের অনশনে ঢাবি শিক্ষার্থীরা

  • পরিস্থিতি যাই হোক শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকবে বিএনপি: তাবিথ

  • বাড়তি শুল্কে বেড়েছে পণ্য আমদানি, কমেছে রপ্তানি

  • সিটি নির্বাচনের প্রচারণা নাকি হাসির খোরাক?

  • বিবাহোত্তর সংবর্ধনার প্রস্তুতি সেরে বাড়ি ফেরা হলো না নববধূর

  • বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান আর নেই

  • হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি সরালেও মুক্তি মেলেনি দূষণের হাত থেকে

  • মিয়ানমার ও চীন একই মায়ের দুই সন্তান: সি জিন পিং

  • বিশ্ব ইজতেমার শেষ পর্বের দ্বিতীয় দিন আজ

  • ইউএস-বাংলার বহরে এল নতুন উড়োজাহাজ

সুন্নতে খতনা করার সময় শিশুর মৃত্যু

সুন্নতে খতনা করার সময় শিশুর মৃত্যু

প্রস্রাবের সমস্যায় সুন্নতে খতনা করার সময় রিসকাত হোসেন নামে এক মাস ২৫ দিন বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (২০ জুলাই) বিকেলে ঈশ্বরদীর সাঁড়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটেছে। শিশুটি লালপুর থানার পাটকেবাড়ি (পশ্চিমপাড়ার) সজিব হোসেনের ছেলে।

শিশুটি মারা যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তার লাশ মায়ের কোলে দিয়ে পালিয়ে যান ডা. মো. ইকবাল হোসেন ও তার সহযোগী বাজারের ওষুধের দোকানদার জয়ন্ত।

এ সময় মায়ের আহাজারি শুনে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভিড় করেন আশপাশের লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির লাশ ও ব্যবহৃত ওষুধের বোতল উদ্ধার করে।

এলাকাবাসী ডাক্তার ও তার সহযোগীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে কয়েক ঘণ্টা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ঘেরাও করে রাখে। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ মা রুবি খাতুন বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন।

শিশুটির ফুপু তাসলিমা খাতুন জানান, গত ৫ দিন আগে শিশুটিকে নিয়ে তারা ওই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আসেন। তখন ডাক্তার ইকবাল বলেন, প্রস্রাবে ইনফেকশন হয়েছে, খতনা দিতে হবে। টাকা না থাকায় তারা ফিরে যান। শনিবার সকালে ডাক্তার ইকবাল শিশুটিকে খতনা দিতে হবে বলে মোবাইল ফোনে তার ভাইয়ের স্ত্রী রুবিকে ডেকে আনেন। ১৫শ টাকার চুক্তিতে দুপুর দুইটার দিকে শিশুটিকে কয়েকটি ইনজেকশন দিয়ে খতনা দেন। এ সময় শিশু রিসকাত মারা যায়।

তিনি আরও জানান, ডাক্তার শিশুটি মারা গেছে বুঝতে পেরে তার মায়ের কোলে দিয়ে সহযোগী জয়ন্তকে নিয়ে পালিয়ে যান। তিনি এ ঘটনাটিকে হত্যা হিসেবে দাবি করে ডাক্তার ইকবাল ও জয়ন্তের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

কথা বলতে পারছিলেন না মা রুবি খাতুন। বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন তিনি। শুধু নির্বাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে চোখের পানি ফেলছিলেন। তবে তিনি সন্তানের হত্যাকারীর ফাঁসি দাবি করেন।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার আব্দুল বাতেন জানান, স্বাস্থ্যকেন্দ্রে শিশুর মৃত্যুর ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। স্বাস্থ্যকেন্দ্রে সুন্নতে খতনা দেয়ার কোনো যন্ত্রপাতি ও অনুমতি নেই।

তিনি আরও জানান, ইকবাল হোসেন একজন মেডিকেল সহকারী।

ঈশ্বরদী থানা পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থল থেকে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। মৃত শিশুটির পরিবার থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ডাক্তার ইকবাল হোসেন ও তার সহযোগী জয়ন্ত পলাতক রয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর