channel 24

সর্বশেষ

  • সীমান্তে আটক ভারতীয় জেলের বিরুদ্ধে বিজিবির মামলা

  • উত্তর চব্বিশ পরগনায় ৮ বাংলাদেশিকে আটক করেছে বিএসএফ

  • বিজিবি-বিএসএফ গোলাগুলির ঘটনা ভুল বোঝাবুঝি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • কথায় কথায় শুধু অভিযোগ-নালিশ করে বিএনপি: কাদের

  • দলের স্বার্থে ভারতকে সব দিয়ে এসেছে আ.লীগ: আমীর খসরু

  • অন্যকে ফাঁসাতে নিজের সন্তান হত্যার কড়া সমালোচনা প্রধানমন্ত্রীর

কুমিল্লায় বিজিবির কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় তোলপাড়

কুমিল্লায় বিজিবির কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় তোলপাড়

কুমিল্লায় বিজিবির সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে প্রশান্ত কুমার দাস নামে এক ভিডিওগ্রাফার নিহতের ঘটনায় তোলপাড় চলছে। বিজিবি তাকে মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি করলেও থানার তার নামে কোনো মামলা নেই। স্থানীয়রাও বলছেন, নিহত প্রশান্ত ভালো লোক হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। কিন্তু যদিও তার নামে থানায় কোনো মামলা নেই। এ ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন, নিহতের পরিবার ও নাগরিক সমাজ।

২৭ জুন রাতে কুমিল্লায় বিজিবির সাথে বন্দুকযুদ্ধে প্রশান্ত কুমার দাশ নামে একজন নিহত হন। ২৮ জুন দেশের সব গণমাধ্যমে বিষয়টির সংবাদ প্রচার হয়। সংবাদে বিজিবির বরাত দিয়ে দাবি করা হয়, নিহত প্রশান্ত মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন।

এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয় প্রশান্তের মৃত্যু নিয়ে নানা মন্তব্য। মন্তব্যগুলোতে দাবি করা হয়, প্রশান্ত কোন ভাবেই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত ছিল না। তিনি একজন ফ্রিল্যান্সার ভিডিওগ্রাফার ছিলেন। ভালো মনের মানুষ হিসেবেও পরিচিত ছিলো।

অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রশান্ত কুমার দাশ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে ধারণকৃত ভিডিও এবং ছবি সরবরাহ করতেন গণমধ্যমকর্মীদের। নগরীর পুরাতন চৌধুরীপাড়া এলাকার বাদল চন্দ্র দাশের ছেলে। গত ২২ মে প্রশান্তের মা মারা যান। পরে অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৭ জুন ভারতে চিকিৎসা শেষে ২৩ জুন দেশে ফেরেন তিনি।

পরিবারের অভিযোগ, ২৭ জুন বিকেলে নগরীর টিক্কাচর এলাকা থেকে তাকে আটক করে বিজিবি। ঐদিন রাতে মাদক উদ্ধার অভিযানে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন প্রশান্ত। এ ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে দেয়া হয় পৃথক দুটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি। মাদক এবং হত্যার ঘটনায় আলাদা দুটি মামলাও করে বিজিবি।

নিহত প্রশান্তের ভাই রামু চন্দ্র দাশ জানান, প্রশান্তের সাথে নাজমুল নামে আরও একজনকে আটক করেছে বিজিবি।

এদিকে, বিজিবির দাবি করা বন্দুকযুদ্ধের ঘটনাস্থল সংরাইশ এলাকার বাসিন্দারা জানান, কোন গোলাগুলির শব্দ বা বিষয় তারা শোনেননি।

সুশীল সমাজ বলছে, ঘটনার নেপথ্যে থাকা সংশ্লিষ্টদের বিভাগীয় বদন্তসহ বিচার হওয়া উচিত।

আর কুমিল্লা কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবু ছালাম মিয়া বলছে, নিহত প্রশান্তের নামে থানায় কোন মামলা নেই।

তবে, বিষয়টি জানতে চাইলে কুমিল্লা বিজিবি-১০ ব্যাটেলিয়নের কোন কর্মকর্তা কথা বলতে রাজি হননি।

নিউজটির ভিডিও-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর