channel 24

সর্বশেষ

  • সিনহা হত্যার বিচার নিদিষ্ট সময়ে না হলে কঠোর পদক্ষেপ: রাওয়া

  • লেবাননে বিস্ফোরণে নিহত দুই বাংলাদেশির বাড়িতে শোকের মাতম

  • করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশকে ৩২৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দেবে জাপান

  • ডা. সাবরিনা ও স্বামী আরিফুলসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল

  • নাসিমকে নিয়ে কটূক্তি: হাইকোর্টে জামিন পেলেন বেরোবি’র সেই বহিষ্কৃত শিক্ষিকা

  • করোনায় বিপর্যস্ত মানুষের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে 'সেইফ ফাউন্ডেশন'

  • নেত্রকোনায় হাওড়ের জলের রাক্ষুসী রূপ; ট্রলারডুবিতে প্রাণ গেল ১৭ জনের

  • সিনহা নিহতের ঘটনায় দায় ব্যক্তির, কোনো বাহিনীর নয়: সেনাপ্রধান

  • রুপার ইট দিয়ে রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি

  • চট্টগ্রামে প্রকাশনা বন্ধ ৫টি দৈনিক পত্রিকার, অনিশ্চিয়তায় কয়েকশো সাংবাদিক-কর্মচারির ভবিষ্যৎ

  • ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নষ্ট করার চেষ্টা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

  • ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে দেশের রপ্তানি বাণিজ্য

  • করোনায় দেশে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৫৪

  • ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে দেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির

  • নয়াপল্টনে আব্দুল মান্নানের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত

বেদখল হয়ে যাচ্ছে ঝিনাইদহের গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের স্থাপনাগুলো

বেদখল হয়ে যাচ্ছে ঝিনাইদহের গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের স্থাপনাগুলো

তদারকি আর মেরামতের অভাবে দিন দিন বেদখল হয়ে যাচ্ছে ঝিনাইদহের গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের স্থাপনাগুলো।

লুটপাট হয়ে যাচ্ছে কোটি কোটি টাকার মালামাল। ফলে কার্যকারিতা হারাচ্ছে প্রকল্পটি। পানি পাচ্ছেন না কৃষকরা। যদিও লোকবল সংকটের দোহাই পানি উন্নয়ন বোর্ডের। এ চিত্রই বলে দিচ্ছে কতটা অবহেলায় আছে এক সময়ে ঝিনাইদহবাসীর স্বপ্নের গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প। ১৯৫৪ সালে সেচ সুবিধা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণসহ নানা উদ্দেশ্যে প্রকল্পটি হাতে নেয় ওয়াবদা।

১৯৬২ সালে এ প্রকল্পে প্রথম সেচ দিয়ে চাষ হয়। ১৯৭০ ও ১৯৮২ সালে দুদফায় প্রায় ৭৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকায় প্রকল্পের বাস্তবায়ন শেষ হয়। পরের বছর নির্মাণ শুরু হয় অফিস, বাসা- বাড়ি, সড়কসহ বহু স্থাপনা।

তবে কিছুদিন ভাল চললেও তদারকির অভাবে বিলীন হয়ে যাচ্ছে কোটি কোটি টাকার সম্পদ। প্রাণ হারাচ্ছে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্পটি। এতে পানি না পেয়ে চরম দুর্ভোগে কৃষকরা। বিষয়গুলো পানি উন্নয়ন বোর্ডের নজরে দিলে দোহাই দেন লোকবল সংকটের।

ঝিনাইদহের সদর হরিণাকুন্ড ও শৈলকূপা উপজেলার ৩৩ হাজার ৮শ' ৯৯ হেক্টর আবাদী জমি রয়েছে এ প্রকল্পের আওতায়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর