channel 24

সর্বশেষ

  • বিশ্বকাপ স্কোয়াডে সুযোগ পেয়েও অবসরের ঘোষণা হেইলসের

  • বিশ্বকাপে বাংলাদেশ সেমিফাইনাল খেলবে: খালেদ মাহমুদ

  • ধর্ষণ মামলা: বাগেরহাটে মাদ্রাসার অধ্যক্ষসহ বিভিন্ন স্থানে গ্রেপ্তার ৯

  • ইংলিশ লিগ: শিরোপা জয়ের দিকে এগোচ্ছে ম্যান সিটি

  • 'মোদী' ওয়েব সিরিজ বন্ধের নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

  • বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের জন্য বাংলাদেশ দল ঘোষণা

  • বঙ্গবন্ধুর ছবি অবমাননার অভিযোগে যবিপ্রবিতে ৮ ছাত্রলীগ কর্মী বহিষ্কার

  • চাকরির বয়স ৩৫ করার দাবিতে সাধারণ ছাত্র পরিষদের সমাবেশ

  • বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ: প্রথম পর্ব শেষে শীর্ষে বসুন্ধরা

  • নুসরাত হত্যায় আটক ইফতেখার রানা

  • মানুষ এখন কিছু হলেই মামলা করে: প্রধান বিচারপতি

  • ওয়াসার বিভিন্ন ক্ষেত্রে দুর্নীতির কথা স্বীকার করলেন এমডি

  • পোশাক খাতে অ্যাকর্ড অ্যালায়েন্সের প্রয়োজন নেই: রুবানা হক

  • যৌন হেনস্থায় অভিযুক্ত ভারতের প্রধান বিচারপতি

  • বীরশ্রেষ্ঠ আব্দুর রউফের শাহাদাৎবার্ষিকী পালিত

নওগাঁয় আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

নওগাঁয় আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন

নওগাঁয় আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে নারী ও শিশু নির্যাতন। পিটিয়ে আহত, ধর্ষণ এমনকি মেরে ফেলার ঘটনাও ঘটছে প্রতিনিয়ত। বিশেষকরে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘটছে এসব ঘটনা। আইনজীবীরা বলছেন, নারী-শিশুদের দিয়ে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনা, মাদক চোরাচালানের কারণেই বাড়ছে পারিবারিক সহিংসতা।

৭ সেপ্টেম্বর নওগাঁর মান্দা উপজেলার চকভালাইন গ্রামে সজনী নামে এই গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করে পানির ট্যাংকিতে গুম করেন তার স্বামী। পুলিশ বলছে, স্ত্রী নির্যাতনের দায়ে কিছুদিন আগেও জেলে গিয়েছিল ওয়াজেদ। জামিনে বেরিয়ে স্ত্রী বাবার বাড়ি থেকে কৌশলে ডেকে নিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যান।

পোরশা উপজেলায় প্রকাশ্য দিবালোকে এক নারীকে পিটানোর এই দৃশ্য কদিন আগের। অনৈতিক কাজের অভিযোগ এনে এভাবেই তাকে গাছে বেঁধে পেটান স্থানীয় প্রভাবশালীরা। নওগাঁর বিভিন্ন এলাকায় এরকম নারী নির্যাতনের ঘটনা মাঝেমধ্যেই জানা যায়। তবে এর সমাধান যেন জানা নেই কারোরই।

নারী নির্যাতনের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন পুলিশও। তবে অনেক ক্ষেত্রেই আসামিরা আটকের পর সামাজিক সম্মানের কথা ভেবে আপস করার কথাও জানান পুলিশ কর্মকর্তারা।

আইনজীবীরা মনে করেন, সীমান্ত লাগোয়া জেলা হওয়ায় নওগাঁয় নারী ও শিশুদের দিয়ে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজ করিয়ে অর্থ উপার্জন, পরকিয়া ও মাদকের কারণেই পারিবারিক সহিংসতা বাড়ছে।

স্থানীয়রা বলছেন, সব নির্যাতনের খবর জানাজানি হয় না। ফলে অনেক ঘটনাই আড়ালে থেকে যায়। অনেকে পারিবারিক ও সামাজিক কারণে নির্যাতনের ঘটনা চেপে যান বলেও অভিযোগ রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর