channel 24

সর্বশেষ

  • বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে অব্যাহতি

  • দানবীর রণদা প্রসাদ হত্যা মামলার রায় বৃহস্পতিবার

  • দুদক কার্যালয়ে সাংবাদিক তলবের প্রতিবাদে মানববন্ধন

  • নিয়ম মানা না হলে তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান

  • ২৮ বছর পর সচল হল সগিরা মোর্শেদ হত্যা মামলা ২ মাসের মধ্যে অধিকতর তদন্ত শেষ করার নির্দেশ

  • নারায়ণঞ্জে নারী ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

  • নরসিংদীর দগ্ধ কলেজছাত্রীর মৃত্যু

  • প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়া

  • হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ব্রায়ান লারা

  • ভুল ইনজেকশনে এক মাসের বেশি সময় ধরে অজ্ঞান গোপালগঞ্জের মুন্নি

  • চট্টগ্রামে মাইক্রোবাসে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, দগ্ধ ১৫

  • অবশেষে ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত

  • খুলনা শিশু হাসপাতালকে ১৫ কোটি টাকা অনুদান দিলেন প্রধানমন্ত্রী

  • সাম্প্রদায়িক শক্তি এখনও সক্রিয়, বড় নাশকতার পরিকল্পনা করছে: কাদের

  • স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

কক্সবাজারে সন্ত্রাসী গ্রুপের কাছে জিম্মি চিংড়ি খাত

কক্সবাজারে সন্ত্রাসী গ্রুপের কাছে জিম্মি চিংড়ি খাত

চিংড়ি চাষের জন্য দেশের অন্যতম এলাকা কক্সবাজারের চকরিয়া। তবে চাঁদাবাজি, ডাকাতিতে অতিষ্ঠ ঘের মালিকরা। ৫ থেকে ৭টি সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপের কাছে জিম্মি এখানকার চিংড়ি খাত। প্রতিমাসে দিতে হয়, কোটি টাকার ওপর চাঁদা। যাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি।

চিংড়ি উৎপাদনের জন্য সারাদেশেই পরিচিত কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা। সেখানকার উপকুলীয় জনপদ চরণদীপ ও সওদাগরঘোনা। যেখানে চাঁদাবাজির কারণে অনেকদিন ধরেই অতিষ্ঠ ঘের মালিকরা। নৌপথে যেতে হয় এই জনপদে। রাতের অন্ধকারে নিরিবিলি এলাকাটিতে পৌছে দেখা মিললো কয়েকজনের। যাদের সবার হাতেই অস্ত্র। মূলত তারাই জড়িত এই চাঁদাবাজি আর ডাকাতিতে। যা চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের কাছে স্বীকারও করেন তাদের কয়েকজন।

তাদের দাবি, এসব কাজে নেপথ্যে রয়েছেন এলাকার কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি। যারা তাদের আশ্রয় যেমন দেন, তেমনি এই জগত থেকে সরে আসতে চাইলে, চালায় নির্যাতন। জড়িয়ে দেয়া হয় মামলার জালে। চকরিয়ার পুরো উপকুলজুড়েই এই অপরাধীদের দাপট। ঘের মালিকরা বলছেন, এসব সন্ত্রাসী গ্রুপের কাছে তারা এখন একপ্রকার জিম্মি। তবে এসব দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান জেলা পুলিশের এই কর্মকর্তা। চকরিয়ায় চিংড়ি ঘের আছে প্রায় পয়ত্রিশ হাজার একর। যেখানে চাঁদাবাজি আর ডাকাতিতে জড়িত ৫ থেকে ৭টি বাহিনী। তাদের প্রতিমাসে আদায় করা চাঁদার পরিমাণ কোটি টাকার বেশি।  

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর