channel 24

সর্বশেষ

  • পত্রিকার সম্পাদকদের সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক

  • পাকিস্তান সফরে যাচ্ছে না বাংলাদেশ হকি দল

  • বাংলা চলচ্চিত্রের উজ্জ্বল নক্ষত্র পরিচালক সুভাষ দত্ত

  • বলিউডে মুক্তি পেল যেসব ছবি

  • ভাষা আন্দোলন নিয়ে তৌকিরের পরিচালনায় নির্মিত হচ্ছে 'ফাগুন হাওয়ায়'

  • কোপা আমেরিকায় মেসির খেলা নিয়ে অনিশ্চিয়তা

  • উয়েফা নেশন্স লিগে মাঠে নামছে ইউরোপের দেশগুলো

  • চট্টগ্রামে অনুশীলনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

  • ক্যারিবিয়দের বিপক্ষে সিরিজে সাকিব-তামিমের জন্য অপেক্ষায় টিম ম্যানেজমেন্ট

  • চট্টগ্রামে চলছে চাকরি মেলা

  • নরসিংদীর বাঁশগাড়িতে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু

  • নির্বাচনি ইশতেহারে স্বাস্থ্য খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়ার আহবান

  • রাইড শেয়ারিং অ্যাপ উবারের ১০৭ কোটি ডলার লোকসান

  • মূলার বাম্পার ফলনের পরও লোকসানে লালমনিরহাটের চাষীরা

  • ইতিহাসের সাক্ষী হবার অপেক্ষায় নোয়াখালী শহীদ ভুলু স্টেডিয়াম

ঝিনাইদহেও পাট চাষীরা ফলন নিয়ে বিপাকে

ঝিনাইদহেও পাট চাষীরা ফলন নিয়ে বিপাকে

দেশের বিভিন্ন স্থানের মতো এবার ঝিনাইদহেও পাট চাষীরা ফলন নিয়ে বিপাকে। একে তো খেতের পাট বৃষ্টির পানিতে নষ্ট হয়েছে। আর যাও ফলন হয়েছে তা বিক্রি করতে হচ্ছে কম দামে। কৃষি বিভাগ বলছে, হতাশ হয়ে অনেক পাটচাষী ঝুঁকছেন অন্যান্য ফসলের দিকে।

ঝিনাইদহে এবার অতিবৃষ্টিতে ফলন বিপর্যয়ের মুখোমুখি সোনালি আঁশের চাষীরা। এক বিঘা জমিতে যেখানে ১০-১২ মণ পাট হতো, সেখানে এ বছর হয়েছে মাত্র ৩-৫ মণ।
শুধু আবাদই নয়, দাম নিয়েও তৈরি হয়েছে, হতাশা। প্রতিবিঘা জমিতে পাট চাষে খরচ হয়েছে, ৮-১০ হাজার টাকা। আর প্রতিমণ বিক্রি হচ্ছে ১২শ-দুই হাজার টাকায়। ফলে, প্রতি বিঘায় উৎপাদিত পাট বিক্রি করে, সর্বনিম্ন ৩ হাজার ৬শ' থেকে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা পাচ্ছেন, কৃষকরা। যাতে অনেকেই পড়েছেন, লোকসানের মুখে।
কৃষি বিভাগ বলছে, পাট চাষে লাভের মুখ না দেখায় চাষীরা অন্য ফসলের দিকে ঝুঁকছে।
ঝিনাইদহে এ বছর ১৫ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। তবে, এটি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৯ হাজার হেক্টর কম।

সর্বশেষ সংবাদ

দেশ 24 খবর