হরহামেশাই অস্ত্রের ব্যবহার, টনক নড়ছে না প্রশাসনের

জলমহাল দখল কিংবা আধিপত্য বিস্তার যেকোনো সংঘর্ষে ব্যবহার করা হয় দেশিয় অস্ত্র। ট্যাটা, বল্লম, রামদা বা তিনকাটা...কিশোরগঞ্জের হাওরে এসব হাতিয়ারের ব্যবহার হরহামেশাই দেখা মেলে। যার আঘাতে প্রাণও যায় অনেকের। অথচ এগুলো উদ্ধার বা বন্ধে এতো দিনেও নেয়া হয়নি কোন পদক্ষেপ। এ অবস্থায় সচেতনতা তৈরিতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান অনেকের। 

 

চলছে দুপক্ষের সংঘর্ষ। শত শত মানুষ সবার হাতে হাতে দেশিয় অস্ত্র। দেশীয় অস্ত্রের এরকম মহড়া কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের পরিচিত দৃশ্য।

শুধু পুরুষ নয়; অনেক সময় এসব সংঘর্ষে অংশ নেয় নারীরাও। বাদ যায় না শিশুও।

রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে টেটা বল্লম বিদ্ধ হয়ে কিংবা রামদার কোপে প্রাণ যায় অনেকের। সবশেষ হত্যাকাণ্ডটি ঘটে, মিঠাইমইন হাওয়রের চারিগ্রামে। স্থানীয়দের কাছ থেকে পাওয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত চার দশকে এসব দেশিয় অস্ত্রের আঘাতে প্রাণ গেছে অন্তত অর্ধশত মানুষের।

প্রশ্ন হলো এতো অস্ত্র মানুষের কাছে কীভাবে আসে, আর কোথায়ই বা রাখা হয়? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে টিম টোয়েন্টিফোরের গন্তব্য ইটনা ও মিঠামইন উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায়। 

এই আইনজীবী বলছেন, অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধে আইনের সর্বোচ্চ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। তবে, পুলিশ বলছে শুধু আইনের প্রয়োগ নয়। বরং মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরিতেও কাজ করতে হবে। 

কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম, নিকলী, তাড়াইল, করিমগঞ্জ ও বাজিতপুরের হাওরাঞ্চলের সংঘর্ষে মূলত দেশীয় অস্ত্রের ব্যবহার বেশী হয়; যেগুলো বছরের পর বছর ধরে মানুষের কাছে আছে। তাই এসব অস্ত্র উদ্ধারে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন হাওরের মানুষ।

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save