channel 24

সর্বশেষ

  • তথ্য গোপন: ছাত্রলীগ নেতার জামিন বাতিল করলেন হাইকোর্ট

  • ট্রাম্পের কথিত শান্তি পরিকল্পনার বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ

  • প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গ্যাজপ্রমের প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

  • অবৈধভাবে বালু তোলার সময় ২টি ড্রেজার পুড়িয়ে দিয়েছেন ইউএনও

  • মাধবদীতে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ; টেঁটাবিদ্ধসহ আহত ৭

  • নোয়াখালীর সুবর্ণচরে এবার ধর্ষণের শিকার বাক-প্রতিবন্ধী শিশু

  • আড়ংয়ের চেঞ্জরুমে গোপনে ভিডিও ধারণ করার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি

  • কাশিয়ানীতে ট্রেনের ধাক্কায় ৩ মোটর সাইকেল আরোহী নিহত

  • তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলনে গ্যাজপ্রমের সঙ্গে চুক্তি করলো বাংলাদেশ

  • প্রশ্নফাঁস: ৬৩ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত সিন্ডিকেটে অনুমোদন

  • বিএনপি বহিরাগত অস্ত্রধারীদের ঢাকায় জড়ো করছে: কাদের

  • পাল্টে যাচ্ছে নীলফামারীর ভূমির প্রকৃতি

  • তাপসের পাশে সাঈদ খোকন

  • 'আমাদের পার্টি' বলতে পুলিশ সদস্য নিজ বাহিনীকেই বুঝিয়েছেন: সিইসি

  • প্রকল্প বাস্তবায়নে যন্ত্রপাতি চালানোর দক্ষ কর্মী আছে কি না, লক্ষ্য রাখার নির্দেশ

জাহাজ কাটার সাড়ে তিন দশকেও গড়ে ওঠেনি অ্যাসবেস্টস রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট

জাহাজ কাটার সাড়ে তিন দশকেও গড়ে ওঠেনি অ্যাসবেস্টস রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট

আগুন বা তাপ নিয়ন্ত্রণে জাহাজে ব্যবহার করা হয় অ্যাসবেস্টস। পুরনো জাহাজ কাটার সময় এই খনিজ উপকরণটি অপসারণ করা হয়। তবে বাংলাদেশে জাহাজ কাটা শুরুর সাড়ে ৩ দশকেও গড়ে ওঠেনি অ্যাসবেস্টস ধ্বংস বা রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট। ফলে প্রতিনিয়তই কংক্রিটের বোতল ভর্তি করে রাখতে হচ্ছে ক্যান্সার সৃষ্টিকারি এই উপকরণটি। তবে শিল্পমন্ত্রণালয় বলছে, অ্যাসবেস্টস রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট বা টিএসডিএফ স্থাপনে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

তাপ প্রতিরোধক হিসেবে জাহাজ ও শিল্পকারখানায় খনিজ পদার্থ অ্যাসবেস্টস ব্যবহার হয়ে আসছে বহুবছর ধরে। তবে ২০০২ সাল থেকে জাহাজে অ্যাসবেস্টস ব্যবহার নিষিদ্ধ করে আইএমও।  

এই উপকরণটি মানবদেহে ক্যান্সার সৃষ্টির জন্য দায়ী। মূলত একারণেই তার ব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ আছে বিশ্বজড়ে। বাংলাদেশেও এমন উদ্বেগ জানিয়ে আসছে পরিবেশকর্মীসহ বিভিন্ন মহল।    

বিএসবিএ'র উপদেষ্টা ক্যাপ্টেন আনাম চৌধুরী বলেন, অ্যাসবেস্টস যখন বাতাসের সাথে উড়ে বেড়ায় তখন এটি নানাভাবে মানবদেহের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়ায়।  

কাটার জন্য বাংলাদেশ বছরে কম-বেশি ৩শ জাহাজ আমদানি করে। যাতে অ্যাসবেস্টস থাকে অন্তত ১৫ মেট্রিক টন। তবে তা ধ্বংস বা পুনঃপ্রক্রিয়ার কোন ব্যবস্থা নেই। ফলে বাধ্য হয়েই সেগুলোকে কংক্রিটের বোতলজাত করে মজুদ রাখতে হচ্ছে। যাতে থেকে যায় বড় ধরনের ঝুঁকি।

শিল্প মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ কে এম শামসুল আরেফিন বলেন, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করা হবে।

শিল্পমন্ত্রণালয় বলছে, শিগগিরই চট্টগ্রামে শুরু হবে অ্যাসবেস্টস রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট বা টিএসডিএফ স্থাপনের কাজ। যাতে জাহাজ ছাড়াও চট্টগ্রাম অঞ্চলের শিল্পকারখানার অ্যাসবেস্টস পুনঃপ্রক্রিয়া করা হবে।    

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর