channel 24

সর্বশেষ

  • বাণিজ্যিক বিবেচনায় চীনা প্রেসিডেন্টের ভারত সফর বেশ সফল: বেইজিং

  • ভারতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে বাড়ি ধসে ১০ জনের প্রাণহানি

  • রেমিটেন্সের বিপরীতে প্রণোদনার টাকা ছাড় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক

  • তৃতীয় বছরে দৈনিক বিজনেস বাংলাদেশ

  • শান্তিপূর্ণ পরিবেশেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা

  • আট উপজেলা ও দুই পৌরসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে

  • যশোরের যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ৫ আসামিকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

  • আবরার হত্যা: আসামি অমিত সাহাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার

  • জম্মু-কাশ্মীরে ৭২ দিন পর সচল করা হলো পোস্টপেইড মোবাইল সার্ভিস

  • কুড়িগ্রামের রেল স্টেশন ভবনের বেহাল দশা

  • লোভ আর চাপে ক্যাম্পাসে রাজনীতিতে জড়াচ্ছে মেধাবীরা

  • আবরার হত্যার সুষ্ঠু বিচার চায় সিপিবির নারী সেল

  • তীব্র স্রোত ও নাব্য সংকটে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

  • থানার ভেতরেই ওসির যোগদানের বর্ষপূর্তি আয়োজন!

  • মালয়েশিয়ায় ১৭৭ বাংলাদেশি অবৈধ অভিবাসী আটক

চট্টগ্রামে আরেক বালিশ কাণ্ড

চট্টগ্রামে আরেক বালিশ কাণ্ড

চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসপাতাল ভবন প্রকল্পের কেনাকাটায় অস্বাভাবিক ব্যয় প্রস্তাব করেছে কর্তৃপক্ষ। এতে প্রতিটি বালিশের দাম ২৭ হাজার টাকা। আর তার কভারের দাম ২৮ হাজার টাকা। এমন ১২টি আইটেমের দামে অসঙ্গতি ধরা পড়ে পরিকল্পনা কমিশনের প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির সভায়। এসব অনিয়ম ধরা পরার পর এখন জড়িত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছে কর্তৃপক্ষ।

নির্মাণ শুরুর আগেই আলোচনায় ফৌজদারহাটে প্রস্তাবিত চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। যাতে উঠেছে হরিলুট চেষ্টার অভিযোগ।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে যে দুটি হাসপাতাল হবে তার জন্য লাগবে নানা জিনিসপত্র। আর তা কিনতে একেকটি জিনিসের দাম প্রস্তাব করা হয়েছে বাজারমূল্যের ১০-২০ গুণ বেশি। যেমন- একটি বালিশের দাম ২৭ হাজার টাকা। আর তার কভারের দাম ২৮ হাজার টাকা। এমন কয়েকগুণ বাড়তি দাম প্রস্তাব করা হয়েছে ১২টি আইটেমে।  

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অবিশ্বাস্য এই প্রস্তাবটি তৈরি করেছে ফিউচার নামে একটি প্রতিষ্ঠান। অভিযোগ উঠেছে, কোন সম্ভাব্যতা যাচাই ছাড়াই প্রকল্প প্রস্তাব তৈরি করা হয়েছে। যা গত ২ সেপ্টেম্বর পরিকল্পনা কমিশনের সভায় নাকচ করে দেয়া হয়।

চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্ট্রার এ এম শাহাদাত হোসাইন বলেন, সবার সমন্বয়ে আয়োজিত মিটিংয়ে বিষয়টি নজরে আসার পরে প্রস্তাবটি নাকচ করা হয়েছে।

ফিউচারের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে এটাকে বড় ধরনের দুর্নীতির চেষ্টা হিসেবে দেখছেন পর্যবেক্ষকরা। এ বিষয়ে টিআইবির সভাপতি অ্যাডভোকেট আখতার কবির চৌধুরী বলেন, মেগা প্রকল্প মানেই মেগা চুরি। এমন পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পাওয়া দরকার বলে মনে করেন টিআইবির সভাপতি।

চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা: ইসমাইল খান বলেন, যারা প্রস্তাবটি দিয়েছিল তাদের বাদ দেয়া হয়েছে। উক্ত প্রতিষ্ঠানটিকে জবাবদিহি করার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছেও বলে জানান চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য।

তবে এসব অনিয়ম ধরা পরার পর এখন জড়িত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছে কর্তৃপক্ষ। একইসাথে, অবকাঠামো নির্মাণের আগে কেনাকাটার পক্ষে নন তারা। প্রায় ২৪ একর জমিতে এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রকল্পে প্রাথমিকভাবে ব্যয় ধরা হয় ২ হাজার ৮শ কোটি টাকা।

নিউজটির প্রতিবেদন ভিডিওতে-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর