channel 24

সর্বশেষ

  • একনেকে ১ লাখ ২৫ কোটি ২৩ লাখ টাকার ১০টি প্রকল্পের অনুমোদন...

  • প্রায় ৯৪ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে মেট্রোরেল লাইন ১ ও লাইন ৫ অনুমোদন

  • অস্ত্র ও মাদক মামলায় বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা সম্রাট ১০ দিনের রিমান্ডে...

  • সহযোগী আরমান মাদক মামলায় ৫ দিনের রিমান্ডে

  • আবরার হত্যায় সরকার বিব্রত কিন্তু গুটিকয়েক ছাত্রনেতার...

  • ভুলের দায় সরকার নেবে না: ওবায়দুল কাদের...

  • আসামি নাজমুস সাদাত দিনাজপুরের বিরামপুরে গ্রেপ্তার

  • এমবিবিএস ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

  • নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্টের রুল

  • সুনামগঞ্জে শিশু তুহিন হত্যা: বাবাসহ তিনজনের ৩ দিন করে রিমান্ড

  • অবৈধ সম্পদ অর্জন: সরকার দলীয় এমপি শামশুল হক চৌধুরী ও...

  • নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান শুরু

  • ফুটবল: বিশ্বকাপ বাছাই: ভারত-বাংলাদেশ (রাত ৮টা)

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সম্পর্ক উন্নয়নে ব্যতিক্রমী এক উদ্যোগ

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সম্পর্ক উন্নয়নে ব্যতিক্রমী এক উদ্যোগ

শিক্ষকরা শুধু শিক্ষক নন হতে পারেন বন্ধুও। এমন উদাহরণই স্থাপন করেছেন খাগড়াছড়ির এক প্রধান শিক্ষক। প্রতিদিন শ্রেণী কার্যক্রম শুরুর আগে শিক্ষকরাই শিক্ষার্থীদের অভিবাদন জানিয়ে শ্রেণী কক্ষে প্রবেশ করান। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সম্পর্ক উন্নয়নে ব্যতিক্রমী এই উদ্যোগকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন অভিভাবকরা।

খাগড়াছড়ি সদরের খাগড়াপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেখা যায়, দরজায় লাগানো তিনটি প্রতীকের মধ্যে একটি পছন্দ করলেই সে অনুসারে শিক্ষার্থীকে অভিবাদন জানাচ্ছেন শিক্ষক। আর স্নেহমাখা এই অভিবাদন নিয়ে আনন্দচিত্তে তারা ঢুকছে শ্রেণিকক্ষে।

না এটি বিদেশী কোন স্কুলের ছবি নয় প্রতিদিনই যার দেখা মেলে খাগড়াছড়ি সদরের খাগড়াপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। প্রথাগত ব্যবস্থার বাইরে এসে নতুন পদ্ধতি চালু করেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক। যিনি জেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হবার পর চীন সফরে গিয়ে দেখে এসে নিজের স্কুলে প্রবর্তন করেন এই ব্যবস্থা।

খাগড়াপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশা প্রিয় ত্রিপুরা বলেন, শিশুদের শ্রেনীকক্ষে অভিনন্দন জানানোর মাঝে অন্যরকম এক আনন্দ রয়েছে। আর এটা ভীষন ভাললাগার ব্যাপার বলেও মনে করেন প্রধান শিক্ষক আশা প্রিয় ত্রিপুরা।

প্রাক প্রাথমিক থেকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে প্রতিদিন ক্লাস শুরুর আগে শিক্ষকরা অভিবাদন জানিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ করান। যাকে অনন্য উদ্যোগ বলছেন অভিভাবকরাও।

খাগড়াছড়ির সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বিদ্যালয়ে আসা শিশুদের মাঝে যদি এমন পরিবেশ জেলার সবগুলো বিদ্যালয়ে চালু করা যায় তাহলে এটি অনেক আনন্দদায়ক হবে। এতে করে কোমলমতি শিশুদের মধ্যে লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করেন এই শিক্ষা কর্মকর্তা। আর নতুন এই পদ্ধতি অন্য স্কুলের জন্যও দৃষ্টান্ত হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

স্কুলটিতে বর্তমানে পড়াশোনা করছে ২৫০ শিক্ষার্থী। প্রাক-প্রাথমিক থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১১৫ জন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর