channel 24

সর্বশেষ

  • স্কুল বন্ধ থাকাকালীন ৫০ শতাংশ বেতন নেয়াসহ ৪ দফা দাবি অভিভাবকদের

  • ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রামে পশুর হাট স্থাপন না করার সুপারিশ

  • ৭২ ঘন্টার মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের অপসারণের দাবি

  • করোনা সংক্রমণ বাড়ছেই, বড় কারণ অসতর্কতা

  • কুমিল্লা মেডিকেলে করোনা চিকিৎসা নিয়ে নানা প্রশ্ন

  • সাহারা খাতুনের দাফন সম্পন্ন

  • চলতি বছরেই শুরু দিনাজপুরের বিরল স্থলবন্দরের কার্যক্রম

  • এখনও স্থবিরতা কাটেনি রাজধানীর শপিং মলগুলোতে কেনাকাটায়

  • গত অর্থবছরে রপ্তানি আয়ে ভয়াবহ বিপর্যয়; একমাত্র বেড়েছে পাট পণ্যের চাহিদা

  • করোনা পরীক্ষায় র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি টেস্ট পদ্ধতি চালু করতে চায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • রিজেন্ট হাসপাতালে বিল নিয়ে বাহাস ছিল নিত্যদিনের ঘটনা

  • সাহেদের প্রতারণায় নিঃস্ব চট্টগ্রামের অনেক ব্যবসায়ী

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ ঢাকায়, জানাজা শেষে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে

  • তিস্তার পানি ফের বিপৎসীমার উপরে

  • 'সাহারা খাতুন ছিলেন রাজপথে আন্দোলনের বলিষ্ঠ কণ্ঠ'

জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট সংগ্রহে মরিয়া রোহিঙ্গারা

জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট সংগ্রহে মরিয়া রোহিঙ্গারা

জন্মসনদ, জাতীয় পরিচয়পত্রসহ সব ধরনের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগত নথি সংগ্রহ করে পাসপোর্ট সংগ্রহে মরিয়া রোহিঙ্গারা। চট্টগ্রামে গত ৫ মাসে এ রকম ৮০ রোহিঙ্গা ধরাও পড়েছে। শুধু তাই নয়, নথিপত্র ছাড়াই নির্বাচন কমিশনের সুরক্ষিত সার্ভারেও ইনপুট দেয়া হচ্ছে তাদের তথ্য। যাতে সহায়তা দিচ্ছে কিছু চক্র।

চট্টগ্রামের পাঁচলাইশে পাসর্পোট করতে এসে গত ৫ আগষ্ট ধরা পড়ে রোহিঙ্গা হোজ্জাত উল্লাহ। পরে তাকে হস্তান্তর করা হয় থানায়।

বিস্ময়কর হচ্ছে, রোহিঙ্গা যুবক হোজ্জাত উল্লাহ জাতীয় পরিচয়পত্রের অনলাইন কপি, জন্মনিবন্ধনসহ সব ধরনের নথিপত্র সংযুক্ত করে আবেদনে। জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করে ৮ নম্বর শুলকবহর ওয়ার্ড কাউন্সিলর অফিস থেকে। যাতে ঠিকানা দেখানো হয় পাখির দোকান এলাকা। তবে এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায় এই যুবককে কখনো দেখেননি স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, এখানে এরকম কোন ছেলে তাদের চোখে পড়েনি। তাকে কেউ দেখেওনি।

চট্টগ্রাম ৮ নম্বর শুলকবহর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোরশেদ আলম বলে, এই জন্ম নিবন্ধন এই ওয়ার্ড অফিস থেকে গেছে, এতে যদি কেউ জড়িত থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গত এপ্রিল থেকে আগস্ট পর্যন্ত চট্টগ্রামের দুটি পাসপোর্ট অফিসে আটক হয়েছে অন্তত ৮০ জন রোহিঙ্গা। উদ্বেগের বিষয়, তাদের প্রায় সবার কাছে ছিল জাতীয় পরিচয়পত্র।

পাঁচলাইশ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস উপ পরিচালক আল-আমিন মৃধা বলেন, আটককৃতদের কাছে অনলাইন জন্মনিবন্ধন, জাতীয় পরিচয়পত্র, স্মার্ট আইডি কার্ডও পাওয়া গেছে। নাগরিকের যেসব কাগজপত্র থাকে তা সংগ্রহ করে পাসপোর্ট করতে আসছে।

শুধু পাসপোর্টই নয়, নানা উপায়ে ভোটার হয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা। সম্প্রতি একটি তদন্তে উঠে আসে নির্বাচন কমিশনের সুরক্ষিত সার্ভারেও ঢুকে গেছে রোহিঙ্গাদের তথ্য। এমন অন্তত ৭৩ সন্দেহভাজনের তথ্য যাচাই করছে কমিশন।

কোতোয়ালি থানা নির্বাচন কর্মকর্তা কামরুল আলম বলেন, যে চক্রটি এটা করছে, তারা আমাদের ভোটার করা প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানে। তারা জানাশোনা লোক।

চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুনির হোসেন খান বলেন, আমাদের কেউ থাকলে সেটা ধরার চেষ্টা চলছে। এ বিষয় পুলিশকেও জানানো হয়েছে। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা হবে।

এভাবে রোহিঙ্গাদের ভোটার হওয়া বা পাসপোর্ট তৈরিকে উদ্বেগজনক বলছেন পর্যবেক্ষকরা।

সনাক-টিআইবি সভাপতি অ্যাডভোকেট আখতার কবির চৌধুরী বলেন, নতুন করে কার্ড নিতে গেলে অনেক সতর্কতা অবলম্বন করা হয়, তাহলে যার ঠিকানা মিয়ানমার সে কিভাবে আইডি কার্ড কিংবা স্মার্ট কার্ড পেয়ে গেল? সেটা জাতির জন্য উদ্বেগজনক বিষয়।

এরকম কত রোহিঙ্গা ভোটার হয়েছে বা কিভাবে সার্ভারে তথ্য ঢুকছে তা খতিয়ে দেখছে  নির্বাচন কমিশনের উচ্চ পর্যায়ের একটি কারিগরি দল।

নিউজটির ভিডিও-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর