channel 24

সর্বশেষ

  • খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে আন্তর্জাতিক মহলকে অবহিত করা হবে: ফখরুল

  • বকেয়া পরিশোধ না হলে চামড়া বিক্রি বন্ধ: আড়তদার সমিতি

  • ধ্বংসাত্মক রাজনীতির কারণে ভুলের চোরাবালিতে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

  • ভারতের নয়াদিল্লিতে অল ইন্ডিয়া মেডিকেল ইনস্টিটিউটের আগুন নিয়ন্ত্রণে

  • অবসর বিষয়ে মাশরাফীর সিদ্ধান্ত দুই মাস পর: বিসিবি সভাপতি

  • ক্রিকেট দলের নতুন হেড কোচ দক্ষিণ আফ্রিকার রাসেল ক্রেগ ডোমিঙ্গো...

  • দায়িত্ব নেবেন ২১ আগস্ট, চুক্তি দুই বছরের: বিসিবি সভাপতি

  • গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ভর্তি ১ হাজার ৪শ' ৬০: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • ডেঙ্গুতে ঢাকা মেডিকেলে নারী ও ফরিদপুর মেডিকেলে কলেজছাত্রের মৃত্যু

  • ডেঙ্গু প্রতিরোধ: ঢাকা উত্তরের প্রতিটি ওয়ার্ডকে...

  • ১০ ভাগে ভাগ করে চিরুনি অভিযান: মেয়র আতিকুল

  • ঢাকাকে হংকং, সিঙ্গাপুর বানানোর ঘোষণা স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর

  • বকেয়া পরিশোধ না করায় ট্যানারিতে আপাতত...

  • চামড়া না দেয়ার ঘোষণা পোস্তার আড়তদারদের...

  • কাল সরকারের সাথে বৈঠকের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত...

  • চামড়া বিক্রি করা না করা তাদের নিজস্ব ব্যাপার...

  • বকেয়া পরিশোধ হবে কেস টু কেস ভিত্তিতে: ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন

  • সুপরিকল্পিতভাবে রাজনীতিকে শূন্য করার চক্রান্ত চালাচ্ছে সরকার: ফখরুল

  • কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশি নিহত

ডিআইজি প্রিজন্স পার্থ'র প্রতিদিন অবৈধ আয় ছিল ১০ লাখ টাকা

ডিআইজি প্রিজন্স পার্থ'র প্রতিদিন অবৈধ আয় ছিল ১০ লাখ টাকা

সাবেক জেলার সোহেল রানার পর ডিআইজি প্রিজনস পার্থ গোপাল বণিক। এই দুই কর্মকর্তার নেতৃত্বে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার। বিশেষ সাক্ষাৎ, মাদক, ক্যান্টিন বাণিজ্যসহ নানাখাতে প্রতিদিন তাদের অবৈধ আয় ছিল অন্তত ৪০ লাখ লাখ টাকা। এরমধ্যে শুধু পার্থ বণিকের পকেটে যেত ১০ লাখ টাকার মতো। যার প্রমাণও পায় দুদক।

সিলেটে বদলি হওয়ার আগে প্রায় দুইবছর চট্টগ্রাম কারাগারের ডিআইজি ছিলেন ঢাকায় আটক পার্থ গোপাল বণিক। অভিযোগ আছে, তিনি অবৈধ টাকা কামানোর ক্ষেত্র বানিয়েছিলেন এই কারাগারকে।

এই কারাগারে দর্শণার্থী সাক্ষাৎ, হাসপাতাল ও ওয়ার্ডে বন্দীদের বিশেষ সুবিধা দেয়া এবং ক্যান্টিনে অস্বাভাবিক দামে জিনিসপত্র বিক্রি নিয়ে জুলাই মাসে প্রতিবেদন প্রচার হয় চ্যানেল টোয়েন্টিফোরে।

সম্প্রতি তিনদিন টানা তদন্ত চালিয়ে যার প্রমাণও পায় দুদক। তাতে সবকিছুতেই জড়িয়ে পার্থ বণিক। এরবাইরে কারাগারে মাদক বাণিজ্যের বড় নেটওয়ার্কও গড়ে তোলেন পার্থ বণিকসহ কারা কর্মকর্তাদের একটি চক্র।

এসব অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করতো দুটি পক্ষ। যার একটির নেতৃত্বে ছিলেন পার্থ বণিক, তার সাথে ছিলেন জেল সুপার প্রশান্ত বণিক। অন্যপক্ষের নেতৃত্ব দিতেন ইতোপূর্বে আটক জেলার সোহেল রানা। যাদের প্রতিদিন আয় ৪০ লাখ টাকার কাছাকাছি। এরমধ্যে পার্থ বণিকের পকেটে যেত অন্তত ১০ লাখ টাকা।

এমন দুর্নীতিকে ভয়াবহ বলে মন্তব্য করেছেন দুর্নীতি প্রতিরোধে কাজ করা এই আইনজীবী। পার্থ বণিকের কাছে পাওয়া ৮০ টাকার উৎসও চট্টগ্রাম কারাগার বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

নিউজটির ভিডিও প্রতিবেদন-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর