channel 24

সর্বশেষ

  • খবরের ফেরিওয়ালা ঝুমু রানী দাস

  • মানবতাবিরোধী অপরাধ: জাপার সাবেক এমপিসহ ৮ জনের বিচার শুরু

  • চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী করতে প্রয়োজন বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা

  • বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির শ্রদ্ধা

  • বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কমতির দিকে

  • নিজ সংসদীয় আসন বারানসি সফরে গেছেন মোদি

  • পোশাক শ্রমিকদের ৩০ মে বোনাস, ২ জুনের মধ্যে বেতন দেওয়া হবে

  • ডিএসইতে লেনদেন বাড়লেও কমেছে সিএসইতে

  • চট্টগ্রামে খাদ্যে রাসায়নিক সন্ত্রাস বিষয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত

  • বাংলাদেশ ফেরত প্রবাসীদের পুনর্বাসনের দাবী

  • যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোর আঘাতে ৬ জনের প্রাণহানি

  • কাজের মাধ্যমে জণগণের আস্থা অর্জনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ আইনের মেয়াদ আরও ৫ বছর বৃদ্ধি

  • ফটিকছড়িতে গৃহবধুকে হত্যার পর স্বজনদের হুমকীর অভিযোগ

  • প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফরে বাণিজ্য ও কর্মসংস্থান বাড়ার আশা

অস্ত্রের মুখে ভূমিদস্যুর কব্জায় শিক্ষকের ভিটেমাটি

অস্ত্রের মুখে ভূমিদস্যুর কব্জায় শিক্ষকের ভিটেমাটি

অস্ত্রের মুখে রেজিস্ট্রি নিয়ে যুবলীগ নামধারী সাত ভূমিদস্যু দাবি করছে তারা কিনে নিয়েছে জায়গাটি। এরপর বাড়ি ছাড়তে অনবরত হুমকি-চাপ। ফলে, চট্টগ্রামের আনোয়ারায় বাপদাদার ভিটেমাটি হারিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন সাবেক শিক্ষক, শতবর্ষী নিরঞ্জন চক্রবর্তী ও তার পরিবার। এ নিয়ে মামলা হলেও ধরা ছোঁয়ার বাইরে আসামিরা।

চট্টগ্রামের আনোয়ারা সদরের এলাকায় জীর্ণ মাটিতে পরিবার নিয়ে থাকতেন একসময়কার পন্ডিত শিক্ষক হিসেবে এলাকায় পরিচিত শিক্ষক নিরঞ্জন চক্রবর্তী। কিন্তু সেটিই এখন ভূমিলোভীদের কব্জায়।

অভিযোগ, গত ১০ এপ্রিল অস্ত্রের মুখে এই বসতভিটাসহ আশপাশের প্রায় আটগন্ডা ভূমি নিজেদের নামে লিখে নেয় যুবলীগ নামধারী কামরুল ইসলাম হেলাল, আনোয়ার, মানিকসহ কয়েকজন। পরে তাদের হুমকির মুখে স্বজনদের নিয়ে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য হন শতবর্ষী এই মানুষটি। আশ্রয় নেন অন্যত্র।   

স্থানীয়দের অভিযোগ, তাদেরও হুমকী দিচ্ছে অভিযুক্তরা। আর নিরঞ্জনের সাবেক কর্মস্থল আনোয়ারা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দাবি, সুষ্ঠু বিচারের।

এঘটনায় গত ১৮ এপ্রিল সাতজনকে আসামী করে মামলা মামলা হয়। এখন জড়িতদের ধরতে চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

দায়ীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার মাধ্যমে শংকামুক্ত অবস্থায় বাড়ি ফিরে যাওয়ার পরিবেশ চেয়েছেন ভূক্তভোগীরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর