channel 24

সর্বশেষ

  • কমলাপুর স্টেশনে ট্রেনের বগি থেকে নারীর মরদেহ উদ্ধার

  • ২২ তারিখের বৈঠকে বকেয়া বিষয়ে সিদ্ধান্ত: ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন...

  • পাওনা পরিশোধের নির্দেশনা না এলে...

  • তৈরি হবে অচলাবস্থা: হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন

  • জাতীয় স্কুল মিল নীতিমালার খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন...

  • প্রাথমিকে মোট ক্যালরির ৩০ ভাগ পূরণ করতে হবে স্কুলকে

  • নকশা জালিয়াতি: বনানীর এফ আর টাওয়ারের মালিক ফারুক গ্রেপ্তার

  • খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে না পেরে বিদেশে নালিশ করছে বিএনপি: সেতুমন্ত্রী

  • ডেঙ্গু: ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১,৬১৫ জন: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • ঢাকা, বরিশাল, খুলনা, ফরিদপুর ও ময়মনসিংহে ৬ জনের মৃত্যু

  • বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া নয়, আ.লীগের লোকজন জড়িত: ফখরুল

  • জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা ভিপি নুরের

  • নবম ওয়েজ বোর্ড নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের ওপর আদেশ কাল...

  • সাংবাদিক ছাড়া গণমাধ্যম মালিকদের অস্তিত্ব নেই: আপিল বিভাগ

  • খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কার্যালয়ে দুদকের অভিযান চলছে

  • তিন দিনের সফরে রাতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চট্টগ্রামে টাকা নিয়ে উধাও সমবায় সমিতির পরিচালক

চট্টগ্রামে টাকা নিয়ে উধাও সমবায় সমিতির পরিচালক

কেউ দোকানি, কেউ পোশাক শ্রমিক কেউ দিনমজুর। কিছু লাভের আশায় টাকা জমানো শুরু করেন সমিতিতে। সমিতির পক্ষ থেকেও বলা হয় সদস্যদের প্রয়োজনে ঋন দেয়া হবে, দেয়া হবে জমানো টাকায় লাভ। কিন্তু দুই বছর পর শতাধিক মানুষের কর্ষ্টাজিত জমানো টাকা নিয়ে উদাও সমিতির পরিচালক হাবিবুর রহমান। ছেড়েছেন নগরীর বাসাও। অথচ অর্থ আত্মসাতের মামলা করারও সামর্থ্য নেই সমিতির সদস্যদের। তাই জমানো টাকা ফেরত পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা চান তারা।

চট্টগ্রামের উত্তর কাট্টলির দর্জি মিজানুর রহমান। স্বল্প পুঁজির দোকান, তাই ব্যবসা বাড়াতে লোনের আশায় উদয় কর্মজীবী সমবায় নামে একটি সংস্থায় মাসে দুই হাজার করে টাকা জমাতে শুরু করেন তিনি।

কিন্তু দুবছর পার না হতেই বন্ধ সমিতির কার্যক্রম। লাভ তো দূরের কথা, জমানো টাকা পাওয়া নিয়ে শংকায় এ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি।

একি অবস্থা পোশাক শ্রমিক জয়শ্রী দাশের। দুই সন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে এ সমিতিতে টাকা রাখেন স্বামী হারা এ‌ নারী। কিন্তু এখন নিঃস্ব তিনিও।  

কেবল তারা‌ই নন, এলাকার শতাধিক মানুষের প্রায় ১৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে সমিতির পরিচালক হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে।

তবে গেলো জুনে সমিতির সদস্যরা তাদের পাওনা টাকা ফেরত চাইলে এক সপ্তাহের মধ্যে টাকা ফেরত দেয়ার কথা জানান হাবিবুর।

কিন্তু এরপর থেকে লাপাত্তা তিনি। নগরীর পাহাড়তলি পানির কল এলাকায় সমিতির অফিসে গিয়ে দেখা যায়, বন্ধ সব কার্যক্রম। কাউকে কিছু না বলে ছেড়েছেন বাসাটিও। উল্টো হয়রানির উদ্দেশ্যে মামলা করেন সমিতির কয়েকজনের বিরুদ্ধে।

অর্থ আত্মসাতের ব্যাপারে আইনী সহযোগিতা নেয়ারও সামর্থ্যও নেই দরিদ্র এসব মানুষের। তাই কোন মামলাও করেননি তারা। তবে অর্থ ফিরে পেতে চান প্রশাসনের সহযোগিতা।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম 24 খবর