channel 24

সর্বশেষ

  • করোনার চেয়ে বেশি মানুষ মারা যেতে পারে অনাহারে: অক্সফামের সতর্কতা

  • রংপুরে ৯৩ হাজার হতদরিদ্র পরিবার পায়নি প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার

  • করোনাকালে স্বাস্থ্যখাতের সবচেয়ে বড় দুর্নীতি রিজেন্ট কাণ্ড

  • বাংলাদেশসহ ১৩ দেশের ওপর ইতালির নতুন নিষেধাজ্ঞা

  • নেপালে বন্ধ ভারতের সব টেলিভিশন চ্যানেলের সম্প্রচার

  • চট্টগ্রামে হাসপাতাল বিমুখ রোগীরা

  • দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ ৮ জনের মৃত্যু

  • কোয়ারেন্টিনে ইতালি ফেরত ১৪৭ বাংলাদেশি, রাখা হয়েছে হজ ক্যাম্পে

  • করোনায় মারা গেছেন সাহেদের বাবা

  • সাহারা খাতুন মারা গেছেন

  • পশ্চিমবঙ্গের ক্যান্টনমেন্টে কড়া লকডাউন শুরু

  • ভেঙে ফেলা হচ্ছে স্মৃতি বিজড়িত এফডিসির ৩ ও ৪ নম্বর ফ্লোর

  • ইংল্যান্ডের সাথে টেস্ট সিরিজ বাতিল করতে যাচ্ছে বিসিসিআই

  • বাতিল হচ্ছে ভারত-ইংল্যান্ড ৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ

  • নামিদামি ফার্মেসিতে ভেজাল বিদেশি ওষুধ

টানা দরপতনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পুঁজিবাজারে

টানা দরপতনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পুঁজিবাজারে

গেলো কয়েক মাসের দরপতন, রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে পুঁজিবাজারে। বিশ্লেষকরা বলছেন, আর্থিকখাতের অনিয়ম, তারল্যসংকট ও অনিয়মকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা না নেয়ায় বেহাল অবস্থায় পুঁজিবাজার। উদ্যোক্তা-পরিচালকদের নির্দিষ্ট পরিমাণ শেয়ার ধারণসহ সমন্বিত উদ্যোগ আস্থা ফেরাতে পারে বিনিয়োগকারিদের।

এ যেন উল্টোপথের পথিক। যখন দেশের অর্থনৈতিক সূচকে দেখা মিলছে বড় প্রবৃদ্ধি, তখন পতনের ধারা থেকেই বের হতে পারছে না দেশের পুঁজিবাজার।

চলতি বছরে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ থেকে শুরু হওয়া পতনে, পর্যায়ক্রমে ডিএসই প্রধান সূচক কমেছে প্রায় ১২ শ পয়েন্ট। আর সিএসই হারিয়েছে প্রায় ৩ হাজার ৯শ পয়েন্ট। ফলে দুই স্টক এক্সচেঞ্জের সূচকই নেমে এসেছে তিনবছরের আগের অবস্থায়। এতে আতঙ্কিত বিনিয়োগকারিরা। বিশ্লেষকরা বলছেন এরজন্য দায়ি, আর্থিকখাত ও পুঁজিবাজারে অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা।

এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেডের সিইও মাহবুব এইচ মজুমদার বলেন, রেগুলেটরদের মধ্যে আস্থাহীনতা এবং রেগুলেটরদের প্রতি আস্থাহীনতা এসে পরেছে। তিতাস গ্যাস, বীমা, গ্রামীণফোন এগুলোর যে ঘটনাগুলো ঘটছে এ সকল ঘটোনাগুলোই ক্যাপিটাল মার্কেটে প্রভাব ফেলছে।

ডিবিএর সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমেদ সাদেক বলেন, ব্যাংক লুটেরাদের মধ্যে একজনকেও যদি শাস্তির ব্যবস্থা হতো, মানুষ দেখতো তাহলেও হয়তো কিছু টাকা ফেরত আসতো।

তাদের মতে, পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারিদের আস্থা ফেরাতে, অনিয়মকারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পাশাপাশি, বাড়াতে হবে প্রণোদনা। সেইসাথে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ ও ব্যক্তি শ্রেণীতে ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে করা নীতির বাস্তবায়ন দেখতে চান তারা।

ডিবিএর সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমেদ সাদেক বলছেন, সবাইকে সম্মিলিতভাবে একটি প্রচেষ্টা নিতে হবে, সেই সাথে সব ইনস্টিটিউশন যদি উদ্যেগ নেয় তবে সবার মধ্যে বাজারের উপর আস্থাটা ফিরে আসতো।

সরকারি-বেসরকারি লাভজনক কোম্পানিকে তালিকাভুক্তি উপরও জোর দিলেন এই দুই বিশ্লেষক। 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর