channel 24

সর্বশেষ

  • ফরিদপুরে বাড়ি থেকে স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার

  • রাষ্ট্রপতির দেয়া নৈশভোজে অংশ নিলেন প্রধানমন্ত্রী

  • ঢাকা-১০, বাগেরহাট-৪ ও গাইবান্ধা-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী চূড়ান্ত

  • দেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র বানানোর চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়েছে সরকার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • করোনাভাইরাসে মৃত্যুকূপে পরিণত হতে চলছে প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেস

  • রাজস্ব আদায় হচ্ছে না চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর রেলবন্দর থেকে

  • গরু খেতে পারলে মানুষও খেতে পারবে কচুরিপানা: পরিকল্পনামন্ত্রী

  • সরকার থাকতেও আদালতকে নির্বাহী বিভাগের কাজ করতে হয়; আপিল বিভাগের ক্ষোভ

  • পুলিশ বাঁচালো অটোরিকশা থেকে ছুঁড়ে ফেলা শিশুকে

  • উৎপাদন বাড়িয়ে রপ্তানি পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক করা হবে: চীনের রাষ্ট্রদূত

  • ওসির অনুরোধ 'স্যার ডাকবেন না'

  • 'শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউশন আইন-২০২০' এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

  • গাজীপুরে অবৈধ ইটভাটায় উচ্ছেদ অভিযান

  • নিয়ম ভেঙে কর্ণফুলি নদীর ঘাট ইজারা পছন্দের লোককে দেয়ার চেষ্টা

  • কাপ্তাই লেকে নৌ চলাচলে শৃঙ্খলা আনতে প্রশাসনের কঠোর অবস্থান

১৭ বছরেও স্থলপথে বাণিজ্য সুবিধা চালু হয়নি দর্শনা বন্দরে

১৭ বছরেও স্থলপথে বাণিজ্য সুবিধা চালু হয়নি দর্শনা বন্দরে

পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর ঘোষণা হয় ২০০২ সালে। এরপর কেটে গেছে ১৭ বছর। এখনও স্থলপথে বাণিজ্যসুবিধা চালু হয়নি চুয়াডাঙ্গার দর্শনা বন্দরে। যেখানে সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব আয়ের সুযোগ। প্রয়োজনীয় অবকাঠামোর সবই আছে। কিন্তু পুরো বিষয়টি আটকে আছে শুধু রাজস্ব বোর্ডের একটি এসআরও সংশোধনের অপেক্ষায়।

বাংলাদেশ ভারতের জনগণের মধ্যে বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসাবে ২০০৮ সাল থেকে চলছে এই মৈত্রী এক্সপ্রেস। এই রেলপথেই চলে পণ্যবাহী ট্রেনও। পাশে দিয়ে গেছে সড়ক পথ। চলে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের নিত্য আসা-যাওয়া।

তবে মুদ্রার ওপিঠে সম্ভাবনার সর্বোচ্চ অবস্থায় থাকার পরও দেড়যুগ ধরে অবহেলায় পড়ে আছে দর্শনা। ২০০২ সালে পূর্ণাঙ্গ স্থল বন্দর ঘোষণা হলেও চালু হয়নি আজও। অথচ একই গেজেটে থাকা অন্য বন্দরগুলো চালু পুরোমাত্রায়।

অবকাঠামোর অভাব নেই। বন্দরের টার্মিনালের জন্য বিশাল জায়গা নির্ধারণ করে রেখেছেন স্থানীয়রাই। কাস্টমস স্টেশন, ইমিগ্রেশন ভব্ন, সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আউটপোস্টসহ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের জন্য প্রয়োজনীয় সবই আছে। শুধু একটি এসআরও সংশোধন করে রেলবন্দরের পাশে সড়ক শব্দ যোগ করলেই প্রাণচঞ্চল হয়ে উঠতে পারে দর্শনা বন্দর।

ভারতের অংশেও আছে সব সংস্থার কার্যক্রম। যে এক কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার করা প্রয়োজন সেজন্য জমি দিতেও আপত্তি নেই দুপারের মালিকদের। সংশ্লিষ্ট সব সংস্থাই দিয়েছে ইতিবাচক প্রতিবেদন। দীর্ঘদিন ধরেই তারা নানা মহলে ধর্না দিচ্ছেন বন্দর চালুর জন্য।

দর্শনা পৌরসভার মেয়র মতিয়ার রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই তারা নানা মহলে চেষ্টা করা হচ্ছে বন্দর চালুর জন্য।

রাজস্ব বোর্ডের মোশাররফ হোসেন ভুইঁয়া বলেন, শিগগিরই ঘুঁচবে দর্শনাবাসী দেড়যুগের আফসোস। স্থল বন্দর চালুর জন্য জন্য সড়ক বিভাগকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে বলে জানান রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভুইঁয়া।  

বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্তী বলেন, এলসিএসের কাজ শুরু করা গেলে যেকোন সময় পন্য আসা সম্ভব। এক থেকে দুই বছরের মধ্যেই বন্দরের কাজ সম্পন্ন হবে বলেও জানান বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান।

দর্শনা বন্দরে স্থলপথে আমদানি-রপ্তানি চালু হলে স্থানীয় ব্যবসায়ীরাই উপকৃত হবেন সবচেয়ে বেশি।

নিউজটির প্রতিবেদন ভিডিওতে-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর