channel 24

সর্বশেষ

  • জয়পুরহাটে জরাজীর্ণ বেইলি ব্রিজ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন; যেকোনো সময় বড় দুর্ঘটনার শংকা

  • বারবার ট্রেন দুর্ঘটনা নিয়ে উদ্বেগে যাত্রীরা; রেলপথ নিরাপদ করতে কর্তৃপক্ষের কার্যকর উদ্যোগের দাবি

  • বাজারে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম নিয়ে একে অপরকে দুষছেন আমদানিকারক ও পাইকাররা

  • চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় গ্যাস লাইনে বিস্ফোরণে নিহত ৭

দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সংকটে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া

দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সংকটে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া

সামরিক প্রযুক্তি ও তথ্য খাতে নিরাপত্তা নিশ্চিতে ২০১৬ সালে চুক্তি করে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া। যার মেয়াদ শেষ হবে এ মাসেই। এরই সাথে ভাঙ্গন দেখা দিচ্ছে দুই দেশের সম্পর্কে। চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর আগ্রহ দেখাচ্ছে না সিউল। বিশ্বস্ত বাণিজ্য সহযোগীর তালিকা থেকে জাপানকে সরানোর পরিকল্পনা করছে দক্ষিণ কোরিয়া।

দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ইস্যুতে দক্ষিণ কোরিয়ায় স্মার্ট ডিভাইস চিপসহ বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক পণ্য রপ্তানি কমানোর ঘোষণা দিয়েছে টোকিও। এমন পাল্টাপাল্টি পদক্ষেপের কারণে জাপানের অর্থনীতিই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে জানান বিশ্লেষকরা।

নানা সমস্যার মধ্যে রয়েছে জাপান। নারী ও শ্রম অধিকার ইস্যুতেও বেশ দুর্বল অবস্থানে রয়েছে টোকিও। সব মিলিয়ে বেশ নাজুক অবস্থা বিরাজ করছে জাপানের অর্থনীতিতে। এ অবস্থায় দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে সম্পর্কের অবনতি হলে অর্থনীতিতে ধস নামতে পারে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো না হলে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার অর্থনৈতিক সম্পর্কের অবনতি হবে। সংকট সমাধানে দুই পক্ষকে আলোচনায় বসার আহ্বানও জানিয়েছেন তারা।

জাপান-দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে এ চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো না হলে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যকেও প্রভাবিত করবে। পূর্ব এশিয়ার প্রায় সব দেশেই এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এ সুযোগে এ অঞ্চলে নতুন চাপ প্রয়োগ করতে পারে যুক্তরাষ্ট্র।

রাজনৈতিক সংকটের কারণেই জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্য বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে এর সমাধান করতে পারে দুই দেশের সরকার।

এদিকে দ্বন্দ্ব অবসানে আইটি খাতের জন্য মেধাস্বত্ব চুক্তি করতে চায় দক্ষিণ কোরিয়া। এর মাধ্যমে পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্ভব বলেও দাবি তাদের। আর নতুন কোনো চুক্তির আগে তৃতীয় পক্ষের উপস্থিতিতে বৈঠকের কথা বলছে জাপান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর