channel 24

সর্বশেষ

  • ছাত্রলীগের এমন ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য লজ্জার: ভিপি নুর

  • জঙ্গিবাদ-মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: কাদের

  • ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট হলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায়...

  • পুনরুদ্ধারে কাজ করার অঙ্গীকার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের

  • আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের জন্য সতর্কবার্তা: শেখ সেলিম

  • ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এমন সিদ্ধান্ত: ঢাবি উপাচার্য

  • পুলিশের সেবা নিতে গিয়ে কেউ যেন হয়রানি না হয়: ডিএমপি কমিশনার

  • রংপুর-৩ উপনির্বাচনে প্রার্থিতা নিয়ে আওয়ামী লীগের সাথে...

  • আলোচনা হয়েছে, কালকের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত: রাঙ্গা

  • ৩ মাসের মধ্যে পুঁজিবাজারে নিবন্ধিত হতে হবে সব বিমা কোম্পানিকে...

  • অর্থমন্ত্রীর সাথে বৈঠক শেষে আইডিআরএ চেয়ারম্যান

  • ঋণ পুনঃতফসিলীকরণ নিয়ে টিআইবির বিবৃতিতে কোম্পানির ভাবমূর্তি...

  • ক্ষুণ্ন হওয়ায় প্রতিবাদ জানিয়েছে বেক্সিমকো গ্রুপ

কার্যকরী উদ্যোগের অভাবে সংকটে চামড়া খাত

কার্যকরী উদ্যোগের অভাবে সংকটে চামড়া খাত

দেনা, ঋণ ও দরদাম নিয়ে আগে থেকে সংকটের আভাস থাকলেও সমাধানের উদ্যোগ নেয়নি ট্যানারি মালিক, আড়ৎদার ও সরকার। ফলে এ বছর চামড়া খাত নিয়ে তৈরি হয়েছে নৈরাজ্য। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমলেও নতুন বাজার খোঁজার ক্ষেত্রেও নেয়া হয়নি কার্যকর উদ্যোগ। ফলে বাড়তি সরবরাহ হয়ে উঠেছে গলার কাঁটা।

পশুর চামড়া নিয়ে কমবেশি ব্যস্ততা লেগেই আছে ট্যানারিগুলোতে। কিন্তু এবারের সংকট কিছুটা গতি কমিয়েছে স্বাভাবিক কাজকর্মের। এই সংকটের পেছনে ঠিক কি কারণ দায়ী সেটা নিয়ে আলোচনার ডালপালা ছড়িয়েছেন সবখানে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, এর ফলে প্রান্তিক পর্যায়ে সম্পদের মূল্য ঠেকেছে তলানীতে। ঝুঁকিতে পড়ে গেছে পুরো খাত।

বিশ্ববাজারে পরিবেশ ইস্যুতে বাংলাদেশি চামড়া নিয়ে সংকট তৈরি হয়েছে বহু আগেই। কিন্তু সেটি সমাধানে নেয়া উদ্যোগ বাস্তবায়ন হয়নি সময়মতো। ফলে সেই অজুহাতে দাম কমিয়েছেন ক্রেতারা। যার প্রতিফলন গেলো কয়েক অর্থবছরের রপ্তানি আয়ের নেতিবাচক ধারায়। ধারাবাহিকভাবে আয় কমায়, ট্যানারিগুলোতেও পড়ে আছে অবিক্রিত পণ্য। ফলে, তারাও এবার আগ্রহ কমিয়েছেন কাঁচা চামড়া কেনায়।

এই খাতের বিশ্লেষকরা এখন সংকটের দায় চাপাচ্ছেন সরকার, আড়ৎদার এবং ট্যানারি মালিকদের ওপর। কারণ আগে থেকেই আভাস পাওয়া গেলেও সমাধানের উদ্যোগ নেয়নি কোনো পক্ষই। কয়েক বছর ধরে রপ্তানি পড়ে যাওয়া ঠেকাতেও ছিল না নতুন কোনো কৌশল।

উদ্যোগ আসেনি পরিবেশের উন্নয়ন করে আন্তর্জাতিক সনদ অর্জনে প্রয়োজনীয় যোগাযোগ করার। ফলে একদিকে কাঁচা চামড়ার সরবরাহ বাড়লেও অন্যদিকে সীমিত হয়েছে চাহিদা। যা শেষমেষ গিয়ে প্রতিষ্ঠিত করেছে অর্থনীতির সরল তত্ত্বকে।

মাস তিনেক আগে লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপ ট্যানারি পল্লীর সিইটিপি পরিদর্শন করে পরামর্শ দেয় বেশকিছু সংস্কারের। কিন্তু সেদিকেও খুব বেশি এগুতে পারেনি সরকার।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর