channel 24

সর্বশেষ

  • 'সাহারা খাতুন ছিলেন রাজপথে আন্দোলনের বলিষ্ঠ কণ্ঠ'

  • মিরপুরে সেপটিক ট্যাংক থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার

  • প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর ৮ বার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

  • রাজস্ব আদায়ে অশনিসংকেত; সামষ্টিক অর্থনীতিতে বড় ধরণের প্রভাব পড়ার আশঙ্কা

  • রাস্তায় নারীর মরদেহ; সিসি ক্যামেরার ফুটেজে মিললো খুনির হদিস

  • মৌলভীবাজারে চুরির অপবাদে দুই শিশুকে নির্যাতন

  • হাটহাজারীতে করোনা আক্রান্তদের পাশে তরুণরা

  • সুনামগঞ্জে নদীর পানি বাড়ায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

  • সাহেদের প্রধান সহযোগী তারেক শিবলী ৫ দিনের রিমান্ডে

  • ঝিনাইদহে ঐতিহ্যবাহী তেঁতুল গাছ রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন

  • 'সাহেদের অপকর্ম সম্পর্কে জানতে সময় লাগলেও ছাড় নয়'

  • কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ইএক্সপি যাচ্ছে অনলাইনে; চট্টগ্রাম কাস্টমসে শুল্কায়ন শুরু

  • ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ছুটছে ম্যান ইউ'র জয়রথ

  • করোনার ভুয়া সনদকাণ্ডে ইতালিতে বিপাকে বাংলাদেশিরা

  • দেশে করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৯৪৯

ফ্রিজ-রেফ্রিজারেটরের বাজার দখলে দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলো

ফ্রিজ-রেফ্রিজারেটরের বাজার দখলে দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলো

কোরবানী ঈদের আগে চাহিদা বাড়ে নানা মডেলের ফ্রিজ ও রেফ্রিজারেটরের। খাবার সংরক্ষণের দরকারি এ পণ্যের বাজারে তাইতো এখন চলছে নানা ধরণের ছাড়, উপহার ও কিস্তির ব্যবস্থা। ব্যবসা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারি দেশিয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে নানা সুবিধা দেয়ায় কমেছে এ পণ্যের দাম। ফলে দেশের সর্বসাধারণের হাতের নাগালে এখন প্রয়োজনীয় এ পণ্য।

বেশ কয়েকবছর ধরে দেশে হোম অ্যাপ্ল্যায়েন্সের ব্যবসায় জোয়ার লক্ষ্য করা যায়। বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এক প্রকার কোনঠাসা করেই দেশিয় প্রতিষ্ঠানগুলো একচেটিয়া ব্যবসা শুরু করেছে।

বছর জুড়ে ২০ হাজার কোটি টাকার এ ব্যবসার ১২ হাজার কোটি টাকা হয় শুধুমাত্র ফ্রিজ ও রেফ্রিজারেটরের। যার ৭০ ভাগই হয় কোরবানি ঈদের মৌসুমে।

প্রতি বছর কোরবানি ঈদের আগে বাজারে চাহিদা বাড়ে খাদ্য সংরক্ষণের অন্যতম যন্ত্র ফ্রিজ ও রেফ্রিজারেটরের। দরকারি এ পণ্য কিনতে তাই খরচের একটা অংশ বাঁচিয়ে রাখেন সাধারণ বাঙালি পরিবারগুলো। আগে ধনীদের কাতারে এ পণ্যের নাম নেয়া হলেও এখন দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও সহজেই পাওয়া যায় এ ফ্রিজ কিংবা রেফ্রিজারেটর।

এ ব্যবসার শীর্ষ অংশ বিদেশি প্রতিষ্ঠানের হাতে থাকলেও সময়ের সাথে সাথে তা এখন দেশিয় প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে চলে এসেছে। দেশে কারখানা স্থাপন, কাঁচামাল আমদানিতে ভ্যাট/ট্যাক্সের সুবিধাসহ নানা প্রণোদনায় এখাতের ব্যবসা এখন তুঙ্গে। তাইতো, এ পণ্যের বাজারের শতকরা ৮০ ভাগ এখন দেশিয় প্রতিষ্ঠানগুলোর হাতে।

এবারের ঈদের বাজার দখলের প্রতিযোগীতায় তাই প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানই দিচ্ছে নানা ছাড়-অফার। ১০ হাজার টাকা ফ্রিজ থেকে শুরু করে লাখ টাকার ফ্রিজ, যে মডেলের যে ধরণের কিংবা যে ডিজাইনেরই নেয়া হোক না কেন ক্রেতা আকর্ষণে চলছে নানা আয়োজন।

তবে বাজার দখলের প্রতিযোগিতায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানই এখন কিস্তির সুবিধা দিচ্ছে। মডেল ভেদে ফ্রিজ কিনতে তাই মাত্র ২ হাজার থেকে শুরু হয় কিস্তির অংক। ফলে একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়ছে এ পণ্য। রয়েছে পুরনো মডেল ফেরত দিয়ে নতুন মডেলের ফ্রিজ কেনার অফারও।

সরকারি সকল সুবিধা ও প্রত্যক্ষ সহযোগিতা পাওয়া গেলে বছরজুড়ে এ ব্যবসা আরো সুদৃঢ় অবস্থানে যেতো বলে মত সংশ্লিষ্টদের।

নিউজটির ভিডিও প্রতিবেদন-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর