channel 24

সর্বশেষ

  • অ্যালকোহল কারখানার বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে নদীর পানি; হুমকিতে মাছসহ জলজ প্রাণী

  • অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রধান পিআরও কর্মকর্তার ইন্তেকাল

  • জ্বর ও সর্দি-কাশি নিয়ে আজও প্রাণ গেলো ৯ জনের

  • যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের মনোনয়ন নিশ্চিত

  • 'পোশাক কারখানার শ্রমিক ছাঁটাইয়ের কথা বলেননি বিজিএমইএ সভাপতি'

  • সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে চিকিৎসকসহ ২৭৭ কর্মকর্তা-কর্মচারী বেতন পান না দু'মাস

  • ঢাকাতে করোনা নিয়ে 'দ্য ইকোনমিস্টের' তথ্য সঠিক নয়: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

  • শ'খানেক কর্মহীন পরিবার রাঁধেন এক হাঁড়িতে, পতিত জমিতে ফলান সবজি

  • ডিপ কোমায় সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম

  • পাবনায় ২ জনকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা

  • গণপরিবহন চালুর ষষ্ঠ দিনেও তুলনামূলক যাত্রী কম রাজধানীতে

  • কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে এখনও অগ্নিগর্ভ যুক্তরাষ্ট্র

  • ক্রিকেট বোর্ডের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন, ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত অনুশীলনের অনুমতি

  • পাকিস্তানি নারী ক্রিকেট দলের কোচ বরখাস্ত

  • জার্মান লিগে রাতে আলাদা ম্যাচে নামছে বায়ার্ন-ডর্টমুন্ড

রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য অর্জনে করজাল বাড়ানোর উদ্যোগ

রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য অর্জনে করজাল বাড়ানোর উদ্যোগ

চলতি বাজেটে কর আদায়ে বেশি কিছু প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। সেই প্রস্তাবে মধ্যে, বিদ্যুৎ সংযোগ বা জমি বেচা-কেনার ক্ষেত্রে কর শনাক্তকরণ নম্বর বা টিআইএন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সেই সাথে বিদেশীরা স্থায়ীভাবে দেশে বাণিজ্য করতে তাদেরও কর রিটার্ন দালিখের কথা বলে হয়েছে। সব মিলিয়ে কর আদায়ের খাত বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। বাজেটের এমন প্রস্তাবকে সাধুবাদ দিচ্ছেন কর বিশেষজ্ঞরা।

প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। আর লক্ষ্য অর্জনে নেয়া হয়েছে বেশকিছু নতুন উদ্যোগ।

এই যেমন বিদ্যুৎ সংযোগে কর শনাক্তকরণ নম্বর বা টিআইএন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। জমি বেচাকেনায়ও লাগবে টিআইএন। তুলে দেয়ার প্রস্তুাব করা হয়েছে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কেনায় কর রেয়াত সুবিধা। আয়করের আওতায় আসছে অনাবাসী ব্যবসায়ীরাও।

রাজস্ব বাড়াতে এসব প্রস্তাবকে সাধুবাদ জানালেও, কর আদায় যে বড় চ্যালেঞ্জ হবে তাই মনে করিয়ে দিলেন রাজস্ব বোর্ডের সাবেক এই চেয়ারম্যান।

করের আওতা বাড়ানোর এসব উদ্যোগকে স্বাভাবিকভাবেই দেখছেন সাধারণ জনগণ। তবে নিম্নআয়ের মানুষের কাঁধে যেনো করের বোঝা না চাপে সেদিকেও নজর দেয়ার পরামর্শ তাদের।

উন্নয়নের ধারা বজায় রাখতে হলে এটি দরকার। তবে নিম্ব আয়ের মানুষের  যেন কষ্ট না হয়। টিন না থাকলে কোনো কিছুই সুযোগ দেয়া উচিৎ না।

তাদের দাবি, কর আদায়ে দূর করা হোক সব ধরনের হয়রানি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর