channel 24

সর্বশেষ

  • ফিক্সিং অভিযোগ তদন্তে সাঙ্গাকারা ও জয়াবর্ধনকে তলব

  • প্রস্তুত হচ্ছে মিরপুর সহ দেশের আট ক্রিকেট ভেন্যু

  • করোনা পরবর্তী সময়ে সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জ পেসারদের: রুবেল

  • টয়োটাকে পেছনে ফেলে পুঁজিবাজারে শীর্ষস্থানে টেসলা

  • রোহিঙ্গাদের ৩০৪ কোটি টাকা দেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

  • স্বাধীনতার পর সর্বোচ্চ রেমিট্যান্সের রেকর্ড

  • রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে দেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • বাজেটের কপি ছিঁড়ে সংসদের চরম অবমাননা করেছেন: কাদের

  • যেকোনো দুর্যোগে মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী

  • আবারও ক্রিকেটে ফিরতে মরিয়া পেসার আল আমিন

  • স্বাস্থ্য বিভাগ শতভাগ ভূমিকা পালন করতে পারছে না: সচিব

  • অপহরণের ৩ মাস পর ড্রামে মিললো ব্যবসায়ীর মরদেহ

  • বৈধ ভিসা নিয়ে যাওয়ার পরও ভারতে দুই মাস ধরে বন্দি ২৫ বাংলাদেশি

  • বরিশাল মেডিকেলে ইন্টার্ন চিকিৎসককে উত্ত্যক্তের অভিযোগে দুই কর্মচারীকে মারধর

  • লালমনিরহাটে বজ্রপাতে ৪ জনের মৃত্যু

যেকোন দেশের চেয়েই পোশাকের দাম কম পাচ্ছে বাংলাদেশ

যেকোন দেশের চেয়েই পোশাকের দাম কম পাচ্ছে বাংলাদেশ

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি পরিবেশবান্ধব তৈরি পোশাক কারখানা এখন বাংলাদেশে। রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পর কর্মপরিবেশের উন্নয়নও চোখে পড়ার মত। তারপরেও গেল ৫ বছরে ক্রেতারা পোশাকের দাম বাড়ানোর বদলে উল্টো কমিয়েছেন। কারণ হিসেবে উদ্যোক্তারা দুষছেন নিজেদের অসম প্রতিযোগীতাকেই। এজন্য বিশ্লেষকদের পরামর্শ, পণ্যের সর্বনিম্ন দাম নির্ধারণের যা মানতে হবে সবাইকে।

তৈরি পোশাকের প্রায় সাড়ে ৪শ বিলিয়ন ডলারের বিশ্ববাজারে বহুদিন ধরেই দ্বিতীয় শীর্ষ অংশীদার বাংলাদেশ। যদিও শীর্ষস্থানীয় চীনের সাথে ব্যবধানটা যেন দুই মেরুর দূরত্ব।

গেল ৪ দশকে এই খাত পরিণত হয়েছে অনেক। একটু একটু করে একসময় দখল করে নিয়েছে দেশের মোট রপ্তানির ৮৩ ভাগ, যা জিডিপির প্রায় ১৩ শতাংশ।

তবে এখনো শার্ট, ট্রাউজার কিংবা টি-শার্টের মত মৌলিক ৫টি পণ্য থেকেই আসে পোশাক রপ্তানির ৭৩ ভাগের বেশি। যার বেশিরভাগই আবার যায়, আমেরিকা ও ইউরোপের মাত্র ৩-৪টি দেশেই। তবে সমস্যা হল এসব বাজারেই দাম পাচ্ছে না বাংলাদেশ।

রানা প্লাজা ধ্বসের পর দেশে একের পর একে বিশ্বমানের সবুজ কারখানা হয়েছে, কাজের পরিবেশের মানোন্নয়ন হয়েছে, তবে প্রতিশ্রুতি দিয়েও ক্রেতারা পোশাকের দাম বাড়ানোর বদলে উলটো কমিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে যা গেল ৫ বছরে কমেছে গড়ে দশমিক ৮২ শতাংশ হারে। হিসাব অনুযায়ী, মার্কিনিদের আটিতে পোশাক রপ্তানি করে প্রতিযোগী চীন বাদে বাকি সব দেশের চেয়েই কম দাম পায় বাংলাদেশ। প্রতি স্কয়ার মিটারে বাংলাদেশ যেখানে পায় ২ দশমিক ৮ ডলার, সেখানে ভিয়েতনাম ৩ দশমিক ৩, ভারত সাড়ে ৩ আর ইন্দোনেশিয়া পায় প্রায় ৪ ডলার। তবে ইউরোপের বাজারে অবস্থা আরো খারাপ। এখানে প্রতি কেজি কাপড় রপ্তানি করে চীন, ক্যাম্বোডিয়া, ভারত কিংবা ভিয়েতনাম। যেকোন দেশের চেয়েই কম দাম পাচ্ছে বাংলাদেশ।

অধিকার নিয়ে কাজ করা এমস্টারডাম ভিত্তিক সংগঠন ফেয়ার ওয়ার ফাউন্ডেশনের হিসাবে বাংলাদেশ থেকে কেনা একটি পোলো শার্ট পশ্চিমে বিক্রি হচ্ছে প্রায় ৫ গুণ বেশি দামে। দেশের শ্রমিকরা পান যে দামের মাত্র ৩ শতাংশ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর