channel 24

সর্বশেষ

  • দানবীর রণদা প্রসাদ হত্যায় মাহবুবুরের ফাঁসির আদেশ

  • প্রকাশ্যে স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ১২জনের নামে মামলা, আটক ১

  • নোয়াখালীতে পরিত্যক্ত ভবনে চলছে হাসপাতালের বহির্বিভাগ ও প্রশাসনিক কাজ

  • বাড়ছে নেইমারের বার্সেলোনায় ফেরার গুঞ্জন

  • কিশোরগঞ্জে চুরির অপবাদ দিয়ে যুবককে নির্যাতন

  • আর্জেন্টিনার অনুশীলনে বাধা ব্রাজিলের প্রচন্ড গরম

  • বগুড়ায় আস্থা ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা

  • নরসিংদীর অগ্নিদগ্ধ কলেজছাত্রী ফুলনের শেষকৃত্য সম্পন্ন

  • আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি ভারত

  • অবসরের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এলেন গেইল

  • গোপালগঞ্জে সড়কের মাঝে বৈদ্যুতিক খুঁটি রেখেই সংস্কার কাজ

  • টঙ্গীর আবাসিক এলাকায় মিলের কালো ধোঁয়ায় অতিষ্ট জনজীবন

  • নকআউট পর্বে প্রথমেই প্যারাগুয়ের মুখোমুখি ব্রাজিল

  • পাবনায় ভাতিজার হাতে চাচা খুন

  • নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনালের সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রাখলো পাকিস্তান

যেকোনো করদাতার তথ্য জানা ও জব্দ করার ক্ষমতা চায় দুদক

যেকোনো করদাতার তথ্য জানা ও জব্দ করার ক্ষমতা চায় দুদক

দুর্নীতি দমন কমিশনের কর্মকর্তারা প্রয়োজন মনে করলে, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে যেকোনো ব্যক্তির তথ্য নিতে পারবেন। এমনকি চাইলে সেগুলো জব্দও করতে পারবেন। এমন সব সুবিধা রেখে দুদক আইনের সংশোধন প্রস্তাব করেছে সংস্থাটি। তবে, বিশ্লেষকরা এটিকে নেতিবাচক হিসেবেই দেখেছেন। তাদের মতে, এতে সৎ ও সাধারণ করদাতারা হয়রানির শিকার হতে পারেন। এমনকি কর আদায়েও এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশংকা রয়েছে।

সক্ষম করদাতারা আয় অনুযায়ী কর দেবেন, এটাই নিয়ম। এর ব্যত্যয় হলে কর ফাঁকির দায়ে ওই করদাতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে কর বিভাগ। সারা বিশ্বে এটাই রীতি।

করদাতার সম্পদ ও আয়ের তথ্য কর বিভাগে জমা থাকে। বলা যায়, কর বিভাগ হচ্ছে করদাতার সংবেদনশীল তথ্যের জিম্মাদার। প্রয়োজনের বাইরে ওই তথ্যের ব্যবহার বা অন্য কারও হাতে দেয়ারও সুযোগ নেই।

তবে, এবার কর বিভাগের এ এখতিয়ারে হস্তক্ষেপ পড়তে যাচ্ছে দুদকের। দুদক আইনে একটি সংশোধনী আনার প্রস্তাব করা হয়েছে।

যার ফলে দুদক কর্মকর্তারা কোনো গ্রহণযোগ্য অভিযোগ ছাড়াই যে কারও আয়কর নথি তলব করতে পারবেন। এমনকি যে কারও আয়কর সংক্রান্ত নথিপত্র জব্দও করতে পারবেন। যা আয়কর আইনের সাথে সাংর্ঘষিক। এ প্রস্তাবনা এখন ভেটিং পর্যায়ে রয়েছে।

বিশ্লেষকদের মতে, বিষয়টি বাস্তবায়ন হলে হয়রানির সম্মুখীন হতে পারেন অনেকেই। এনবিআর-দুদক সমনম্বয়ের পাশাপাশি জবাবদিহীতা, স্বচ্ছতা ও সুশাসন নিশ্চিত করার পরামর্শ তাদের।

এনবিআরের কর কর্মকর্তারা এ বিষয়ে ক্যামেরার সামনে কথা না বললেও তারা জানান, এ ধরনের আইন অনুমোদন হলে, কর আদায়ে বিরূপ প্রভাব পড়বে। করদাতারা আতংকিত হয়ে কর দেয়ায় নিরুৎসাহিতও হতে পারেন। অথচ সরকার হয়রানিমুক্ত ভাবে কর আদায় করতে চাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর