channel 24

সর্বশেষ

  • নুসরাত হত্যা: সাবেক ওসি মোয়াজ্জেমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ...

  • মামলার পরবর্তী তারিখ ৩০ জুন

আলুর রপ্তানি বৃদ্ধিতে প্রয়োজন কার্যকরি পদক্ষেপ

আলুর রপ্তানি বৃদ্ধিতে প্রয়োজন কার্যকরি পদক্ষেপ

দেশের চাহিদা মিটিয়েও প্রতিবছর বাড়তি থেকে যাচ্ছে লাখ লাখ টন আলু। তবে মিলছেনা তেমন কোন সুফল। কারণ একদিকে বাণিজ্যিকভাবে দেশে আলুর বহুমুখী ব্যবহার নেই। অন্যদিকে রপ্তানির ক্ষেত্রে যে ধরনের আলুর চাহিদা রয়েছে সেটির উৎপাদনও নিশ্চিত করা যাচ্ছেনা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বাণিজ্যিকভাবে আলুর বহুমুখী চাহিদা তৈরী করতে হবে। রপ্তানি বাড়াতে দেশে কেউ উন্নত জাতের আলু চাষ করতে চাইলে সহায়তা করতে হবে। আর শুধু এ পণ্যের চাষ না করে অন্য যেসব ফসলের ঘাটতি রয়েছে সেগুলোর চাষ বাড়াতে হবে।

বাংলাদেশে তরকারির উপাদান হিসেবে আলুর ব্যবহার অনেক। তবে এরপরও প্রতিবছরই উদ্বৃত্ত থেকে যাচ্ছে বিপুল পরিমাণ আলু।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাবে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরের উৎপাদন হয় সাড়ে ৯৪ লাখ টন আলু। ২০১৬-১৭তে এসে যা দাঁড়ায় ১ কোটি ১৩ লাখ টন।

পরের বছর ১০ লাখ টন কম উৎপাদন হলেও পরিমাণ ছিল এক কোটি টনের ওপরে। যেখানে বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৭০ লাখ টন।

এদিকে, প্রতিবছরই কমছে পণ্যটির রপ্তানি। ২০১৩-১৪ অর্খবছরে রপ্তানি হয় ১ লাখ টনের কিছু বেশি। শেষমেষ গেল অর্থবছরে যা এসে ঠেকেছে ৫২ হাজার টনে।

বাংলাদেশে যে ধরনের আলু চাষ হচ্ছে বহির্বিশ্বে এ জাতের আলুর চাহিদা নেই বললেই চলে। ফলে উন্নত মান নিশ্চিত না করতে পারায় চার বছরে রপ্তানি নেমে এসেছে অর্ধেকে।

বাণিজ্য মন্ত্রীর হিসাবে প্রয়োজনের চেয়েও ৩৫ লাখ টন অতিরিক্ত উৎপাদন হচ্ছে পণ্যটি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর