channel 24

সর্বশেষ

  • চ্যারিটেবল মামলা: হাইকোর্টে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন; শুনানি মঙ্গলবার

  • রয়্যাল রিগ্যালিয়া মিউজিয়াম পরিদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • সরকারের কাছে মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার পূরণ হয়েছে বলেই...

  • নির্বাচনে ভোটারের সংখ্যা কমেছে: রাজশাহীতে ইসি সচিব

  • অর্থনীতিতে সরকারের ১০০ দিন উদ্যমহীন...

  • বৈদেশিক ঋণের দায় শোধ সামনের চ্যালেঞ্জ: সিপিডি

  • ত্রুটিমুক্ত রেজাল্টসহ ৫ দফা দাবিতে নিউমার্কেট মোড় অবরোধ করে...

  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ৭ কলেজের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

  • শ্রীলঙ্কা ট্র্যাজেডি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩২১; আটক ৪০...

  • দেশটিতে পালিত হচ্ছে রাষ্ট্রীয় শোক; জরুরি অবস্থা জারি...

  • আইএসের সাথে মিলে স্থানীয় জঙ্গিগোষ্ঠী এনটিজে হামলা চালায়: মনিরুল..

  • শেখ সেলিমের নাতি জায়ানের মরদেহ আনা হবে কাল: হানিফ

  • ভারতে লোকসভা নির্বাচন: ৩য় দফায় ১১৭ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে...

  • গুজরাটের আহমেদাবাদে ভোট দিলেন নরেন্দ্র মোদি

ফারমার্স ব্যাংকের মন্দ ঋণ

ফারমার্স ব্যাংকের মন্দ ঋণ

সাগরের লোনাজলে কিছু ভুঁইফোড় ইয়ার্ড মালিক ডুবিয়েছে, ফারমার্স ব্যাংককে। শুধু শিপ ব্রেকিংকে কেন্দ্র করে ব্যাংকটির বর্তমান খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে, দেড়শো কোটি টাকার বেশি। সদ্য সমাপ্ত ফাংশনাল অডিট প্রতিবেদনে বলছে, কয়েকজন পরিচালকের ব্যক্তিগত স্বার্থে দেয়া হয়েছিল এ সব ঋণ। যা বিতরণে মানা হয়নি কোনো নিয়ম।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের জাহাজভাঙ্গা শিল্প। স্বল্প শ্রমে অধিক মুনাফার লোভে এখানে ডুবেছে অনেক ব্যাংক। অতীত থেকে শিক্ষা না নিয়ে ফারমার্স ব্যাংকও এখাতে নিজেকে ডুবানোর খেলায় মেতে উঠেছিল। ব্যাংকের ফাংশনাল অডিট রিপোর্ট বলছে, নিছক মুনাফা জন্য নয় বরং ভুঁইফোড় বিভিন্ন শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডকে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে একাধিক পরিচালকের বাঁধনছাড়া জোগসাজশও ব্যাংকটিকে ডুবানোর জন্য দায়ী ছিল। এরকমই একটি খেলাপি প্রতিষ্ঠান এফএমএস শিপইয়ার্ড। সরেজমিনে যার দেখা মেলেনি গোটা শীতাকুণ্ডে।

আরও জানতে: ফারমার্স ব্যাংক থেকে ঋণের নামে অর্ধশত কোটি টাকা লোপাট

ইয়ার্ড না থাকলেও অফিস তো থাকবে। ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানটির ঠিকানা ৫০০ ডিটি রোড, কদমতলী। এ ঠিকানায় যেয়ে পাওয়া যায় হাজী তৈমুর বর্ডিং। এখানে ঋণ গ্রহিতার মালিকানাধীন আরেক প্রতিষ্ঠান আলি এন্টারপ্রাইজের নাম সর্বস্ব সাইনবোর্ড থাকলেও তাতে ঠাই হয়নি এফএমএস ইস্পাতের নাম। এমনকি মাসের পর মাস বন্ধ থাকা এই ঠিকানায় এমন নামের কোন প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড অতীতেও ছিল না বলে জানান বাড়ির মালিক।

বিস্ময়কর হলো এই বর্ডিং এরই দুটি কক্ষকে এফএমএস ইস্পাত শিপ ব্রেকিংয়ের অফিস দেখিয়ে ব্যাংক থেকে নিয়েছে ২০ কোটি টাকা। যা বর্তমানে খেলাপি ও সুদে আসলে দাড়িয়েছে ২৭ কোটি ৭৮ লাখ টাকারও বেশি। যদিও এই ঋণের বিষয়ে মিডিয়াকে কোন তথ্য জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন ঋণ গ্রহিতা প্রতিষ্ঠানের মালিক ফরিদুল আলম।

আরও জানতে: টয়লেটের ফ্লাশ নষ্ট হওয়ায় ফ্লাইট বাতিল!

এফএমএস ইস্পাত ছাড়াও ঋণ নিয়মাচার না মেনে, শীতল এন্টারপ্রাইজের নামে ৭৪ কোটি ১৫লাখ এবং শাহেদ শীপ ইয়ার্ডকে ৩৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা ঋণ দিয়েছিল তৎকালীন পরিচালনা পর্ষদ। খেলাপি ওই দুটি ঋণ সুদ আসলে বর্তমানে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ৭৭ কোটি ৭৫ লাখ এবং ৪৬ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। ব্যাংকের ৩০ ডিসেম্বর ভিত্তিক সদ্য সমাপ্ত ফাংশনাল  অডিট প্রতিবেদনে এসব ঋণের বিষয়ে বলা হয়েছে, ব্যাংক ব্যবস্থাপনায় সরাসরি হস্তক্ষেপ ও অবৈধ প্রভাব বিস্তার করে ঋণ প্রস্তাবনায় সরাসরি সুপারিশ করে ঋণ বিতরণের ব্যবস্থা করেন ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর গংরা। এর মধ্য দিয়ে ব্যক্তিগতভাবে ওরাই লাভবান হয়েছেন মর্মে প্রতিবেদনে বলা হয়। এখন এসব ঋণ আদায়ে তাদের সহযোগিতা চেয়েও কোন সাড়া পাচ্ছে না ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

অবশ্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষের দাবি, তারা যে কোন মূল্যেই এসব খেলাপি ঋণ আদায়ের ব্যবস্থা করবেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর