channel 24

সর্বশেষ

  • জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে যোগ দিতে...

  • নিউইয়র্ক যাওয়ার পথে যাত্রাবিরতিতে লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী

  • কক্সবাজারের উদ্দেশে সড়ক পথে আ.লীগের সাংগঠনিক সফর শুরু...

  • নির্বাচনে জনপ্রিয় ব্যক্তিদের মনোনয়ন দেয়া হবে: কুমিল্লায় সেতুমন্ত্রী

  • রেলপথের মতো সড়কপথের প্রচারণাতেও ব্যর্থ হবে আ.লীগ: রিজভী

  • ২০১৮'র শেষ অথবা ২০১৯'র শুরুতে জাতীয় নির্বাচন: সিইসি...

  • আইনগত ভিত্তি পেলেই ইভিএম ব্যবহার করা হবে

  • নরসিংদীতে ব্রহ্মপুত্র নদে নৌকাডুবি; ভাইবোনসহ ৩ জনের মৃত্যু

আর্জেন্টিনায় লাগামহীন মূল্যস্ফীতি

আর্জেন্টিনায় লাগামহীন মূল্যস্ফীতি

ব্যাংক ঋণের সুদহার ৬০ শতাংশ নির্ধারণ করার পরও চলতি বছরে আর্জেন্টাইন পেসোর মান নেমেছে অর্ধেকের নিচে। একদিকে দেশটিতে দেখা দিয়েছে তীব্র মুদ্রা সংকট। অন্যদিকে লাগামহীন হয়ে পড়েছে মূল্যস্ফীতি। বেড়েছে জীবনযাত্রার ব্যয়। এই তীব্র সংকট মোকাবেলায় ব্যয় সংকোচন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আর্জেন্টিনা সরকার। মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে গেলো সপ্তাহে আবারো সুদহার বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তবে সমালোচনার মুখে পড়েছে সরকারের পদক্ষেপ।

বেশ কয়েক বছর ধরে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে আর্জেন্টিনা। দেখা দিয়েছে তীব্র মুদ্রা সংকট। লাগামহীন হয়ে পড়েছে মূদ্রাস্ফীতি। অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল- আইএমএফ থেকে ঋণ চেয়েছে বুয়েন্স আয়ার্স। গেলো জুনে ৫ হাজার কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন দেয় সংস্থাটি। এদিকে পেসোর মান বাড়াতে ব্যাংক ঋণের সুদহার ১৫ শতাংশ বাড়ায় আর্জেন্টিনার কেন্দ্রীয় ব্যাংক। অন্যদিকে তীব্র মুদ্রা সংকট মোকাবেলায় ব্যয় সংকোচন কর্মসূচির ঘোষণা দেন আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মরিসিও মাকরি।

এই সংকটের সুষ্ঠু সমাধান হবে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় সময়োপযুগী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। পরবর্তী প্রজন্মের নিশ্চিত ভবিষ্যতের জন্য কাজ করছে সরকার। ভবিষ্যতে এই ধরনের সংকট আর দেখা যাবে না। সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে এমন সংকটের সমাধানের ঘটনা আর্জেন্টিনার জন্য এবারই প্রথম। মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি দরিদ্রতা দূরীকরণ প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যেই কাজ করছি। কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও সরকারের পদক্ষেপ ইস্যুতে বিভক্ত হয়ে পড়েছে আর্জেন্টিনার জনসাধারণ। আইএমএফের ঋণকে বোঝা হিসেবে উল্লেখ করছেন অনেকেই। আবার কারো কারো মতে, সংকট মোকাবেলায় সঠিক পথেই আছেন প্রেসিডেন্ট মাকরি।

মাকরির পরিকল্পনায় আস্থা রাখতে পারছি না। শুধু ঘোষণা দিয়েই দায়িত্ব শেষ করেন তিনি। পুঁজিবাজারে পতন, মুদ্রাস্ফীতিসহ দেশের অর্থনীতি নানা সংকটে থাকলেও কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছেন না তিনি। বরং ঋণের বোঝা ভারী করছেন। আমাদের অর্থনীতি ১ যুগের বেশি পিছিয়ে পড়েছে। এ থেকে উত্তরণ প্রচেষ্টায় মাকরির পদক্ষেপকে স্বাগত জানাই। আগামী বছর থেকে ধীরে ধীরে আগের রূপে ফিরবে আর্জেন্টিনা। ২০২৩ সালের মধ্যে অর্থনীতি আবারো চাঙ্গা হবে। এদিকে সরকারি ব্যয় সংকোচনের মাধ্যমে সংকট মোকাবেলার নির্দেশনা দেয় আইএমএফ। এর পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান মন্ত্রিসভা থেকে অন্তত ১০ জন বরখাস্ত করা হতে পারে বলে জানায় দেশটির বিভিন্ন গণমাধ্যম।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর