channel 24

সর্বশেষ

  • তাজিয়া মিছিলের নিরাপত্তায় সর্বোচ্চ ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার

  • কোটা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পাল্টাপাল্টি মিছিল

  • একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচার কাজ শেষ; রায় ১০ অক্টোবর

  • ইভিএম কিনতে ৪ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন একনেকে

  • বিএনপি নেতা আমীর খসরুর সম্পদ অনুসন্ধানে দুদকের অভিযান

  • ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭.৮৬ শতাংশ: পরিকল্পনামন্ত্রী

মুরগি ও মাছের খাবার তৈরিতে ট্যানারির বর্জ্য ব্যবহারের অভিযোগ

মুরগি ও মাছের খাবার তৈরিতে ট্যানারির বর্জ্য ব্যবহারের অভিযোগ

ব্রয়লার, লেয়ার ও মাছের খাবারের চাহিদা এখন দেশের তৈরি ফিডমিল থেকেই মেটানো হচ্ছে। বেশিরভাগ ফিড বা খাবার মানসম্পন্ন হলেও; ছোট কিছু ফিডমিলের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে ট্যানারির বর্জ্যসহ অস্বাস্থ্যকর উপকরণ ব্যবহারের। তাই নজরদারি বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন, পোল্ট্রিখাত সংশ্লিষ্টরা।

কেবলই বের হয়েছে বাচ্চাগুলো। প্রতিটির ওজন ৩০ থেকে ৪০ গ্রাম। নিবিড় পরিচর্যা ও বিশেষ খাবার বা ফিড খেয়ে এক-দেড় মাসে এসব বয়লার মুরগির ওজন হয় দেড় থেকে ২ কেজি ।

বয়লার, লেয়ার ও মাছসহ যেসব প্রাণি খামারে চাষ করা হয়, তাদের দ্রুত বৃদ্ধির পেছনে বড় ভূমিকা রাখে ফিড। প্রয়োজনীয় ভিটামিন, মিনারেল ও প্রোটিনের সংমিশ্রনে বিশেষভাবে তৈরি করা হয় এসব খাদ্য।

বিশাল চাহিদা মাথায় রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছে ফিডমিল। বেশির ভাগ ফিড তৈরিতে মানবস্বাস্থ্য বিবেচনায় থাকলেও অনেক সময় ট্যানারির বর্জ্যসহ অস্বাস্থ্যকর উপকরণ ব্যবহারেরও অভিযোগ ওঠে। পোল্ট্রি শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর জন্য সুনাম নষ্ট হচ্ছে তাদের।

অসাধু ব্যবসায়ীদের ধরতে ফিডমিলগুলোতে নজরদারি বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন পোল্ট্রি খাত সংশ্লিষ্টরা। একজন প্রাণী বিশেষজ্ঞ বলছেন, নিয়মিত পরিদর্শনের পাশাপাশি অল্প পুঁজির ফিডমিলগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে আর্থিক প্রণোদনা দিতে পারে সরকার।

বিনিয়োগকারীরা বলছেন, সরকারের সহায়তা পেলে ভবিষ্যতে আরও এগিয়ে যাবে পোল্ট্রি খাত।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর