channel 24

সর্বশেষ

  • দুর্নীতি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য...

  • ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তার

  • পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত কোনো ধরনের উন্নয়ন প্রকল্পের অনুমোদন...

  • ঘোষণা, ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের ওপর...

  • নিষেধাজ্ঞা দিয়ে সরকারকে নির্বাচন কমিশনের চিঠি

  • রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সাথে সভা না করতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগসহ...

  • সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগকে চিঠি দেবে কমিশন: ইসি সচিব...

  • নির্বাচন কমিশন স্বাধীন প্রতিষ্ঠান, কারও চাপে সিদ্ধান্ত নেয় না

  • শেখ হাসিনা ২টি ও বাকিরা একটি আসনে মনোনয়ন পাচ্ছেন...

  • কক্সবাজারে বদি ও টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে আমানুর রহমান...

  • আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাচ্ছেন না: ওবায়দুল কাদের...

  • ২৪/২৫ নভেম্বর নাগাদ মহাজোটের প্রার্থিতা ঘোষণা

  • সম্পদের তথ্য গোপন: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য...

  • ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার ৩ বছরের কারাদণ্ড

  • এবার সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে...

  • কোনো পর্যবেক্ষণ সংস্থা দায়িত্ব পালনে অনিয়ম করলে ব্যবস্থা: ইসি সচিব

  • তৃতীয় দিনের মতো চলছে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার

  • গুলশানে জাপার মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠান চলছে...

  • জাতীয় পার্টি যে জোটে তারাই ক্ষমতায় আসবে: রুহুল আমিন হাওলাদার

শ্রম আর প্রযুক্তির মিশেলে সাংহাই সমুদ্র বন্দর এখন শ্রেষ্ঠত্বের কাতারে

শ্রম আর প্রযুক্তির মিশেলে সাংহাই সমুদ্র বন্দর এখন শ্রেষ্ঠত্বের কাতারে

বাণিজ্য সম্প্রাসারণ ও বাজার দখলের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে যুগের পর যুগ ধরে লড়াই করে চলছে চীন। দেশের পণ্য বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে তৈরী করছে সমৃদ্ধ সমুদ্র বন্দর। সাংহাই বন্দর যেন তারই কথা বলে। শ্রম আর প্রযুক্তি মিশেলে এ বন্দর আজ বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বন্দরের তালিকায়।

মেঘের রাজ্য পেরিয়ে বর্ণিল আলোকছটায় উদ্ভাসিত নগরীর নাম সাংহাই।

চীনের বাণিজ্যকে টিকিয়ে রাখতে যে কয়েকটি বন্দর কখনই ঘুমায় না তাদের মধ্যে পোর্ট অব সাংহাই অন্যতম। যাত্রা শুরু ১৬৮৪-তে। সমুদ্রগামী জাহাজগুলো এখান থেকেই ছেড়ে যেতে শুরু করে সূদুর গন্তব্যে। ১৮৪২ সালে খুলে দেয়া হয় আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের জন্য।

কালের আবর্তে এ বন্দরটি হয়ে উঠে ইতিহাসের অন্যতম অংশ। বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালীন সময়ের পর থেকে আগ্রাসী হয়ে উঠতে থাকে সাংহাই। কসমোপলিটন এ নগরী সবারই নজর কাড়ে। বাড়তে থাকে বিনিয়োগ, বাণিজ্য বসতি লক্ষী যেন ধরা দেয় নিয় গুনে।

বেশ গতিশীলতার সাথে উন্নয়ন ঘটে অবকাঠামোর। ২০০৩ সালে সাংহাই ইন্টারন্যাশনাল পোর্ট গ্রুপ যাত্রা শুরু করে। উশুংকু, ওয়াইগাওকুই আর ইয়াংশান এলাকা যুক্ত হয় পোর্ট অব সাংহাইয়ের সাথে। কন্টেইনার পরিচালন, সক্ষমতা বৃদ্ধি, ভারী কাজের নতুন যন্ত্রাংশের ব্যবহার বাড়তে থাকে। ২০০৬ সালে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম বন্দরের সৌভাগ্য জুটে সাংহাইয়ের কপালে। সে বছরই ৫৩৭ মিলিয়ন কার্গো, ২০০৭ সালে ৫৬০, ২০০৮ সালে ৫৮২ ও ২০০৯ সালে ৫৯০ মিলিয়ন টন কার্গো পরিচালন করে এ বন্দর। আর ২০১৭ তে এসো যা ছাড়িয়েছে দ্বিগুণেরও বেশি।

সময়ের সাথে তাল মিলাতে তাই ইয়ানজি নদীর অববাহিকায় বাড়ছে ব্যস্ততা। তবুও থেমে থাকেনি উন্নয়ন। ৩ হাজার ৬১৯ বর্গ কিলোমিটার জায়গার এ বন্দর যেন আজো স্বমহিমায় ঘোষণা দেয় চীনের বাণিজ্য সম্প্রসারণ নীতির।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর