channel 24

সর্বশেষ

  • প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় ঢাবি 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায়...

  • পাস করা শিক্ষার্থীদের ফের পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত: উপাচার্য

  • মানহানি মামলা: ব্যারিস্টার মইনুলকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ

  • ২৬ অক্টোবর সংসদীয় কমিটির বৈঠকের পর...

  • নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত: সেতুমন্ত্রী

  • ব্যারিস্টার মঈনুলকে বেআইনিভাবে আটক করা হয়েছে: রিজভী

  • ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সাথে নির্বাচন কমিশনের বৈঠক চলছে

  • জিয়া অরফানেজ মামলা: শুনানি পেছাতে খালেদা জিয়ার...

  • আইনজীবীদের আবেদন খারিজ; দুদকের যুক্তি উপস্থাপন শেষ

  • জাতীয় নির্বাচনে রাজনৈতিক দলের জোট গঠন করে একদলের প্রার্থী...

  • অন্য দলের প্রতীকে নির্বাচন অসাংবিধানিক ঘোষণা চেয়ে হাইকোর্টে রিট

  • মানহানির মামলায় ব্যারিস্টার মঈনুল গ্রেপ্তার; আজ নেয়া হবে আদালতে

  • সিরিজ জয়ের পাশাপাশি উন্নতির ধারাবাহিকতা রাখাই লক্ষ্য: মাশরাফী

জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির কারণ অনুসন্ধানে ডিএসই

জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির কারণ অনুসন্ধানে ডিএসই

দুর্বল মৌল ভিত্তির জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির নেপথ্যের কারণ খুঁজতে শুরু করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসই। ইতিমধ্যে দুটি কোম্পানীর শেয়ার লেনদেনের নিয়মিত তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। নতুন করে আরও ১৩টির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে। এরা টানা ৫ বছর ধরে কোনো লভ্যাংশ দিচ্ছে না।

ইতোমধ্যেই প্রতিষ্ঠানগুলোকে কারণ দর্শাও নোটিশ দেয়া হয়েছে। জবাব সন্তোষজনক না হলে ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ডিএসই। পুঁজিবাজার যেকোন অর্থনীতির একটি বড়ো শক্তি হলেও, বাংলাদেশে তা আদর্শ পুঁজিবাজার হয়ে উঠতে পারেনি। বরং যৌক্তিক আচরণের পরিবর্তে এ বাজারের নিয়মিত চিত্রই হলো অস্থিরতা। ভালো শেয়ারের প্রতি মানুষের আগ্রহ থাকার কথা থাকলেও বাংলাদেশে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় তার উল্টোচিত্র।

এই যেমন গেল কয়েক মাস ধরে লাগামহীন দাম বাড়ছে দুর্বল মৌল ভিত্তির জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের। বছর বছর ধরে এসব কোম্পানী লভ্যাংশ দেয় না, অনেক ক্ষেত্রে কোম্পানী অচল। তারপরও দামবাড়ছে হু হু করে। ক্ষুদ্র বিনিয়োগারীরাও হুজুগে ছুটছেন এসব শেয়ারের পেছনে। তা রোধ করতে সম্প্রতি রহিমা ফুড ও মডার্ন ডাইং নামের এমনই দুই প্রতিষ্ঠানকে লেনদেনের নিয়মিত তালিকা থেকে বাদ দিলো ডিএসই। এবার আরো ১৩ কোম্পানীকে আনা হচ্ছে তদন্তে। অভিযোগ, টানা ৫ বছর ধরে এরা লভ্যাংশ দিচ্ছে না। কোম্পানী কী সচল না অচল, কীভাবে চলছে-এসব তথ্যও নেই। তাই তাদের হালনাগাদ তথ্য দিতে হবে ডিএসইকে।

ডিএসই তদন্তের আওতায় আনতে মেঘনা পেট ইন্ডাস্ট্রিজ, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক, দুলা মিয়া কটন স্পিনিং মিলস, শ্যামপুর সুগার মিলস, বেক্সিমকো সিনথেটিকসসহ মোট ১৩ টি জেড ক্যাটাগরির কোম্পানিকে কারণ দর্শানোর চিঠি দেয়া হয়েছে।কোম্পানিগুলোর জবাব ডিএসইর সন্তোষজনক না হলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ডিএসইর এ পরিচালক। দুর্বল কোম্পানির শেয়ারের দাম তুলনামূলক কম হওয়ায় সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এর প্রতি বেশী আগ্রহী। তবে হুজুগে কান না দিয়ে বিনিয়োগকারীদের জেনেবুঝে বিনিয়োগের আহবান জানান বিশেষজ্ঞরা। এসব কোম্পানীর বাইরে আরো ১৭ টি কোম্পানিকেও কারণ দর্শানোর চিঠি দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে ডিএসইর।

 

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর