channel 24

সর্বশেষ

  • গুলশানে কূটনৈতিক এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে

  • শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে এক মাসের জন্য...

  • নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত

  • যন্ত্রপাতি ক্রয়ে দুর্নীতির অভিযোগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক...

  • আবদুর রশীদসহ ১৪ জনকে ১ থেকে ৩ এপ্রিল তলব করেছে দুদক

  • বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টকে ভাঙার চেষ্টায় সরকার: মির্জা ফখরুল

  • প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ মারা গেছেন...

  • বাদ জোহর বারিধারার পার্ক মসজিদে জানাজা...

  • বনানী সামরিক কবরস্থানে দাফন

  • তৃতীয় দফায় ১১৬ উপজেলায় ভোট চলছে...

  • অনিয়মের অভিযোগে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলায় ভোট স্থগিত...

  • অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ও কটিয়াদীর ওসি সামসুদ্দীনকে প্রত্যাহার..

  • মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে আ.লীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থীর ভোট বর্জন...

  • চট্টগ্রামের পূর্ব চন্দনাইশে দুপক্ষের সংঘর্ষে পুলিশসহ গুলিবিদ্ধ ২; আটক ৫...

  • ভোটারশূন্যতাই প্রমাণ করে ভোটের প্রতি জনগণের আস্থা নেই: রিজভী

  • বাসচাপায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহতের প্রতিবাদে...

  • ৫ দফা দাবিতে সিলেটের চৌহাট্টায় সহপাঠীদের সড়ক অবরোধ

রাশিয়া বিশ্বকাপে আর্থিক রেকর্ড করেছে ফিফা

রাশিয়া বিশ্বকাপে আর্থিক রেকর্ড করেছে ফিফা

শুধু আয়োজনে নয়, আর্থিক দিক দিয়েও অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে রাশিয়া বিশ্বকাপ। এবার ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে ফিফা। যা ব্রাজিল বিশ্বকাপ থেকেও ২৫ শতাংশ বেশি।

লাভবান হয়েছে অ্যাডিডাস, কোক সহ ফিফার স্পন্সর প্রতিষ্ঠানগুলোও। আর প্রতিবারের মতো এবারো, বিশ্বকাপের এই আয় থেকে একটি অংশ পাবে বাংলাদেশসহ ফিফার সব সদস্য দেশ।

গ্রেটেস্ট শো অন দ্য আর্থ ঘিরে পুরো একমাস শুধু রাশিয়া নয় ব্যস্ত ছিলো বিশ্ব। ফ্রান্সের শিরোপা তোলার মধ্য দিয়ে পর্দা নামে আসরের। দলগুলোর সাফল্য ব্যর্থতা নিয়ে হিসাব নিকাশ এখনো চলছে। চলছে ফিফার সাফল্য ব্যর্থতা নিয়েও।

তবে ব্যবসায়িক দিক দিয়ে সফল এবারের আসর তা ঘোষণা করেছে ফিফা। যেখানে পুরণ হয়েছে আয়ের লক্ষ্য। আসর জুড়ে ফিফার মোট আয় ৬ বিলিয়ন ডলার। যা ২০১৪ আসর থেকে ২৫ শতাংশ বেশি। ব্রাজিল আসরে ফিফার আয় হয়েছিলো ৪ দশমিক আট বিলিয়ন ডলার আর লাভ হয়েছিলো ২.৬ বিলিয়ন।

রাশিয়া আসর থেকে আয় কৃত ৬ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে ৩ বিলিয়ন এসেছে সম্প্রচার সত্বে। যা ছাড়িয়ে গেছে আগের সব রেকর্ড। ২০১৪ ও ২০১০এ সম্প্রচার সত্ব থেকে এসেছিলো ২ দশমিক চার মিলিয়ন ডলার। ২০০৬ ও ২ এ সেই অঙ্ক ছিলো আরো কম।

আর্থিক ভাবে লাভবান হয়েছে ফিফার স্পন্সর প্রতিষ্ঠানগুলোও। স্পোর্টস ব্র্যান্ড অ্যাডিডাস যেমন শুধু মাত্র সামাজিক  মাধ্যমেই আয় করেছে ৬৩.৬ মিলিয়ন ডলার। ফিফারা আরেক স্পন্সর কোকা কোলা এক ট্রফি ট্যুর দিয়েই আয় করেছে ৫.৫ মিলিয়ন ডলার। আর স্পোর্টস ড্রিঙ্ক পাওয়ারএড আয় করেছে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ ডলার।

ফিফার হিসাবে সব মিলিয়ে ৭.৭ মিলিয়ন সমর্থক ভ্রমণ করেছে রাশিয়ায়। যা ২৬ থেকে ৩১ বিলিয়ন ডলার যোগ করেছে দেশটির জাতীয় অর্থনীতিতে। সৃষ্টি করেছে দুই লাখ ২০ হাজার নাগরিকের কর্মসংস্থান।

বিশ্বকাপের এই আয় থেকে লাভবান হবে বাংলাদেশসহ সদস্য দেশগুলোও। যেখানে  ফিফার বার্ষিক ১ দশমিক ০৫ মিলিয়ন ডলার অনুদানের সাথে যোগ হতে পারে আরো আড়াই লাখ মার্কিন ডলার।

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর