channel 24

সর্বশেষ

  • নয়াপল্টনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া...

  • ইটপাটকেল-টিয়ারশেল নিক্ষেপ; পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর ও আগুন

এলএনজি সরবরাহ নিয়ে এখনও অনিশ্চয়তা  

এলএনজি সরবরাহ নিয়ে এখনও অনিশ্চয়তা  

এখনো অনিশ্চয়তা কাটেনি এলএনজি সরবরাহ নিয়ে।

প্রায় আড়াই মাস আগে সাগরে জাহাজ এলেও সংযোগ দেয়া যায়নি গ্রিডের সাথে। আমদানি ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা প্রতিষ্ঠান RPGCL- এর মতে, আবহাওয়া অনুকূল থাকলে বাকি কাজ সারতে সময় লাগবে অন্তত ৫-৭ দিন। ফলে, সম্ভব হবে না চলতি মাসের মাঝামাঝি নাগাদ সরবরাহ করা। বিশেষজ্ঞদের মতে, গুরুত্বপূর্ণ এই পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে এমন অব্যবস্থাপনা অনাকাঙ্ক্ষিত। যা নেতিবাচক বার্তা দেবে ব্যবসায়ী এবং ব্যবহারকারীদের।

প্রায় আড়াই মাস হতে চলল, এলএনজিভর্তি জাহাজ এক্সিলেন্স ভাসছে সমুদ্রের মাঝখানে। অথচ, এখান থেকে জাতীয় গ্রিডে গ্যাস যাওয়ার কথা ছিল গেলো ৭ মে। কিন্তু, সেটা করতে গিয়ে সামনে আসে নানামুখী সমস্যা। সাগরে নিচে থাকা পাইপলাইনের সংযোগস্থলে ধরা পড়ে ছিদ্র। যা মেরামত নিয়ে শুরু হয় নানামুখী সঙ্কট। আবহাওয়াসহ অন্যান্য দোহাইয়ে সরবরাহের তারিখ পেছানো হয় কয়েক দফা। যা অব্যাহত আছে এখনো। ফলে, শঙ্কা তৈরি হয়েছে জুলাইয়ের মাঝামাঝি নাগাদ সরবরাহ শুরু করা নিয়ে।

প্রথম জাহাজে এলএনজি আসে ১ লাখ ৩৮ হাজার ঘনমিটার। যা গ্যাস আকারে সরবরাহ শুরু করার কথা দৈনিক ৫০ কোটি ঘনফুট হারে। অথচ, এখনো আনোয়ারা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত পাইপলাইন প্রস্তুত না হওয়ায়, তা সরবরাহ করা যাবে না পুরো মাত্রায়। বিপরীতে, জাহাজের ভাড়া এবং ফি বাবদ গুণতে হবে দৈনিক সোয়া দুই লাখ ডলার। তাছাড়া, এলএনজি কেনা বাবদও আটকে আছে সরকারের বিপুল টাকা। উড়ে গিয়ে কমছে জাহাজে থাকা গ্যাসের পরিমাণও। তাই, এমনসব অব্যবস্থাপনাকে ভালো মতো নিতে পারছেন না জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। চুক্তি অনুযায়ী, নির্ধারিত সময়ের দুই মাসের মধ্যে সরবরাহ শুরু করতে ব্যর্থ হলে জরিমানার বিধান রয়েছে দায়ী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। 

 

 

 

 

 

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর