পাটপণ্যের রফতানি আটকে আছে বিলিয়ন ডলারের নিচে

সরকারের নানামুখী তৎপরতার পরও; পাট ও পাটজাত পণ্যের রফতানি আয় আটকে আছে বিলিয়ন ডলারের নিচে। বিশ্লেষকরা বলছেন, নকশায় বৈচিত্র্য এবং প্রয়োজনীয় গবেষণা না থাকায়, সর্বোচ্চ উৎপাদনকারী হয়েও প্রতিযোগিয়তায় পিছিয়ে রয়েছে, বাংলাদেশ। অথচ, আমদানি নির্ভর হয়েও রপ্তানিতে নেতৃত্ব দিচ্ছে চীন। তাই এ খাতের উন্নয়নে নতুন করে ভাবার কথা বলছে, সরকার।

পাটের তৈরি এমন বহুমুখী ও বৈচিত্র্যময় পণ্যের কদর এখন কেবল দেশেই নয়, সারা বিশ্বেই পরিবেশ বান্ধব এ পণ্যের প্রতি ঝুঁকছে মানুষ। তাই বহুমুখী পাটজাত পণ্যের উৎপাদন ও রফতানি বাড়াতে গত ৫ বছর ধরে সরব হয়েছে সরকার ও উদ্যোক্তারা।

তবে বিশ্বে পাট উৎপাদনে বাংলাদেশ শীর্ষ অবস্থানে থাকলেও রপ্তানি ঝুড়িতে এখনো শক্ত অবস্থান তৈরি করতে পারেনি। হিসাব বলছে, ৩৭ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানি ঝুড়িতে পাট ও পাটজাত পণ্যের অবস্থঅন তৃতীয় হলেও আয় ১ বিলিয়ন ডলারেরও কম। সবশেষ অর্থবছর এ খাত থেকে রপ্তানি আয় এসেছে ৯৬ কোটি ডলার। যা ৬ বছর আগেও ছিল একইরকম। তাই এ খাতের রপ্তানি প্রবৃদ্ধির চাকা অনেকটা একই বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে। অথচ বাংলাদেশ থেকে কাঁচাপাট আমদানি করে বহুমুখী পণ্য রপ্তানিতে নেতৃত্ব দিচ্ছে চীন ও ভারত।

পাট ও পাটজাত পণ্যের প্রসার নিয়ে কাজ করা সরকারি প্রতিষ্ঠান জেডিপিসির মতে, বহুমুখী পাটপণ্য উৎপাদনে যে কাঁচামাল প্রয়োজন পুরণো মিলগুলোতে সে সক্ষমতা নেই। নজর দেয়া হয়নি গুণগত ডিজাইনেও। আর বিশ্লেষকরা বলছেন, পুরণো উৎপাদন পদ্ধতি, শিল্পের সংস্কার না হওয়া, গবেষণায় ঘাটতি এমন নানা কারণে প্রতিযোগীতা সক্ষমতায় এখনো পিছিয়ে বাংলাদেশ।

তবে অবস্থার পরিবর্তনে পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। বিশ্বে ৫শ বিলিয়ন পিস শপিং ব্যাগের যে বাজার তা ধরতে, ডিসেম্বর নাগাদ প্রতিদিন অন্তত ৪ লাখ পিস সোনালী ব্যাগ উৎপাদন করা হবে। এছাড়াও বহুমুখী পাটজাত পণ্যের উন্নয়ন ও গবেষণায় নতুন করে ভাবা হচ্ছে বলে জানালেন, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী।

মন্ত্রী জানান, বহুমুখী পাটপণ্যের রপ্তানি বৃদ্ধি ও নতুন বাজার তৈরি করতে আগামী ১ মাসের মধ্যে আফ্রিকার ৫টি দেশের সাথে আলোচনায় বসবে সরকারের প্রতিনিধি দল।


চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save